Saturday, September 24, 2011

Recognizing publishers’ standout content in Google News Saturday, September 24, 2011 8:31 AM

Every day, news organizations and journalists around the world dedicate significant time and resources toward some of the most critical types of coverage: exceptional original reporting, deep investigative work, scoops and exclusives, and various special projects that quite clearly stand out. Today, during a Google News workshop at the Online News Association conference in Boston, we introduced a new content tag for the US edition that will help us better feature this “standout” content and give even more credit where credit is due.

If you put the tag in the HTML header of one of your articles, Google News may show the article with a ‘Featured’ label on the Google News homepage and News Search results. The syntax for this new tag is as follows:



You can use the tag to point to your own content or to point to other sources with standout stories. Because the Standout tag belongs in the HTML header of your articles, it will only be seen by automated systems like Google News, not by direct readers of your articles themselves.

Standout Content tags work best when news publishers recognize not just their own quality content, but also the original journalistic contributions of others when your stories draw from the standout efforts of other publications. Linking out to other sites is well recognized as a best practice on the web, and we believe that citing others’ standout content is important for earning trust as you also promote your own standout work.

At this point, we ask news organizations to use the Standout tag to cite their own content at most seven times in each calendar week. If a site exceeds that limit, it may find that its tags are less recognized, or ignored altogether. A news organization may cite standout stories from other news sources any number of times each week.

To be clear, Standout tags are just one signal among the many signals that algorithmically determine prominence on Google News. We recognize the importance of giving credit where credit is due, and believe this tag can be a step in the right direction -- but it will only succeed if the publisher community helps it succeed. We have experimented in the past with other metatags, and have applied feedback from those efforts to this initiative. As we monitor how the Standout tag is applied, we'll look forward to sharing further observations or updates.

To learn more about how the Standout tag works and how you can implement it on your site, visit our Help Center article.

Permalink Links to this post

Google News now crawling with Googlebot
Thursday, August 25, 2011 2:00 PM
Posted by David Smydra, Google News Product Specialist

(Cross-posted on the Webmaster Central Blog)

Google News recently updated our infrastructure to crawl with Google’s primary user-agent, Googlebot. What does this mean? Very little to most publishers. Any news organizations that wish to opt out of Google News can continue to do so: Google News will still respect the robots.txt entry for Googlebot-News, our former user-agent, if it is more restrictive than the robots.txt entry for Googlebot.

Our Help Center provides detailed guidance on using the robots exclusion protocol for Google News, and publishers can contact the Google News Support Team if they have any questions, but we wanted to first clarify the following:

* Although you’ll now only see the Googlebot user-agent in your site’s logs, no need to worry: the appearance of Googlebot instead of Googlebot-News is independent of our inclusion policies. (You can always check whether your site is included in Google News by searching with the “site:” operator. For instance, enter “site:yournewssite.com” in the search field for Google News, and if you see results then we are currently indexing your news site.)
* Your analytics tool will still be able to differentiate user traffic coming to your website from Google Search and traffic coming from Google News, so you should see no changes there. The main difference is that you will no longer see occasional automated visits to your site from the Googlebot-news crawler.
* If you’re currently respecting webmaster guidelines for Googlebot, you will not need to make any code changes to your site. Sites that have implemented subscriptions using a metered model or who have implemented First Click Free will not experience any changes. For sites which require registration, payment or login prior to reading any full article, Google News will only be able to crawl and index the title and snippet that you show all users who visit your page. Our Webmaster Guidelines provide additional information about “cloaking” (i.e., showing a bot a different version than what users experience). Learn more about Google News and subscription publishers in this Help Center article.
* Rest assured, your Sitemap will still be crawled. This change does not affect how we crawl News Sitemaps. If you are a News publisher who hasn’t yet set up a News Sitemap and are interested in getting started, please follow this link.
* For any publishers that wish to opt out of Google News and stay in Google Search, you can simply disallow Googlebot-news and allow Googlebot. For more information on how to do this, consult our Help Center.

As with any website, from time to time we need to make updates to our infrastructure. At the same time, we want to continue to provide as much control as possible to news web sites. We hope we have answered any questions you might have about this update. If you have additional questions, please check out our Help Center.

Permalink Links to this post

Enhancements to Google News for Android tablets and iPads
Tuesday, August 9, 2011 10:00 PM
Posted by Arun Prasath, Tech Lead, Mobile Google News

Alongside working on improving the Google News design for smartphones, we have also been looking into enhancing our offering for tablet devices. Today, we are launching a few minor enhancements to Google News for Android tablets and iPads.

We have optimized columns in the home page and section pages so that they can be more easily viewed in portrait and landscape orientations. Some of the other updates include: a conveniently placed menu on the top for navigating across sections, support of finger swiping through the multimedia strip in expanded story boxes and a more friendly edition picker.

Women of Zimbabwe Arise Activists Arrested on International Day of Peace


On Wednesday, September 21, activists from Women of Zimbabwe Arise (WOZA) marched in Bulawayo, Zimbabwe to commemorate International Day of Peace. Not seeming to appreciate the irony, police officers violently dispersed the protest, arresting 12 women and injuring several others.

Thursday, 10 of those women were released, but Jenni Williams and Magodonga Mahlongu remain in jail. They are charged with kidnapping and theft pertaining to some sort of bizarre set of circumstances that is beyond my comprehension at this time.

Jenni and Magodonga appeared in court this morning. Bail was denied and their next hearing is scheduled for October 6th. They will remain imprisoned until that time. Jenni recently had a minor operation which could result in serious complications from infection due to the disgusting sanitary conditions in prison. This ridiculous set of circumstances is a direct reflection of elements of the Zimbabwe government attempting to repress political and social dissent.

Women of Zimbabwe Arise, a social justice movement of women and men dedicated to improving human rights, increasing the quality of life and holding the government accountable in Zimbabwe, are no strangers to arrests and harassment by the government. WOZA activists number their arrests in the hundreds. Earlier this year, Jenni and Magodonga were warned the next time they were arrested, they would be kept in a men’s prison.

It’s time the government of Zimbabwe stopped violating the peace on any day of the year. Zimbabwe will appear before the United Nations Human Rights Council in early October to defend its human rights record. We are calling on regional neighbor Angola, a country with influence in the region, to speak up and insist Zimbabwe meet its human rights obligations. Women should be allowed to gather to celebrate peace without worrying about being met with violence.

Tell Angola to speak up for peace.

সমাবেশ সামনে রেখে নেতাদের সঙ্গে খালেদার বৈঠক


নয়া পল্টনে আগামী মঙ্গলবারের জনসভায় ব্যাপক লোক জমায়েত করার প্রস্তুতি নিচ্ছে বিএনপি ও সমমনা দলগুলো। ওই জনসভা থেকেই আন্দোলনের নতুন কর্মসূচি ঘোষণা করবেন বিরোধী দলীয় নেতা খালেদা জিয়া।

এই জনসভা সামনে রেখে শনিবার রাতে গুলশানের কার্যালয়ে দলীয় নেতাসহ ঢাকার পাশ্ববর্তী জেলার সাবেক সাংসদ, প্রভাবশালী নেতা এবং সমমনা ৮টি দলের নেতাদের সঙ্গে আলাদাভাবে বৈঠক করেন বিএনপি চেয়ারপারসন।

খালেদা জিয়ার সভাপতিত্বে রাত ৯টায় এই বৈঠক শুরু হয়। প্রথমে মহানগরসহ পাশ্ববর্তী জেলার সাবেক সাংসদ ও নেতাদের সঙ্গে বৈঠক হয়। এরপর রাত পৌনে ১০টায় সমমনা ৮ দলের নেতাদের সঙ্গে বসেন বিরোধী দলীয় নেতা।

এই ৮ দলের মধ্যে জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টি-জাগপা, ন্যাশনাল পিপলস পার্টি-এনপিপি,মুসলিম লীগ, বাংলাদেশ ন্যাপ, লেবার পার্টি, ইসলামিক পার্টি, ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক পার্টি-এনডিপি ও ন্যাপ ভাসানীর নেতারা ছিলেন।

মঙ্গলবার দুপুর ২টায় নয়া পল্টনে বিএনপি কার্যালয়ের সামনে এই জনসভা থেকে বিরোধী দলীয় নেতা খালেদা জিয়া সরকার বিরোধী আন্দোলনের নতুন কর্মসূচির দেবেন। এই জনসভার জন্য পল্টন ময়দান চাইলেও সরকারের কাছ থেকে অনুমতি পায়নি দলটি।

শনিবার রাতের বৈঠকে দলীয় নেতাদের সঙ্গে ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আবাবাস, রফিকুল ইসলাম মিয়া, আবদুল মঈন খান, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, মহানগর আহবায়ক ও সহসভাপতি সাদেক হোসেন খোকা, চেয়াপারসনের উপদেষ্টা অধ্যাপক এম এ মান্নান, মাহমুদুল হাসান,আবদুল মান্নান, যুগ্ম মহাসচিব আমান উল্লাহ আমান, সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, মহানগর সদস্য সচিব আবদুস সালাম, মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক হামিদুল্লাহ খান, আইন বিষয়ক সম্পাদক জিয়াউর রহমান খান, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক লুৎফর রহমান আজাদ, সাবেক সাংসদ আবদুল হাই, এস এ খালেক, গৌতম চক্রবর্তী, খায়রুল কবীর খোকন, আবুল কালাম আজাদ, দেওয়ান মো. সালাহউদ্দিন, সালাহউদ্দিন আহমেদ উপস্থিত ছিলেন।

এছাড়া যুব দল সভাপতি সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি হাবিব উন নবী খান সোহেল, মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদক শিরিন সুলতানা, মহানগর নেতা এম এ কাইয়ুম, সাহাবউদ্দিন, সাবেক ছাত্র দল সভাপতি আজিজুল বারী হেলাল, ছাত্র দলের বর্তমান সভাপতি সুলতান সালাহউদ্দিন টুকু বৈঠকে অংশ নেন।

সমমনা দলের নেতাদের মধ্যে শফিউল আলম প্রধান, শেখ শওকত হোসেন নিলু, আবদুল মবিন, জেবেল রহমান গানি, মোস্তাফিজুর রহমান ইরান,খন্দকার গোলাম মূর্তজা,শেখ আনোয়ারুল হক, এ এইচ এম কামারুজ্জামান খান বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।

Reach binding climate deal: Hasina


Dhaka, Sep 24 (bdnews24.com)—Prime minister Sheikh Hasina has called upon the world once again to reach a binding agreement on climate change.

"Climate change is upon us and we cannot afford to waste time," Hasina told the United Nations General Assembly on Saturday in New York.

"In COP 17 in Durban this year, we must have a binding agreement on cuts of greenhouse gas emissions, burden sharing, relocation of climate migrants, free transfer of technologies, and real contribution to the internationally agreed Climate Fund," she said.

The 17th United Nations Framework Convention on Climate Change (COP 17) will be held in Durban in South Africa.

"Bangladesh is under extra strain from climate change. A meter rise of the sea due to global warming would inundate a fifth of our landmass displacing over 30 million people," Hasina said, and pointed out that this would be the largest humanitarian crisis in history.

She then outlined the measures Bangladesh had undertaken to mitigate climate change impacts.

"We have prepared a 134-point adaptation and mitigation plan that includes river dredging, afforesting 20 percent of land and increasing food production with crop varieties attuned to climate change.

"We have also established a Climate Change Trust Fund with $ 300 million of our own funds, and a Bangladesh Climate Change Resilience Fund with $ 110 million from the donors," she added.

Persian Press Review


This column features excerpts from news articles, editorials, commentaries, and interviews of the leading Iranian newspapers and websites.

Thursday’s headlines

KHORASAN: Government allocates 11.4 billion dollars subsidies to basic goods, agriculture and transportation

JAME JAM: Heads of three branches of government are strongly determined to deal with economic corruption

TEHRAN-E EMROOZ: U.S. citizens released from Evin prison; Iran agrees to $500,000 bail for (each of) the U.S. convicts

JAVAN: We will never back down from dealing with the case of the largest bank corruption, judiciary chief says

HEMAYAT: We are ready for fair negotiation with U.S., Ahmadinejad says

KAYHAN: Regional developments show nations hate the U.S., president tells ABC

SHARQ: Proposal to replace prime minister post with presidential post, (MP Hamidreza) Katouzian announces

DONYA EGHTESAD: IMF releases new statistics about Iran’s economy

Leading articles

FARS NEWS AGANCY, in a news report, has quoted MP Ali Motahhari as threatening to resign if the motion to ask question from President Mahmoud Ahmadinejad is scrapped. However, Deputy Majlis Speaker Mohammad Reza Bahonar had said previously the motion has been cancelled because the numbers of signatures are less than what is needed. Motahhari says only 14 MPs have withdrawn their signatures and still 86 MPs are insistent on asking question from the president. The MP added certain lawmakers dropped the motion under pressure from the Majlis Presiding Board. Motahhari was the initiator of the motion to summon Ahmadinejad to the parliament to answer lawmakers’ questions about a number of the irregularities. (According to the Constitution, the president must appear in the parliament to answer questions when at least one fourth of the lawmakers ask the president to provide an explanation for his decisions and measures regarding a certain issue.)

JAME JAM, in a news report, has quoted head of the Organization for Crisis Management Hasan Qadami as saying that drought has affected 75 percent of the country’s lands. Qadami said in previous years, country’s natural disasters were limited to earthquakes and floods but currently drought and forest fire have been added to them, he said. Qadami said declining rainfall as the main reason for drought in Iran.


HAMSHAHRI, in a news report, has said while Tehran Governor General Morteza Tamadon claims that the air quality in Tehran is in a good condition MP Nasrollah Torabi Qahfarkhi has expressed concern over air pollution in Tehran. Tamadon also claimed that during the first six months of the current year the number of clean days in Tehran has greatly increased compared to 5 years ago. However, the director of the Tehran Air Quality Control Company has said Tehran has not experienced even one day of clean air in the first six month of the current year.

Indian PM to visit Iran


Indian Prime Minister Manmohan Singh has accepted, in principle, Iranian President Mahmoud Ahmadinejad’s renewed invitation to visit Iran.

The invitation was accepted when the two leaders met in New York after a long time on Friday on the sidelines of the UN General Assembly session, foreign secretary Ranjan Mathai told reporters.

The dates for the visit will be decided by the two sides after diplomatic consultations, he said. But as part of the bilateral agenda of visits, Lok Sabha Speaker Meira Kumar ill be visiting Iran shortly. If Manmohan Singh visits Iran, it will be the first prime ministerial visit after 10 years, when Atal Bihari Vajpayee made a trip to Tehran in 2001. But there have been visits at other levels over the years between the two countries.

“The previously planned meeting basically focused on our bilateral relationship,” Mathai said when asked if the meeting with Ahmadinejad, coupled with Indian support for Palestine, would have an impact on New Delhi’s ties with Washington.

Though the two leaders did not discuss the proposed IranPakistan-India gas pipeline - another issue of divergence with the US - “they discussed a whole series of projects between the two countries, including potential cooperation in the field of hydrocarbons”, he said.

They also decided to hold a meeting of the India-Iran Joint Economic Commission co-chaired by the foreign ministers of the two countries. The two leaders reviewed the situation in Afghanistan and discussed developments in West Asia and North Africa. They also agreed to review the Non Aligned Movement, which will be chaired next by Tehran.
(Source: Indo-Asian News Service)

FM Lieberman: UN Speech Abbas' Most Anti-Israel Ever


Foreign Minister Avigdor Lieberman called Abbas' UN speech his most inciting ever against Israel


The speech made by Palestinian Authority chief Mahmoud Abbas “was the worst example of anti-Israel incitement and vitriol I have ever heard,” Foreign Minister Avigdor Lieberman said over the weekend. Abbas, who throughout the speech called Israel a “colonial occupying power,” accused Israel of targeting civilians and arbitrarily destroying crops, schools, mosques and hospitals. He demanded that the United Nations recognize Judea, Samaria and Jerusalem as an Arab state, without further negotiations with Israel.

The language that used by Abbas, who spoke in Arabic to the cheers of UN General Assembly delegates, was especially troubling, said Lieberman. “It was an appeal to the darkest forces,” Lieberman said. “He talked about how Israel was destroying Islamic holy places, how the IDF is responsible for the 'price tag' actions, the IDF sending attack dogs against Palestinians. He talked about the 'ethos' of Arafat and how terrorists are really 'political prisoners.' Apparently he forgot about the murders of the Fogel family of Itamar,” said Lieberman, who walked out when Abbas began speaking.

Speaking to Channel 10, Lieberman was asked whether there was a chance that talks could start up with the Palestinians soon. The Foreign Minister was skeptical. “Apparently they have made a strategic decision not to speak to us. Since the establishment of the current government, we have been asking the Palestinians to speak to us. We even made the difficult decision to freeze building in Judea and Samaria for ten months, but after a speech like Abbas' it's clear they probably have no intention to return to negotiations.”

The accessibility of envy on social media by Fahad Faruqui


We have all found ourselves to some degree comparing and judging our life experiences, appearances, relationships, and professional and academic successes to those attained by others. There are two logical errors that lead to envy and covetousness which poison the soul:

a) you can never know the totality of a person’s life and

b) my happiness is not conditional upon your successes or failures.

Recently, a friend and I flew to Madrid from Cairo, exploring Seville, Cordoba, Granada, and Ronda, savouring the joys of Moorish architecture, Andalusian food and flamenco shows in the most authentic tablaos. We then moved to Tangier, Morocco, via the port of Tarifa, after a delightful afternoon spent gazing at the beautiful views of the Strait of Gibraltar from atop one of the “Pillars of Hercules” that once bore the warning for sailors “nothing further beyond” in Latin.

Our travels continued as we treasured the Atlas Mountains, picturesque blue-washed villages, narrow alleys of Morocco, where we seized every opportunity to take delight in eating the Moroccan food. A month later, at the train station of Casablanca, my friend and I parted ways with tons of pictures and beautiful memories, some of which were shared on social media.

Some amongst my friends and acquaintances blatantly said they were envious of my (so to speak) trouble-free life. Those who could afford such a trip didn’t have the time to spare; others didn’t have the means to go; while some others couldn’t go because their kids are too young to track the narrow alleys of Fez’s Old Medina which become even tighter when donkeys laden with supplies walk by.

I reminded an acquaintance that he has the comfort of family, job security, and most importantly, daughters that he adores, so there is no need to marvel at a younger single man who invested most of his earnings this year in a pedantically planned, epic trip.

With the advancement of technology, the models on the cover-pages of magazines, who are de facto role models for teenagers and adults across the globe, are ever more perfect than the idealised beauty depicted in the Florentine Renaissance paintings and sculptures. The tweaked waistlines and thighs, exaggerated bosoms and skin devoid of blemishes, pigmentation, and scars, all acquired through Photoshop are all too unreal, but have given a new point of comparison that is hard, if not impossible, to top. If you’re healthy and fit, another person’s “beauty,” whether natural or technology-enhanced, should not deter you from being happy. But I can understand the need to be accepted and loved.

Being consumed in constant judging leaves us with the feeling of being mediocre or, alternately, with narcissistic pride. Both antithetical perceptions absorb us in the vicious cycle of comparison with friends, family and unknown others. What’s most important — which I wish had realised in my teens — is to learn to be comfortable in our own skin.

Comparing how you look, the model of your cell phone and car, clothes and handbags, and summer travel plans with others develops a rat race mentality. Our lives are then consumed in trivial competitions: how much you can bench press, how fast you can drive in traffic or perform various car/bike stunts, how up-to-date with fashion you are, and so on.

That is, perhaps, why I see young boys and girls going out of their way to categorise classmates based on their perceptions of haves and have-nots and go on forming superficial friendships.

Even the very devout are not free from the curse of comparison. How long a person stays in prostration during a prayer is just another example. Those who know the pitfalls of judging and comparing stay mindful of their thoughts and intentions. As Lee Weissman noted in less than 141 characters on Twitter: “In my brain: ‘Wow, he is so knowledgeable’ ‘That guy can really pray.’ Enough! Comparing yourself to other people is such a dead end.”

In many ways, social media has given access to envy and increased our tendency to judge and compare our lives with others by giving us a constant feed of the new relationship statuses, jobs, children, travels and successes that our friends and acquaintances are encountering.

The very fact that someone has married before you, had more children, gotten promoted, toned their body or travelled to exotic getaways may appear immensely important to us now, but such perceptions are short-sighted and shouldn’t drive us into the pit of envy.

Facebook offers relationship statuses raging from “It’s complicated” to “In a relationship” to “Divorced” among many others. In either of the relationships, you can be miserable judging and comparing yourself with others, or you can be in a state of utter bliss if you’re in harmony with yourself.

I, like many others, don’t post my worries, illnesses, loss of love and troubles on social media. If I were to give you an honest blow by blow account of my life, you may not want to be in my shoes. If you have to, mimic those with strong leadership qualities, compare yourself to those who epitomise the best of manners, follow the footsteps of those wise men and women who posses a strong sense of ethics, morals and fight for human rights and justice.

In crux, heed the wisdom of an age-old proverb, “be careful what you wish for; your wish may come true” and find happiness in what you have.

Legalize and Regulate Marijuana in a Manner Similar to Alcohol.

We the people want to know when we can have our "perfectly legitimate" discussion on marijuana legalization. Marijuana prohibition has resulted in the arrest of over 20 million Americans since 1965, countless lives ruined and hundreds of billions of tax dollars squandered and yet this policy has still failed to achieve its stated goals of lowering use rates, limiting the drug's access, and creating safer communities.

Isn't it time to legalize and regulate marijuana in a manner similar to alcohol? If not, please explain why you feel that the continued criminalization of cannabis will achieve the results in the future that it has never achieved in the past?

মানুষ মানুষের জন্য...Urging for Support

সড়ক দুর্ঘটনায় আহত বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় এআইইউবির ছাত্র আনিসুর রহমান রাবিদের (২৩) চিকিৎসার জন্য সমাজের বিত্তবানদের কাছে সাহায্যের আবেদন জানিয়েছেন তাঁর মা। রাবিদ গত ১১ জুলাই রাতে রাজধানীর রায়ের বাজারের বসিলায় মোটরসাইকেলে বাড়ি ফেরার পথে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত হন। এতে তাঁর মাথায় প্রচণ্ড আঘাত লাগে। বর্তমানে রাবিদ গ্রিন লাইফ হাসপাতালে কোমায় রয়েছেন। হাসপাতালের ডাক্তাররা জানিয়েছেন, তাঁকে শিগগিরই বিদেশে নিয়ে চিকিৎসা করাতে হবে। এ জন্য প্রায় ৮০ লাখ টাকার প্রয়োজন।
রাবিদের পরিবারে মা ও একমাত্র ছোট ভাই আছে। তাঁকে বাঁচানোর জন্য তাঁর মা সমাজের হৃদয়বানদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন। রাবিদের বাবার নাম মরহুম হামিদুর রহমান। সাহায্য পাঠানোর ঠিকানা : সঞ্চয়ি হিসাব নম্বর: ১৫৪৩২০২১৭৮৮৪০০০১, জান্নাতুন আফসারি, ব্র্যাক ব্যাংক লিমিটেড, ঢাকা। যোগাযোগ মাসুদ (রাবিদের মামা) ০১৭১৫২৩৬৫২১।
সংবাদ বিজ্ঞপ্তি।

Barisal Web News


UK-BD News Complementary Service

Friday, September 23, 2011

A Formal Funeral for the Two-State Solution | Foreign Affairs

A Formal Funeral for the Two-State Solution | Foreign Affairs

INVITATION FROM BARISAL WEB AT NATIONAL PRESS CLUB

Drug war

Drug war spending continues to rise as the government continues implementing the failed policies of the war on drugs. Now is our chance to demand that Congress stop wasting money on this catastrophe!

Recently, Congress was charged with cutting at least $1.5 trillion in government spending. That's why you need to write your representative today and show your support for cutting drug war funding.

Every year, the government spends at least $50 billion on the war on drugs with little to show for it. Drug war programs have filled prisons, diverted law enforcement from focusing on serious crimes, and violated civil and human rights here and abroad. The vast majority of Americans derive no benefit from these wasteful programs but they are sustained by powerful vested interests that profit off the drug war boondoggle.

Tell Congress that we've reached the drug war debt-ceiling and to eliminate expensive, ineffective, unaccountable drug war programs.

Let's start by calling for funding cuts to the DEA. Nixon started the DEA right after he declared the war on drugs, and it represents all that’s wrong with the drug war. It’s a law enforcement approach to a public health problem - and it costs taxpayers over $2 billion each year. The DEA should not be in the business of determining which drugs are medicines and blocking scientific research.

In this era of debt, deficits and budget cuts, let’s demand: no more spending on counterproductive drug war programs like the DEA. No more wasting money putting nonviolent drug users behind bars. No more spending on drug policies that don't work and put the public in harm's way. Tell Congress: No more drug war spending.

Thank you for your support.

Free online workshop on investigative business journalism [Worldwide]

Professional and student journalists can learn about business investigations in a free online workshop.

The Donald W. Reynolds National Center for Business Journalism presents "Quick-Hit Business Investigations - Concept to Execution."

Associated Press investigative reporter Matt Apuzzo will teach participants how to frame an investigation as a question, where to look for public documents and how to find sources and get them to talk.

The hour-long course is December 6 at two times - noon or 4 p.m. EST.

For more information, click here.

BBC to journalists on social media: "Don't do anything stupid"

Nicole Martinelli
image:

Recognizing that social media can be a land mine for journalists, the BBC has updated its social media policy.

While the BBC doesn't mind that journalists have personal accounts, they outline in six points how to tweet, blog and use Facebook without running into trouble. (Journalists frequently do -- check out IJNet's guide to 5 tweets that get journalists fired).

They begin the guide to personal accounts by stating "...as a BBC member of staff - and especially as someone who works in News - there are particular considerations to bear in mind. They can all be summarised as: 'Don't do anything stupid’".

Namely, BBC journalists can mention where they work, but they should not use BBC in personal account names. Stay away from politics and anything that might be seen as partisan and speak to management if they want to blog about issues that might be perceived as a conflict of interest.

The four-page document, updated July 12, runs about 900 words. (You can download the .PDF here).

In addition to spelling out what news staff should keep in mind while tweeting or blogging for their personal accounts, it also tells them how to treat breaking news situations and while working on the official news program accounts.

The clarification comes at a time when news organizations are trying to figure out the best way to harness social media while avoiding news leaks and controversy.

The Associated Press, which encourages its journalists to merge personal and professional social media accounts, recently issued a warning to two journalists who expressed personal opinions on social networks.

Time Asia editor: It's OK to spin the news

James Breiner
image:

Time magazine has transformed itself to compete in the world of digital journalism. It publishes multiple editions on multiple platforms, and the most important one is no longer the print edition.

In addition, “You never hear the word objectivity in the newsroom at Time,” says Zoher Abdoolcarim, Asia editor for the publication. “We talk about fairness and balance, yes.”

With so much news available online instantaneously, Time could no longer continue as just a weekly digest of news. It had to tell people what the news means, Abdoolcarim told an audience recently at Tsinghua University's School of Journalism and Communication in Beijing.

“We analyze, we explain and we spin. Yes, spin,” said Abdoolcarim. “It’s OK to spin as long as you’re truthful, informed, transparent and add to the body of knowledge.”

A multiplatform news publisher

The online publication, Time.com, has displaced the magazine as the company's growth platform, he said. There are more people working for the online version than the magazine, and the audience is larger. The online version produces the vast majority of its own stories, with an emphasis on breaking news.

Time's audience on mobile platforms such as tablets and smartphones totals 3.7 million. And while Abdoolcarim himself does not have accounts with social networks, Time has 2.8 million followers and 347,000 Facebook fans.

To prevent the free online version from cannibalizing the magazine audience, non-subscribers cannot access the full print edition, just the headline and a teaser. (This Paid Content post describes Time.com's strategy of exploiting its verticals.)

Print journalism can survive if it continues to evolve, Abdoolcarim said in answer to a student's question about the future of the magazine. However, he advised students to educate themselves in the new multimedia journalism, not just print.

Wealth and the Web

Time has a surprising demographic in the U.S.: magazine subscribers are older but earn less than the users of Time.com. In Asia, the income situation is the reverse: the older magazine readers are wealthier.

One student asked Abdoolcarim if he feared that Time's use of a point of view and spin would diminish its credibility and make it just another opinion machine.

“All good journalism should be rooted in reporting,” he replied. “We do informed commentary. You have to get out there. I'm not in favor of armchair journalism or pure blanket commentary.”

Abdoolcarim is based in his native Hong Kong but talks regularly with the editors in New York. He told several stories about how he urged different covers or story treatments for the Asian edition of Time.

A recent cover featured a close-up portrait and the headline “The Rise of Rick Perry.” Asian readers would have no idea who the cover subject was, Abdoolcarim told his colleagues in New York. So the Asian edition had some text below the headline: “Can the governor of Texas become the next U.S. president?”

This post originally appeared on the blog News Entrepreneurs and was posted on IJNet with permission.

James Breiner is a former Knight International Journalism Fellow who launched and directed the Center for Digital Journalism at the University of Guadalajara. He is bilingual in Spanish and English and is a consultant in online journalism and leadership.

He spent the majority of his career as editor and publisher of business journals in Columbus and Baltimore for American City Business Journals. He led an investigative journalism team at the Columbus Dispatch that won seven awards from the Associated Press of Ohio. He has a master’s degree in English literature from the University of Connecticut. Visit his websites News Entrepreneurs and Periodismo Emprendedor en Iberoamérica. Follow him on Twitter.

Stephen Colbert Discusses the NASA Satellite That May or May Not Fall on You Sometime Today

Have you heard about this whole falling satellite thing? NASA tells us that a satellite is going to fall from space... somewhere... sometime today or tomorrow-ish. But don't worry about having time to get out of danger! As Stephen Colbert points out, "In addition to providing a 28-hour impact window across a 118 million-square-mile danger zone, NASA is providing a 20-minute warning before the satellite strikes." So we're golden!

Pakistani scholar nominated for “World Technology Network” award


KARACHI: Pakistani scholar Dr. Athar Osama has been nominated for the prestigious World Technology Network (WTN) award and has also been elected as a fellow of the WTN.

In a press briefing released on September 5, WTN recognised www.Muslim-Science.com as an agent of change founded by Dr. Athar Osama and has been named as a finalist for the Science and Innovation Media Journalism category.

The WTN will host this award at the World Technology Summit in association with TIME, Fortune, CNN, American Association for the Advancement of Science (AAAS) and MIT’s Technology Review.

The WTN awards are widely seen as “Oscars of Science and Technology.” The Previous WTN award winners include Al Gore (US former Vice President), Mohammad Yunus (founder of Grameen Bank), Mark Zuckurberg (Facebook founder), Larry Page (Google) and Tim Berners – Lee (Inventor of Internet), however, no Pakistani has won this award as yet.

The awards to be distributed in the World Technology Summit, to be held at the United Nations Headquarters in New York City, USA on October 25 – 26, 2011.

WTN selects the finalists through a peer reviewed process and a well established criteria. On individual bases, the awards are distributed in 20 categories such as arts, biotechnology, education, energy, entertainment, health, media and journalism and information technology. WTN also awards to the companies and organisations in10 different categories. The WTN awards have been presented since 2000. Prominent advisors and professionals are included in the selection panel of WTN awards.

“This year we are more eager than ever to pay tribute to the talent and innovation of our individual and corporate honorees,” said James P. Clark, Founder and Chairman of the World Technology Network.

Dr. Athar Osama frequently writes about science, technology and innovation issues especially on Islamic countries. He is the director of Middle East and Asia for ANGLE Plc – a UK based firm for technology commercialisation and policy. He also works at RAND Corporation in Santa Monica, CA as a science and technology policy analyst.

Recently, he launched Muslim-Science.Com, an online journal discussing the issues of Science, Technology, Innovation and Policy mainly concerned with Muslim countries.

Osama did his Bachelors from the Pakistan Air force Academy and did his doctorate in public policy from Pardee RAND Graduate School.

Thursday, September 22, 2011

Getting bless and Thanks after Cross Firing:প্রতিটি ক্রসফায়ারের পর শত শত থ্যাংকসও দোয়া পাই : বাবর


‘বিচারকরা ফোন করে বলেন, গুড জব’ সাড়া জাগানো ওয়েবসাইট উইকিলিকসের ফাঁস করাতারবার্তায় এসেছে বাংলাদেশ প্রসঙ্গ। এর কয়েকটি সংক্ষেপে তুলে ধরা হল :

বাংলাদেশে পুলিশ ও র্যাবের হাতে ক্রসফায়ারের ঘটনা উদ্বেগজনক পর্যায়ে পৌছেছে। ২০০৪ সালে পুলিশের গুলিতে মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২৪০ এ। এদের মধ্যে শুধু ‘ক্রসফায়ার’ এর নামে মারা হয়েছে ১৬৯ জনকে। র্যাবের গুলিতে নিহতের সংখ্যাও একশ’ ছুই ছুই। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর গুলিতে নিহতের এই সংখ্যা ২০০৩ সালের দ্বিগুণ। পরিসংখ্যানে মনে হচ্ছে ২০০৫ সালেই নিরাপত্তা বাহিনীর হাতে বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের সংখ্যা ৫০০ ছাড়িয়ে যাবে। ক্রসফায়ারের নামে এই হত্যাকাণ্ডের তুমুল সমালোচনা হচ্ছে দেশে এবং বিদেশে। কিন্তু তাতে কোনো গাত্রদাহ নেই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী লুত্ফুজ্জামান বাবরের। বিচারবহির্ভূত এসব হত্যাকান্ডে তাকে বরং কিছুটা ‘গর্বিত’ বলেই মনে হচ্ছে। কারণ, বাবর বলেছেন, ‘এক একটি ক্রসফায়ারে কেউ নিহত হবার পর মানুষের নিকট থেকে আমি শত শত থ্যাকংস ও দোয়া পাই! এমনকি বিচারকরাও ফোন করে আমাকে উত্সাহ দিতে বলেন, গুড জব!’

সাড়া জাগানো ওয়েবসাইট উইকিলিকসের দ্বারা ফাঁস হওয়া একটি মার্কিন তারবার্তা থেকে এই তথ্য জানা গেছে। ঢাকাস্থ মার্কিন দূতাবাস থেকে ২০০৫ সালের ২৬ জানুয়ারি তারবার্তাটি পাঠান তত্কালীন মার্কিন রাষ্ট্রদূত। এই তারবার্তায় পুলিশ ও র্যাবের গুলিতে ক্রসফায়ারের নামে হত্যাকান্ডের তীব্র সমালোচনা করা হয়।

তারবার্তায় ঢাকাস্থ মার্কিন রাষ্ট্রদূত লেখেন, ২০০৪ সালের জুনে র্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র্যাব) গঠন করা হয়েছে। এতে শতকরা ৭০ ভাগ সামরিক বাহিনীর সদস্য এবং ৩০ ভাগ পুলিশ বাহিনীর সদস্য নেয়া হয়েছে। প্রথম মাসেই র্যাবের হাতে হেফাজতে থাকা আসামীর ক্রসফায়ারের নামে মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। ক্রসফায়ারের পর যে বিবৃতি দেয়া হয় তার একটি সাথে অন্যটির সামান্যই ব্যবধান আছে। সবগুলোরই একই ফরম্যাট। তফাত্ কেবল নিহতের নাম ও ঘটনাস্থলের। প্রথমে সন্ত্রাসীদের সঙ্গে যোগসূত্র থাকার অভিযোগ কেউ একজন আটক হবে। এরপর কোনো এক রাতে স্বীকারোক্তি অনুযায়ী তাকে নিয়ে ‘অস্ত্র উদ্ধার’ করতে যাওয়া হবে। অন্ধকারে ওত্ পেতে থাকা ওই সন্ত্রাসীদের সহযোগীরা হামলা করবে। এরপর দুই পক্ষের গোলাগুলি শুরু হবে। দুই পক্ষের গুলির মাঝে পড়ে ‘ক্রসফায়ারে’ আটক ব্যক্তির মৃত্যু হবে। ঘটনা ভিন্ন, গল্প সব এক।

তারবার্তায় আরো লেখা হয়, র্যাব যে ‘উন্মত্ত’ আচরণ করছে তাতে বাংলাদেশ সরকারের সিনিয়র কর্তাব্যক্তিদের বিন্দুমাত্র উদ্বেগ নেই। বরং তাদের তৃপ্তির ঢেকুর তুলতে দেখা যাচ্ছে। আইনমন্ত্রী এ ব্যাপারে আমাদের কাছে দাবি করেছেন, ক্রসফায়ারে যারা নিহত হচ্ছে সবাই সন্ত্রাসী, দেশবাসী ক্রসফায়ারকে ভালোভাবেই নিচ্ছে। চিন্তার কোনো কারণ নেই। অন্যদিকে র্যাবের ‘বস’ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী লুত্ফুজ্জামান বাবর বলেছেন, এ ব্যাপারে বেশি আলোচনা না করাই ভাল। কারণ, খারাপ কিছু তিনি দেখছেন না। তিনি দাবি করেছেন, এক একটি ক্রসফায়ারে যখন একজন করে মানুষ নিহত হবার খবর আসে তখন তার কাছেও শত শত টেলিফোন আসে! টেলিফোনকারীরা অভিনন্দন জানায় ও মন ভরে দোয়া করে! এমনকি বিচারকরাও নাকি তাকে ফোন করে ক্রসফায়ারে উত্সাহিত করেন! বাবর বলেছেন, ক্রসফায়ার হচ্ছে স্বল্পমেয়াদি একটা কৌশল। অন্যদিকে, প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া বলেছেন শুধুমাত্র আওয়ামী লীগ এই ক্রসফায়ারের সমালোচনা করছে। কারণ ক্রসফায়ারে তাদের সন্ত্রাসীরাই মারা যাচ্ছে।

২০০৪ সালের বিচারবহির্ভূত হত্যাকান্ডের পরিসংখ্যান দিতে গিয়ে তারবার্তায় লেখা হয়, র্যাবের হাতে ৭৯ জন, পুলিশের হাতে ১২৮ জন, চিতা, কোবরা এবং অন্যান্য বাহিনীর হাতে ৩৩ জন নিহত হয়েছে।

তারবার্তায় মন্তব্য অংশে লেখা হয়, যত গল্পই সাজানো হোক না কেন, সন্দেহ নেই যে এসব হত্যাকান্ড ইচ্ছাকৃত এবং পরিকল্পিত। আগেও ক্রসফায়ার ছিল। কিন্তু র্যাব গঠনের পর এই ঘটনা পাল্লা দিয়ে বাড়ছে। পুলিশও আগের চেয়ে দ্বিগুণ উত্সাহিত হয়ে গেছে।

Settlement immergency regarding National University:


Pressuring to take statement from:সংগ্রাম সম্পাদক ও জামায়াত নেতাদের চাপপ্রয়োগে স্বীকারোক্তি আদায়ের চেষ্টা

জামায়াত নেতা এটিএম আজহারুল ইসলাম, অধ্যাপক তাসনীম আলম ও সংগ্রাম সম্পাদক প্রবীণ সাংবাদিক এবং বিশিষ্ট লেখক আবুল আসাদসহ জামায়াতের প্রথম সারির নেতাদের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ অব্যাহত রয়েছে। জামায়াত-পুলিশ সংঘর্ষের সময় গাড়ি ভাংচুর, অগ্নিসংযোগ ও পুলিশের কাজে বাধা দেয়ার অভিযোগে তাদের বিরুদ্ধে দায়ের করা দ্রুত বিচার মামলায় রিমান্ডে নেয় পুলিশ। তবে রমনা থানা পুলিশ রিমান্ডে নিলেও তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করছে গোয়েন্দা পুলিশসহ বিভিন্ন সংস্থার সদস্য। তাদের রমনা থানা হেফাজতে না রেখে গোয়েন্দা কার্যালয়ে রাখা হয়েছে। আবুল আসাদ সোমবার রাতে গ্রেফতারের পর কোথায় ছিলেন, পরিবারের সদস্যরা ২৪ ঘণ্টায়ও তা জানতে পারেনি। একইভাবে জামায়াত নেতাদেরও প্রথম দফায় ক্যান্টনমেন্ট থানায় নিয়ে নির্যাতন চালানো হয়। তবে পুলিশের দাবি রমনা থানা হাজতে জায়গা না থাকায় শীর্ষনেতাসহ বেশ কয়েকজনকে মিন্টো রোডে ডিবি কার্যালয়ে ও ক্যান্টনমেন্ট থানা হাজতে নেয়া হয়েছিল।
সংশ্লিষ্ট সূত্রমতে, জামায়াত নেতাদের জিজ্ঞাসাবাদের নামে নানাভাবে চাপ প্রয়োগ ও নির্যাতনের মাধ্যমে স্বীকারোক্তি আদায়ের চেষ্টা করছে গোয়েন্দারা। গ্রেফতারের পরই শারীরিক ও মানসিকভাবে দুর্বল করার জন্য তাদের ওপর নির্মম নির্যাতন চালানো হয়। এর মধ্যে এটিএম আজহারকে পুলিশ গোপনে একদফা চিকিত্সাও করিয়েছেন বলে জানা যায়। সূত্রমতে, রমনা ও পল্টন থানা এলাকার পৃথক মামলায় গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে গত মঙ্গলবার ৭১ জনকে রিমান্ডে আনা হয়। এর মধ্যে জামায়াতের ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি জেনারেল এটিএম আজহারুল ইসলাম, কেন্দ্রীয় প্রচার সম্পাদক তাসনীম আলম, কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদের সদস্য ইজ্জত আলী, আবদুর রব ও আবদুস শহীদ নাসিম রয়েছেন। রমনা থানায় তাদের তিন দিনের রিমান্ড আজ শেষ হচ্ছে।
গত সোমবার রাজধানীতে জামায়াতের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষের ঘটনায় রাতে জামায়াতে ইসলামীর পাঁচ কেন্দ্রীয় নেতাসহ প্রায় পাঁচ হাজার নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে রমনা থানায় ৭টি ও পল্টন থানায় ২টিসহ মোট ৯টি মামলা করা হয়। এর মধ্যে চারটি মামলার বাদী পুলিশ এবং পাঁচটির বাদী পুলিশের বাছাই করা কিছু ব্যক্তি। ওই ৯টি মামলায় পুলিশ জামায়াত নেতা আজহারুল ইসলামসহ ৩৩৫ জনকে গ্রেফতার করে। গত মঙ্গলবার এদের মধ্যে দ্রুত বিচারসহ চার মামলায় ১৮৩ জনকে ১৯ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। বাকিদের ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয়।
রমনা থানার ওসি রফিকুল ইসলাম জানান, থানায় একসঙ্গে ১৯দিন রিমান্ডপ্রাপ্ত বিপুলসংখ্যক ব্যক্তির স্থান সঙ্কুলান না হওয়ায় মঙ্গলবার তাদের কারাগারে পাঠানো হয়। এসব নেতাকর্মীকে কয়েকটি গ্রুপে ভাগ করা হয়েছে। এক গ্রুপকে জিজ্ঞাসাবাদ করা শেষ হলে অন্য গ্রুপকে রিমান্ডে আনা হবে। বুধবার বিকাল থেকেই প্রথম গ্রুপের ৭১ জনকে রমনা থানায় পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদ করছে।
পল্টন থানার ওসি শহিদুল হক জানান, পল্টন ও রমনা থানার মামলায় রিমান্ড মঞ্জুর হওয়া আসামিরা একই ব্যক্তি। এজন্য রমনা থানায় জিজ্ঞাসাবাদ শেষ হলে তাদের পল্টন থানায় আনা হবে। হরতালসহ রাজনৈতিক কর্মসূচিতে ব্যস্ত থাকায় রিমান্ড মঞ্জুর হওয়া জামায়াতের নেতাকর্মীদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় আনা সম্ভব হয়নি। শুক্রবার তাদের প্রথম গ্রুপকে আনা হবে। পুলিশ সূত্রে জানা যায়, রিমান্ডে আনা জামায়াতের নেতাকর্মীদের রমনা থানার পাশাপাশি দফায় দফায় ডিবি অফিসে নিয়েও জিজ্ঞাসাবাদ চালানো হচ্ছে। এছাড়া ডিবির জিজ্ঞাসাবাদের সময় তাদের কাছ থেকে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি আদায়ের চেষ্টা করা হচ্ছে বলে জানা গেছে।
এদিকে ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনায় ইন্ধন দেয়ার অভিযোগে দায়ের করা মামলায় দৈনিক সংগ্রামের সম্পাদক আবুল আসাদকে সোমবার রাতেই আটক করে রমনা থানা হাজতের ছোট কক্ষে গাদাগাদি করে প্রায় ৪০জনের সঙ্গে রাখা হয়। পরে তাকে থানা থেকে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। পরদিন দুপুর ২টায় আদালতে নেয়ার আগ পর্যন্ত প্রায় ১০ ঘণ্টা তাকে একটি কক্ষে দাঁড় করিয়ে রাখা হয়েছিল। এর পর বিকালে আদালত রিমান্ডের আদেশের পর তাকে কারাগারে না থানায় রাখা হয়েছে, তা তার পরিবারের সদস্যরা অনেক চেষ্টা করেও জানতে পারেননি। পারিবারিক সূত্র জানায়, সম্পাদক আবুল আসাদ বিভিন্ন রোগে ভুগছেন। কয়েক দিন ধরে তিনি ওষুধ সেবনও করতে পারছেন না। এতে তিনি মারাত্মকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়তে পারেন বলে তারা আশঙ্কা করছেন। গতকাল সকালে কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে আবুল আসাদকে গোয়েন্দারা ডিবি কার্যালয়ে নিয়ে দফায় দফায় জিজ্ঞাসাবাদ অব্যাহত রেখেছে। প্রথম দিনে তাকে সোমবারের সংঘর্ষ ঘটনায় সংশ্লিষ্টতা বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে তিনি তা অস্বীকার করেন বলে তদন্ত সংশ্লিষ্টরা জানান। তিনি বার বার বলছেন, জামায়াত পুলিশের তাত্ক্ষণিক সময়ে সংঘটিত ঘটনার বিষয়ে তিনি কিছুই জানেন না। তিনি বলেন, আমি কোনো রাজনৈতিক দলের নেতা নই। তিনি একটি পত্রিকার সম্পাদক। পত্রিকা সম্পাদনা ও লেখালেখির মাধ্যমে দিনের বেশিরভাগ সময় ব্যয় করেন। কোনো নাশকতামূলক কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার বিষয়টি অমূলক বলে তিনি গোয়েন্দা কর্মকর্তাদের জিজ্ঞাসাবাদের জবাবে জানিয়েছেন।

Strike in Bangladesh for reduce rates of Fuel, Gas, and Essential items for the Peoples...পিকেটিং ছাড়াই সফল হরতাল : বোমা ফোটেনি গাড়ি জ্বলেনি


রাজপথে পুলিশ ও সরকারি দলের ব্যাপক মহড়া, গ্রেফতার-নির্যাতন, বিএনপিসহ বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলোর কার্যালয় অবরুদ্ধ রাখা এবং হরতাল আহ্বানকারীদের ঝটিকা মিছিলের মধ্য দিয়ে গতকাল দেশব্যাপী পালিত হলো ১১ ঘণ্টার হরতাল। কোনো পিকেটিং ছাড়াই দেশব্যাপী স্বতঃস্ফূর্ত হরতাল পালিত হয়। এবারের হরতালে বোমা বিস্ফোরণ ও যানবাহনে আগুন দেয়ার ঘটনা ঘটেনি। ঢাকার ফাঁকা রাস্তায় পুলিশি প্রহরায় মিছিল করে আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা। তবে হরতাল সমর্থকরা মিছিল বের করলেই তাতে হামলা চালিয়ে ছত্রভঙ্গ করে দেয় পুলিশ। অলিগলি ও বাসাবাড়িতে খুঁজে খুঁজে গ্রেফতার করা হয় হরতাল সমর্থকদের। সারাদেশে পাঁচ শতাধিক বিরোধীদলীয় নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করা হয়। পুলিশ ও সরকারি দলের হামলায় চার শতাধিক হরতাল সমর্থক আহত হন। রাস্তায় আদালত বসিয়ে অর্ধশতাধিক ব্যক্তিকে দণ্ড দেয়া হয়। সরকারি দলের সন্ত্রাসীদের হামলায় বরিশাল উত্তর জেলা বিএনপি নেতা গৌরনদী উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি ফরিদ উদ্দিন জমাদ্দারকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। যশোরে যুবলীগ ও ছাত্রলীগ ক্যাডারদের হামলায় পৌর মেয়র মারুফুল ইসলাম গুরুতর আহত হয়েছেন। যশোর পৌর মেয়রের ওপর হামলার প্রতিবাদে জেলা বিএনপি শনিবার যশোর জেলায় অর্ধদিবস হরতাল আহ্বান করেছে।
গতকালের হরতালে দূরপাল্লার কোনো বাস ছাড়েনি। রাজধানীর শপিংমল, স্কুল-কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় ছিল বন্ধ। সদরঘাট থেকে ছোট ছোট কিছু লঞ্চ ছাড়লেও তাতে যাত্রীসংখ্যা ছিল কম।
রাজধানীতে হাতেগোনা কিছু বিআরটিসি বাস চলতে দেখা গেছে। সরকারি অফিস খোলা থাকায় কর্মকর্তা-কর্মচারীদের যাতায়াতে চরম ভোগান্তির সৃষ্টি হয়। চট্টগ্রাম, রাজশাহী, বরিশাল, খুলনা, যশোরসহ বেশকিছু স্থানে হরতালের সমর্থনে বের হওয়া মিছিলে পুলিশ ও আওয়ামী লীগ ক্যাডাররা হামলা চালায়।
এদিকে হরতাল ঠেকাতে পুলিশ ও র্যাবের জঙ্গি টহলের পাশাপাশি সরকারি দলের নেতাকর্মীরা রাজপথে বিক্ষোভ মিছিল করেছেন। এ সরকারের আমলে হরতালে রাজধানীতে সরকারি দলের সবচেয়ে বড় শোডাউন হয়েছে গতকাল। ছাত্রলীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে লাঠি হাতে ‘শান্তি মিছিল’ বের করে।
প্রসঙ্গত, জ্বালানি তেল ও গ্যাসের দাম বাড়ানোর প্রতিবাদে বিএনপি নেতৃত্বাধীন জামায়াতসহ চারদলীয় জোট ও সমমনা দলগুলো গতকাল দেশব্যাপী ১১ ঘণ্টার হরতাল পালন করে। চারদলীয় জোটের শরিক বিজেপি, ইসলামী ঐক্যজোট ও খেলাফত মজলিস এবং সমমনা বাংলাদেশ লিবারেল পার্টি (এলডিপি), জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টি (জাগপা), ন্যাশনাল ডেমোক্র্যাটিক পার্টি (এনডিপি), বাংলাদেশ লেবার পার্টি, ন্যাশনাল পিপলস পার্টি (এনপিপি), বাংলাদেশ ন্যাপ, বাংলাদেশ মুসলিম লীগ, নেজামে ইসলাম বাংলাদেশ, ন্যাপ ভাসানী যুগপত্ভাবে এ হরতাল পালন করে।
গতকাল বিকালে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সংবাদ সম্মেলন করে হরতাল সফল করায় দেশবাসীকে অভিনন্দন জানান। তিনি বলেন, হরতালে পুলিশ-র্যাব ও আওয়ামী সন্ত্রাসী বাহিনী দেশব্যাপী বিরোধী দলের ওপর হামলা-গ্রেফতার চালিয়েছে। সরকার দেশকে পুরোপুরি পুলিশি রাষ্ট্রে পরিণত করেছে। ভ্রাম্যমাণ আদালত দিয়ে বিরোধী নেতাকর্মীদের দণ্ড দেয়া হয়েছে। সরকারের এহেন অগণতান্ত্রিক আচরণের প্রতিবাদ ও গ্রেফতারকৃত নেতাকর্মীদের মুক্তি দাবিতে আগামীকাল দেশব্যাপী বিক্ষোভ সমাবেশ করবে বিএনপি। মির্জা আলমগীর বলেন, দেয়ালে পিঠ ঠেকে গেছে, গণমানুষের রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক অধিকার আদায়ে হরতালের ন্যায় কর্মসূচি পালনে জনগণ স্বতঃস্ফূর্তভাবে বিএনপির হরতাল সমর্থন করেছে।
অবরুদ্ধ বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয় : হরতালের পুরো সময় পুলিশ ও র্যাব অবরুদ্ধ করে রাখে বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়। দুই স্তরের পুলিশি ব্যারিকেডে দলের নেতাকর্মীরা কার্যালয়ে ঢুকতে ও বের হতে বাধার সম্মুখীন হন। শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে হাতেগোনা ক’জন নেতাকর্মী কার্যালয়ের ভেতরে প্রবেশ করেন। কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে প্রবেশের চেষ্টা করায় ৩ বিএনপি নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করা হয়। জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকনের সঙ্গে দলীয় কার্যালয়ে ঢুকতে চাইলে অ্যাডভোকেট ফারুক আহমেদ ও অ্যাডভোকেট জুলফিকার হোসেনকে পুলিশ গ্রেফতার করে। দলীয় কার্যালয়ের আশপাশে অনেক নেতাকর্মীকে ঘোরাফেরা করতে দেখা গেছে। পুলিশি বেষ্টনী ভেদ করে কার্যালয়ে প্রবেশের সুযোগ খুঁজতে দেখা গেছে শতাধিক নেতাকর্মীকে। বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের নেতৃত্বে
অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী কার্যালয়ে অবস্থান করেন। মির্জা ফখরুল সকাল ৮টার দিকে দলীয় কার্যালয়ে আসেন। স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খানও সকালেই দলীয় কার্যালয়ে এসে অবস্থান নেন। এছাড়া বিভিন্ন সময়ে দলীয় কার্যালয়ে আসেন দলের ভাইস চেয়ারম্যান ও মহানগর আহ্বায়ক সাদেক হোসেন খোকা, চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা শামসুজ্জামান দুদু, যুগ্ম মহাসচিব আমান উল্লাহ আমান, ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, রুহুল কবির রিজভী, সাংগঠনিক সম্পাদক এম ইলিয়াস আলীসহ অনেকে।
সংসদ ভবনে এমপিদের মিছিলে পুলিশি বাধা : হরতালের সমর্থনে গতকাল জাতীয় সংসদ প্রাঙ্গণে বিরোধীদলীয় ২০ জন সংসদ সদস্য মিছিল বের করলে দু’শতাধিক পুলিশ, র্যাব ও গোয়েন্দা সদস্য তাদের তিন দফায় বাধা দেয়। এ সময় পুলিশের সঙ্গে সংসদ সদস্যদের বাকবিতণ্ডা হয়। একপর্যায়ে পুলিশ সদস্যরা তাদেরকে চারদিক থেকে অবরুদ্ধ করে ফেলে।
সকাল ৮টা থেকে বিরোধীদলীয় সংসদ সদস্যরা সংসদ ভবনের দক্ষিণ প্লাজার পূর্ব টানেলে অবস্থান নেন। বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য এম কে আনোয়ারের নেতৃত্বে সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, মো. বরকত উল্লাহ বুলু, মোজাহার আলী প্রধান, গোলাম মোস্তফা, এম মোস্তফা আলী মুকুল, মেজবাহ উদ্দিন ফরহাদ, শেখ সুজাত মিয়া, লায়ন হারুনুর রশিদ, জয়নুল আবদিন ফারুক, নাজিমউদ্দিন আহমেদ, আবুল খায়ের ভূঁইয়া, আশরাফ উদ্দিন নিজান, মোস্তফা কামাল পাশা, শাম্মী আক্তার, নিলুফার চৌধুরী মণি, রেহানা আক্তার রানু, সৈয়দা আফিয়া আশরাফি পাপিয়াসহ ২০ জন সকাল ৮টা ৫০ মিনিটে একটি মিছিল বের করে দক্ষিণ দিকের রাস্তায় যাওয়া শুরু করলে পুলিশ ব্যারিকেড দেয়। পরে সেখানে পুলিশের সঙ্গে বাকবিতণ্ডা হয়। এ সময় সংসদ সদস্যরা সংসদ এলাকায় পুলিশ কেন ঢুকেছে, তার কারণ জানতে চাইলে কোনো জবাব দিতে পারেননি পুলিশ কর্মকর্তারা। পাশাপাশি পুলিশি ঘেরাওয়ের মাঝে তারা সরকারবিরোধী নানা স্লোগান দেন। পরে তারা দিক পরিবর্তন করে মিছিল শুরু করলে আবারও বাধা দেয় পুলিশ। এ সময় পুলিশের কর্মকর্তাদের নির্দেশে বিরোধীদলীয় সংসদ সদস্যদের ঘিরে ফেলা হয়। সেখানে রাস্তায় বসে এর প্রতিবাদ জানান তারা।
তাত্ক্ষণিক সমাবেশে বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য এম কে আনোয়ার বলেন, আওয়ামী লীগ গণতন্ত্র ও সার্বভৌমত্বকে বিশ্বাস করে না। তারা দুঃশাসন ও অপশাসনকে পছন্দ করে। বিএনপি সরকারের রেখে আসা ১৭ টাকার চাল বর্তমানে ৪০ টাকা, ৪৮ টাকার সয়াবিন তেল ১২০-১৩০ টাকা। এভাবে প্রতিটি পণ্যের দাম দু’তিনগুণ বেড়েছে। অথচ আওয়ামী লীগের মন্ত্রীরা জঘন্য মিথ্যাচার করে বলছেন জিনিসপত্রের দাম বাড়েনি। দেশে নীরব দুর্ভিক্ষ চলছে। এ অবস্থায় সরকার দফায় দফায় তেল ও গ্যাসের দাম বাড়িয়েছে। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ যেনতেনভাবে আবারও ক্ষমতায় যেতে চায়। তাই তারা ভারতকে সবকিছু উজাড় করে দিচ্ছে। কিন্তু দাতাদের খুশি করে ক্ষমতায় যাওয়া যাবে না। এজন্য জনগণের সমর্থন লাগবে। পুলিশ সদস্যদের পেশাদারিত্ব বজায় রাখার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, জনগণের স্বার্থের পক্ষে দাঁড়ান, অন্যথায় আপনাদের জনগণের আদালতে দাঁড়াতে হবে।
হরতালের পক্ষে এই প্রথম ঢাবিতে ছাত্রদলের মিছিল : দেশের বিভিন্নস্থানে হরতালের সমর্থনে বিক্ষোভ-সমাবেশ কর্মসূচি পালন করেছে ছাত্রদল। কর্মসূচি পালনকালে পুলিশ হরতাল সমর্থকদের বাধা এবং তাদের ওপর হামলা ও লাঠিচার্জ করেছে। আটক করেছে অর্ধশতাধিক। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে এ সরকারের সময়ে আহূত হরতালে গতকালই প্রথম মিছিল করে ছাত্রদল।
আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সতর্কাবস্থা এবং ছাত্রলীগের পাহারা উপেক্ষা করে ভোর পৌনে সাতটায় ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল করেছে ছাত্রদল। ক্যাম্পাসের শহীদ মিনারের সামনে থেকে ‘হরতাল, হরতাল’ স্লোগানে মিছিল বের হয়। ছাত্রদলের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সাবেক সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম ফিরোজের নেতৃত্বে ৩৫/৪০ জন নেতাকর্মীর মিছিলটি বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় খেলার মাঠ সড়ক হয়ে মেডিকেল কলেজের সামনে গিয়ে শেষ হয়।
এদিকে সকাল নয়টার দিকে ছাত্রদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি শহিদুল ইসলাম বাবুলের নেতৃত্বে ক্যাম্পাসের পাশেই জিয়া শিশুপার্কের সামনে থেকে আরেকটি মিছিল বের করে ছাত্রদল। মিছিল শুরু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে পুলিশ তাদের ধাওয়া দিলে তা ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়। মিছিল থেকে ছাত্রদল কর্মীকে আটক করে পুলিশ।
ছাত্রদল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা নগরীর শাহবাগ ও শিশুপার্ক এলাকায় সকাল নয়টায় বিক্ষোভ করে। এসময় পুলিশ মারমুখী লাঠিচার্জ করে মিছিলটি ছত্রভঙ্গ করে দেয়। কেন্দ্রীয় সিনিয়র সহ-সভাপতি শহিদুল ইসলাম বাবুলের নেতৃত্বে বিক্ষোভে কেন্দ্রীয় নেতা বজলুল করিম চৌধুরী আবেদ, আবু বকর ছিদ্দিক, যুগ্ম সম্পাদক আমিরুজ্জামান খান শিমুল, শহিদুল্লাহ ইমরান, ঢাবি আহ্বায়ক আবদুল মতিন, সিনিয়র যুগ্ম-আহ্বায়ক ওবায়দুল হক নাসিরসহ শতাধিক নেতাকর্মী অংশ নেন।
পুলিশের নির্যাতনে ছাত্রদল নেতা শহিদুল ইসলাম বাবুল, যু্গ্ম-সম্পাদক আমিরুজ্জামান খান শিমুল, শহিদুল্লাহ ইমরান, ঢাবি সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক ওবায়দুল হক নাসির, মহিদুল হাসান হিরুসহ প্রায় ১০ নেতাকর্মী আহত হয়েছে।
এদিকে ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কমিটির এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা কলেজ, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ, বরিশাল, কুমিল্লা, পিরোজপুর, খাগড়াছড়ি, মাগুরা, রাঙামাটি, লক্ষ্মীপুর, রাজশাহী, দিনাজপুর, খুলনা, শেরপুর, মানিকগঞ্জ ও বরগুনার আমতলীতে হরতাল কর্মসূচি পালন করেছে ছাত্রদল। এসব কর্মসূচি চলাকালে সংগঠনটির ৫৭ নেতাকর্মীকে আটক করা হয় বলে বিবৃতিতে বলা হয়।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে স্বতঃস্ফূর্ত হরতাল পালিত হয়েছে। কোনো বিভাগে ক্লাস অনুষ্ঠিত হয়নি। পরিবহন চলেনি, ক্যাম্পাস ছিল ফাঁকা। কর্তৃপক্ষ জোরপূর্বক পরীক্ষা নেয়ার চেষ্টা চালালেও তার পাল্টা জবাবে দু’টি বিভাগের শিক্ষার্থীরা পরীক্ষা বর্জন করেছে। অন্যদিকে হরতালের বিপক্ষে বিক্ষোভ ও সমাবেশ করেছে ছাত্রলীগ। প্রতিপক্ষের কর্মসূচি প্রতিহত করতে ক্যাম্পাসে পালাক্রমে মহড়া ও পাহারা বসায় সংগঠনটি।
সকাল নয়টায় ওই দু’টি বিভাগের পরীক্ষা শুরু হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু সরেজমিনে পরীক্ষার হলে গিয়ে দেখা যায়, কোনো শিক্ষার্থীই হলে উপস্থিত হননি। একমাত্র পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক ও একজন শিক্ষক হলে বসে আছেন পরীক্ষা নেয়ার জন্য। ওই শিক্ষকও অবশ্য ক্ষোভ প্রকাশ করে কর্তৃপক্ষকে উদ্দেশ করে বলেন, আপনারা বাধ্য করছেন আমাদেরকে। পরীক্ষা স্থগিতের ব্যাপারে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মো. বাহালুল হক চৌধুরী আমার দেশকে বলেন, শিক্ষার্থীরা উপস্থিত না হওয়ায় দর্শন ও নৃ-বিজ্ঞান বিভাগের পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে। পরবর্তীতে এসব পরীক্ষা নেয়া হবে।
মহাখালীতে সারাদিন অবরুদ্ধ কেন্দ্রীয় নেতারা : মহাখালী এলাকায় বিরোধীদলীয় নেতাকর্মীরা হরতালের সমর্থনে মিছিল বের করার চেষ্টা করলে পুলিশি বাধার কারণে তা পণ্ড হয়ে যায়। এমনকি তাদের একসঙ্গে জড়ো হতেও দেয়নি। পক্ষান্তরে ছাত্রলীগ ও যুবলীগের নেতাকর্মীদের পুলিশি পাহারায় হরতালবিরোধী মিছিল ও মোটরসাইকেল মহড়া দিতে দেখা গেছে। এদিকে হরতালে মহাখালী, গুলশান, বনানীসহ আশপাশের অভিজাত এলাকার সব দোকানপাট বন্ধ ছিল। রাস্তায় বিআরটিসিসহ কিছুসংখ্যক গাড়ি, টেম্পো ও লেগুনা চলতে দেখা গেছে। গতকাল সকালে হরতালের সমর্থনে মহাখালী এলাকায় বিএনপির সহ-সভাপতি সেলিমা রহমানের নেতৃত্বে একটি মিছিল বের করতে চাইলে পুলিশের বাধার মুখে তা পণ্ড হয়ে যায়। সকাল ১১টার দিকে পুলিশ সদস্যরা তাদের গ্রেফতারের চেষ্টা চালালে সেলিমা রহমান, সাবেক প্রতিমন্ত্রী সালাউদ্দিন আহমেদ, সাবেক সংসদ সদস্য সুলতানা আহমেদ, জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের সভাপতি নূরে আরা সাফা, প্রচার সম্পাদক আয়েশা সিদ্দিকা মনিসহ কয়েকজন নারী নেতাকর্মী প্রথমে একটি বেসরকারি ব্যাংকের এটিএম বুথে পরে একটি মোবাইল কোম্পানির কাস্টমার কেয়ার সেন্টারে আশ্রয় নেন। সেখানে গুলশান থানার এসআই শেখ সোহেল রানাসহ বেশ কিছু নারী পুলিশ ওই টাওয়ার ঘেরাও করে রাখে। ওই সময় শেখ সোহেল রানা সাংবাদিকদের বলেন, তারা বের হলেই গ্রেফতার করা হবে। পরে সারাদিন অবরুদ্ধ থাকার পর বিকাল ৬টার দিকে ঢাকা সিটি করপোরেশনের মেয়র সাদেক হোসেন খোকা তাদের উদ্ধার করে নিয়ে আসেন।
ঢাকা মহানগরী : ঢাকা মহানগরের বিভিন্নস্থানে হরতাল সমর্থক বিভিন্ন ইউনিটের বিএনপি নেতাকর্মীরা বিক্ষোভ মিছিল ও পিকেটিং করেছে। এসব কর্মসূচিতে পুলিশ লাঠিচার্জ ও হামলা করেছে। আটক করেছে অনেক নেতাকর্মীকে।
তেজগাঁও থানা বিএনপি কারওয়ান বাজার এলাকায় মিছিল বের করে। দলের কেন্দ্রীয় নেতা সাহাব উদ্দিনের নেতৃত্বে তারা মিছিল বের করলে পুলিশ লাঠিচার্জ করে ছত্রভঙ্গ করে দেয়। নগরীর পল্লবী থানা বিএনপি মিরপুর ১০ নম্বর এলাকার গোলচত্বরে মিছিল করেছে। এতে পুলিশ লাঠিচার্জ করে কয়েকজন নেতাকর্মীকে আটক করে। খিলগাঁও থানা বিএনপি গোড়ান টেম্পোস্ট্যান্ড থেকে মিছিল বের করে। এতে পুলিশ লাঠিচার্জ করলে বেশ ক’জন আহত হয়। সূত্রাপুর থানা বিএনপি টিপু সুলতান রোডে মিছিল বের করলে তাতে লাঠিচার্জ করে পুলিশ। আদাবর বিএনপি শেখেরটেকে মিছিল বের করলে পুলিশের বাধায় তা ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়। বাড্ডা থানা বিএনপি উত্তর বাড্ডা থেকে মিছিল বের করলে লাঠিচার্জ করে পুলিশ। শেরেবাংলানগর থানা বিএনপি মিছিল বের করলে পুলিশের বাধায় তা ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়।
সকালে খিলগাঁও এবং শাহজাহানপুর এলাকায় মিছিল বের করে খিলগাঁও থানা বিএনপির সভাপতি ইউনুছ মৃধা, তাঁতী দল কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম মিন্টু, যুবদল কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সম্পাদক ইউসুফ বিন জলিল কালু, খিলগাঁও থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট ফারুক-উল ইসলাম, যুবদলের সভাপতি জামিলুর রহমান নয়ন, বিএনপি নেতা হাজী মোয়াজ্জেম হোসেন খান, পনু হাজী, হুমায়ুন কবির, নজরুল ইসলাম প্রমুখ। মিছিলটি র্যাব ও পুলিশ ধাওয়া করে ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এদিকে সকাল ৭টা হতে মির্জা আব্বাসের বাড়ি শতাধিক পুলিশ ও র্যাব ঘেরাও করে রাখে।
শাহজাহানপুর শিল্পী হোটেলের পাশে মতিঝিল থানা বিএনপি ও যুবদল মিছিল বের করে। মিছিলে নেতৃত্ব দেন যুবদল ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম মজনু, মতিঝিল থানা বিএনপি সভাপতি কমিশনার সাজ্জাদ জহির, ছাত্রদল দক্ষিণ-এর সভাপতি হাবিবুর রশিদ হাবিব, ছাতনেতা মিজানুর রহমান সোহেল, স্বেচ্ছাসেবক দলের রফিক হাওলাদার প্রমুখ। মালিবাগ ও শান্তিনগর এলাকায় মিছিল বের করার উদ্যোগ নিলেও র্যাব-পুলিশের পাহারায় দিনভর একটি বাসায় অবরুদ্ধ ছিলেন বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, কেন্দ্রীয় নেতা আবদুস সালাম আজাদ, রফিক শিকদার, কাজী আসাদসহ শতাধিক নেতাকর্মী। ধানমন্ডিতে বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা ও ঢাকা জেলা সভাপতি আবদুল মান্নানের বাসার সামনে সকাল থেকেই র্যাব-পুলিশের গাড়ি অবস্থান নেয়। কোনো নেতাকর্মী বাসা থেকে বের হতে কিংবা ঢুকতে পারেনি।
এদিকে বিএনপি ঢাকা মহানগরের আহ্বায়ক ও ঢাকা সিটি মেয়র সাদেক হোসেন খোকা ও সদস্যসচিব আব্দুস সালাম এক বিবৃতিতে হরতাল সফল করায় মহানগর নেতাকর্মীদের অভিনন্দন জানিয়েছেন। বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ হরতাল চলাকালে নেতাকর্মীদের ওপর পুলিশের হামলা ও আটকের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে অবিলম্বে আটক নেতাকর্মীদের নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করেন।
মিরপুর এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, দোকানপাট বন্ধ ছিল। কয়েকটি লোকাল বাস চলাচল করতে দেখা গেছে। তবে যাত্রী সংখ্যা ছিল কম। সকাল ৬টার দিকে মিরপুর ও পল্লবীতে জামায়াতে ইসলামী হরতাল সমর্থনে ঝটিকা দুটি মিছিল বের করে। তবে পুলিশের কর্মকর্তারা দাবি করেছেন, হরতাল সমর্থনে মিরপুরে কোনো মিছিল হয়নি। পুলিশের মিরপুর বিভাগের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান জানান, হরতালের পক্ষে কোনো পিকেটিং বা মিছিল হয়নি। তবে হরতালের বিপক্ষে মিরপুর-১, মিরপুর-১০, শেওড়াপাড়া, কাজীপাড়া ও পল্লবীতে ছোটো ছোটো মিছিল হয়েছে। এ এলাকায় কাউকে গ্রেফতার করা হয়নি বলেও জানান তিনি। এদিকে মিরপুর এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, বিভিন্ন পয়েন্টে পুলিশ ও আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা সহাবস্থান করছেন। মিরপুরের দারুসসালাম টাওয়ারে দায়িত্বরত পুলিশ কর্মকর্তা মোনায়েম জানান, শান্তিপূর্ণভাবে হরতাল পালন হচ্ছে। হরতালের পক্ষে-বিপক্ষে মিছিল-মিটিং বা পিকেটিং হয়নি।
রাজধানীর ৭ পয়েন্টে জামায়াতের মিছিল : ব্যাপক পুলিশি তত্পরতার মধ্যেও গতকাল হরতালের সমর্থনে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী। রাজধানীর ৭টি পয়েন্টে মিছিল ও সমাবেশ করে ঢাকা মহানগরী জামায়াত। দলের বিভিন্ন থানা শাখার যৌথ উদ্যোগে রাজধানীর মতিঝিল, রামপুরা, মিরপুর, যাত্রাবাড়ী, মহাখালী, খিলগাঁও এবং বংশালে এসব ঝটিকা মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। এর মধ্যে মতিঝিল, রামপুরাসহ বিভিন্ন স্থানে মিছিলে হামলা চালায় পুলিশ। এ সময় মতিঝিল থেকে শিবিরের ঢাকা মহানগরী (পূর্ব) সভাপতি ইয়াছিন আরাফাতসহ জামায়াত-শিবিরের ২০ জনকে আটক করা হয়। এছাড়া সারাদেশে দলের দুই শতাধিক নেতাকর্মীকে আটক করা হয়েছে বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন।
এদিকে মিছিলে পুলিশি হামলা ও গ্রেফতারের তীব্র নিন্দা এবং প্রতিবাদ জানিয়েছেন জামায়াতের ঢাকা মহানগর আমির রফিকুল ইসলাম খান ও হামিদুর রহমান আযাদ এমপি। এক বিবৃতিতে তারা অবিলম্বে আটকদের মুক্তির দাবি করেন।
জামায়াতে ইসলামী রামপুরা ও বাড্ডা থানার উদ্যোগে সকাল সাড়ে ৮টায় রামপুরা টিভি সেন্টার থেকে হরতালের সমর্থনে একটি মিছিল বের হয়। কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও দলের ঢাকা মহানগরী সহকারী সেক্রেটারি নুরুল ইসলাম বুলবুলের নের্তৃত্বে শুরু হওয়া মিছিলটির শেষ মুহুর্তে পুলিশ হামলা চালায় এবং ৪ জনকে আটক করে।
মিছিলের আগে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশে নুরুল ইসলাম বুলবুল বলেন, সরকার বিরোধী দলের কর্মসূচিতে পুলিশ বাহিনীকে লেলিয়ে দেয়ার সঙ্গে সঙ্গে আওয়ামী ক্যাডারদের মাঠে নামিয়ে দিয়েছে; যা রাজনৈতিক প্রতিহিংসার চূড়ান্ত দলিল।
মতিঝিল ও পল্টন থানা জামায়াতের উদ্যোগে সকাল ১০টায় মতিঝিল এলাকায় একটি মিছিল বের করে। মহানগরী নেতা ফরিদ হোসাইন, পল্টন থানা আমির মোকাররম হোসাইন খান ও মতিঝিল থানা সেক্রেটারি কামাল হোসাইনের নের্তৃত্বে মিছিলটি ক্রীড়া ভবন এলাকা থেকে শুরু হয়ে শাপলা চত্বরের দিকে যাওয়ার একপর্যায়ে জনতা ব্যাংক করপোরেট অফিসের কাছে পুলিশ পেছন থেকে অতর্কিত লাঠিচার্জ করে মিছিলটিকে ছত্রভঙ্গ করার চেষ্টা করে। পুলিশি বাধা উপেক্ষা করে মিছিলটি কিছু দূর এগিয়ে সংক্ষিপ্ত সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়। এ সময় শিবির নেতা ইয়াছিন আরাফাতসহ দুইজনকে আটক করা হয়। একজনকে পুলিশ বুট দিয়ে বুকের ওপর চেপে ধরে নির্যাতন করে।
যাত্রাবাড়ী থানা জামায়াতের উদ্যোগে সকাল ৬টায় একটি মিছিল ধলপুর থেকে শুরু হয়ে সায়েদাবাদ ব্রিজের কাছে গিয়ে শেষ হয়। এতে নের্তৃত্ব দেন থানা সেক্রেটারি মাহমুদ হোসেন। খিলগাঁও ও সবুজ থানার উদ্যোগে সকাল ৮টায় একটি মিছিল শান্তিপুর থেকে শুরু হয়ে তিলপাপাড়া গিয়ে শেষ হয়। এতে নের্তৃত্ব দেন সগির বিন সাঈদ ও সামসুর রহমান প্রমুখ। পল্লবী ও কাফরুল থানার উদ্যোগে সকাল ৬টায় মিরপুর ১০ নম্বর এলাকায় একটি মিছিল বের হয়। এতে নেতৃত্ব দেন পল্লবী থানা আমির আবদুস সালাম, কাফরুল থানা আমির লস্কর মোহাম্মদ তাসলীম ও সেক্রেটারি আনোয়ারুল করীম।
বংশাল ও কোতোয়ালি থানার উদ্যোগে সকাল ৬টায় একটি মিছিল আগাসাদেক রোড থেকে শুরু হয়ে বংশাল গিয়ে শেষ হয়। এতে নেতৃত্ব দেন কোতোয়ালি থানা আমির আবদুছ ছবুর মাতুব্বর, বংশাল সেক্রেটারি এসএম আহসান উল্লাহ প্রমুখ। এছাড়া গুলশান-বিমানবন্দর ও দক্ষিণখান থানার উদ্যোগে সকাল ৬টায় হরতালের সমর্থনে একটি মিছিল বের হয়। এতে নেতৃত্ব দেন গুলশান থানা আমির এআরএম মনির, দক্ষিণখান থানা আমির আতিকুর রহমান। মহাখালী ওয়ারলেস থেকে মিছিলটি শুরু হয়ে হাজারীবাড়ী হয়ে মহাখালী বাজার গিয়ে শেষ হয়।
সমমনাদের হরতাল পালন : বিএনপির ডাকা হরতালে সমমনা দলগুলো সমর্থন দিলেও বৃহস্পতিবার সকাল ৬টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত রাজধানীর কোথাও ওইসব দলের নেতাকে পিকেটিং করতে দেখা যায়নি। তবে জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টি জাগপা ও বাংলাদেশ লেবার পার্টি মিছিল করার প্রস্তুতি নিয়েছিল। জাগপা সাধারণ সম্পাদক খন্দকার লুত্ফর রহমানের নেতৃত্বে সকাল ১১টায় পুরানা পল্টন মোড়ে একটি মিছিলের চেষ্টা করলে পুলিশ তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। অন্যদিকে দুপুর সোয়া দুইটায় শাপলা চত্বর জনতা ব্যাংকের সামনে লেবার পার্টির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ডা. মোস্তাফিজুর রহমান ইরান ও মহাসচিব হামদুল্লাহ আল মেহেদীর নেতৃত্বে ১০-১৫ দলের একটি দল মিছিল করতে চাইলে পুলিশি অ্যাকশনে পালিয়ে যায়।
হরতালে ফাঁকা রাজপথ মুখর ছিল আ’লীগের মিছিলে : পুলিশি বাধার মুখে গতকালের হরতালে বিএনপি নেতৃত্বাধীন চারদলীয় জোট ঢাকার রাস্তায় দাঁড়াতে না পারলেও ফাঁকা রাজপথ মুখর ছিল শাসক দল আওয়ামী লীগের মিছিলে। হরতাল ঠেকাতে তারা পুলিশের পাশাপাশি রাজপথে অবস্থান নেয়। আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা পুলিশি নিরাপত্তায় হরতালবিরোধী মিছিল-সমাবেশ নিয়ে ঢাকার বিভিন্ন পয়েন্ট দিনভর দখলে রাখে। দলের বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ের কেন্দ্রীয় কার্যালয়সহ রাজধানীর বিভিন্ন পয়েন্টে হরতালবিরোধী মিছিল-সমাবেশ করে। এছাড়া ছাত্রলীগ, যুবলীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতাকর্মীরা বিভিন্নম্ন স্থানে মোটরসাইকেল শোভাযত্রা করেছে।
আওয়ামী লীগের হরতালবিরোধী মিছিলের মূল কেন্দ্র ছিল মূলত বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ের কার্যালয়কে ঘিরে। এখানে হয়েছিল তাদের সবচেয়ে বড় জমায়েত। সকাল থেকে এখানে রাজধানীর বিভিন্ন থানা ও ওয়ার্ড থেকে ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগসহ সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা জড়ো হতে থাকেন। নেতাকর্মীদের পদচারণায় কেন্দ্রীয় কার্যালয় মুখরিত হয়ে ওঠে। শত শত নেতাকর্মী কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নেয় এবং হরতালবিরোধী বিভিন্ন স্লোগান দিতে থাকে। কখনও কখনও প্রেস ক্লাব ও এর আশপাশের সড়কগুলোতে মিছিল করে।
ছাত্রলীগের হরতালবিরোধী কর্মসূচি : হরতাল ঠেকাতে কঠোর অবস্থানে ছিল ছাত্রলীগ। দেশের বিভিন্ন স্থানে হরতালের বিপক্ষে মিছিল-সমাবেশ করেছে ছাত্রলীগ। দিয়েছে সশস্ত্র পাহারা ও মহাড়া। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা মহানগর উত্তর, ঢাকা মহানগর দক্ষিণসহ বিভিন্ন শহর ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে মিছিল ও সমাবেশ করে সংগঠনটি। ভোর থেকে সংগঠনটির নেতাকর্মীরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পাহারা ও মহাড়া দেয়। বেলা ১১টায় চারুকলার সামনে হরতালবিরোধী সমাবেশ করে সংগঠনটির ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা। ঢাবি সভাপতি মেহেদী হাসানের সভাপতিত্বে এতে কেন্দ্রীয় সভাপতি বদিউজ্জামান সোহাগ ও ঢাবি সাধারণ সম্পাদক ওমর শরীফ বক্তৃতা করেন। এছাড়া ঢাকা মহানগর দক্ষিণের উদ্যোগে ধানমন্ডি ও উত্তরায় বিক্ষোভ ও সমাবেশ করা হয়। বেলা ১১টায় ধানমন্ডি ও সায়েন্স ল্যাব এলাকায় দক্ষিণের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক এতে নেতৃত্ব দেন।
হরতাল চলাকালে ছাত্রলীগ জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি) ও কবি নজরুল কলেজে হরতালবিরোধী মিছিল করে। জবিতে সকাল ১০টায় বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের বের করা মিছিলটি ক্যাম্পাস থেকে শুরু হয়ে জনসন রোড, রায়সা বাজার মোড় এবং পুরান ঢাকার বিভিন্ন এলাকা প্রদক্ষিণ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকে আয়োজিত সমাবেশে মিলিত হয়। দুপুর ১২টায় কবি নজরুল কলেজ ছাত্রলীগ ক্যাম্পাসে হরতালবিরোধী মিছিল বের করে। দুপুরে তিতুমীর কলেজ ছাত্রলীগ কলেজের আশপাশের রাস্তায় মিছিল করে।
দূরপাল্লার বাস চলেনি : হরতাল চলাকালে দূরপাল্লার কোনো বাস ছেড়ে যায়নি। গাবতলী, সায়েদাবাদ ও মহাখালী বাস টার্মিনালে গিয়ে দেখা গেছে, সারিতে সারিতে বাস দাঁড়িয়ে রয়েছে। পরিবহন কর্মীরা জানান, বিকাল ৫টায় হরতাল শেষ হওয়ার পরই বিভিন্ন গন্তব্যে বাস ছেড়ে যাবে। এদিকে রাজধানীতে সব ধরনের কাউন্টার সার্ভিস বাস চলাচল বন্ধ ছিল। তবে বিআরটিসিসহ কিছু লোকাল বাস চলাচল করতে দেখা গেছে। এসব বাসে যাত্রীর সংখ্যা ছিল খুবই কম। এ সুযোগে রাজধানীর ভিআইপিসহ বিভিন্ন সড়কে রিকশা ও ভ্যান চলাচল করতে দেখা গেছে। গাড়ি না পেয়ে যাত্রীরা বিকল্প হিসেবে রিকশা ও ভ্যানে চড়ে গন্তব্যে যেতে দেখা গেছে। এদিকে লঞ্চ চলাচলের পরিমাণ কম ছিল। গতকাল সকাল থেকে সদরঘাট ছিল যাত্রীশূন্য। একই অবস্থা দেখা গেছে ট্রেনের ক্ষেত্রে। সরকারি এ পরিবহন চলাচল করলেও যাত্রীর অভাব ছিল। বেশিরভাগ ট্রেনের আসন ফাঁকা রেখে গন্তব্যের উদ্দেশে ছেড়ে গেছে।
৫ জনকে দণ্ড দেয়ায় ডিএমপি’র সংবাদ বিজ্ঞপ্তি : ডিএমপি’র মিডিয়া সেলের কর্মকর্তা এসএম আশরাফুজ্জামান স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, হরতালে পিকেটিংয়ের দায়ে রাজধানীর বিভিন্ন থানায় পাঁচজনকে দণ্ড দেয়া হয়েছে। রামপুরা থানায় ইউসুফ মজুমদার এবং মতিঝিল থানায় মো. ইয়াছিন ও মো. ইউসুফ আলীকে এক বছর করে বিনাশ্রম কারাদণ্ড, পল্টন থানায় মো. সাহাদাত ও মো. নাছিরকে দুই মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত।

Chairman Sir visiiting to China:Jatiyo Party


17 GM And China’s SAIC Motor Corp Partner On Electric Vehicles


SAIC Motor Corp., Ltd. Chairman Hu Maoyuan and General Motors Co. Chairman and CEO Dan Akerson signed an agreement this week to jointly develop a new electric vehicle architecture in China. The components and vehicle structures will be built in Shanghai, at the companies’ joint venture, The Pan Asia Technical Automotive Center (PATAC). The cars will be sold in China under the Shanghai GM and SAIC brand names.

In addition, the architecture will also be used by both companies to build electric vehicles around the world.

This is the first electric vehicle architecture to be co-developed by GM and SAIC, although the companies are involved in 10 other joint projects in China, with a focus on vehicle and powertrain manufacturing, sales and aftersales, automotive engineering and design, automotive finance and telematics and the sale of used vehicles. They also jointly developed the Sail electric concept car last year, which was designed at PATAC.

Under the new partnership, GM will contribute its knowledge of electric car design and engineering combined with SAIC’s knowledge of the local market in China.

The impact of the new deal will be felt further than China, however, as the terms of the deal allow the companies’ to use the jointly developed technology for their own purposes. By teaming up, they’re able to get more electric cars into the market, and faster than if they went on their own. That means more electric cars will be coming at a critical time when government regulators are pushing for tougher emission and fuel consumption guidelines, both in China and elsewhere.

No additional details or timing of product launches are available at this time.

Agha Khan Development Network





The Aga Khan Development Network (AKDN) is a group of development agencies with mandates that include the environment, health, education, architecture, culture, microfinance, rural development, disaster reduction, the promotion of private-sector enterprise and the revitalisation of historic cities. AKDN agencies conduct their programmes without regard to faith, origin or gender.
What's New

* The Aga Khan Music Initiative and Al Mawred Al Thaqafy Bring Together Arab and Central Asian Musicians at Sixth Remix Music Workshop in Aswan - 18 September 2011 (Press Release)
* AKTC Receives 2011 UNESCO Award for Culture Heritage Conservation - 2 September 2011
* Tajik and Afghan officials Inaugurate Vanj Bridge Built by AKDN as Part of Cross-border Initiatives - 16 August 2011 (Press Release)
* FOCUS Pakistan assists in evacuating victims affected by collapse of Karachi’s Lyari Building - 9 August 2011 (Press Release)
* His Highness the Aga Khan meets with the Secretary General of the East African Community - 29 July 2011

View all

Raising Rural Incomes While Revitalising Local Culture
SPOTLIGHT ON Social Development
Raising Rural Incomes While Revitalising Local Culture

The vast majority of AKF beneficiaries are small producers whose livelihoods depend on income from selling their crops or the products they make. Their incomes are strongly affected by factors such as the level of technical knowledge, physical distance to markets, uneven competition due to national and international trade policies, devastation of war and limits on productivity caused by environmental degradation.

Wednesday, September 21, 2011

Bangladesh Samaztantrik Dal BASAD




Coming Soon: AWID 2011 Global Survey "Where Is The Money For Women's Rights?

Source: AWID

21/09/2011

The time has come to collect up to date information about funding for women’s rights! The AWID strategic initiative Where is the Money for Women’s Rights? has been conducting groundbreaking research since 2005 to understand funding trends and the situation of women’s organizations and movements globally. In order to do this, we prepare a global survey of women’s rights organizations around the world and we need all the participation we can get from women’s organizations and initiatives around the globe to help us develop a comprehensive analysis of funding trends for women’s rights and gender equality. Please help us with collecting this important data by filling out the survey and spreading the word!

Respond to survey, you’ll be entered to win a trip to Turkey to attend AWID’s 2012 international forum, Transforming Economic Power to Advance Women’s Rights and Justice, taking place in Istanbul on April 19-22. Funding includes airfare, hotel accommodation and the conference registration fee.

The survey will be available in Arabic, English, French, Russian and Spanish.

Tuesday, September 20, 2011

New Resources Available through End Violence Against Women International/EVAW International



Full Registration Fee - $495.00

* Register by December 30th and receive a $100 discount.
* Register between December 31st and February 24th and receive a $50 discount.
* No registration discounts on or after February 25th.

Payment must be received or postmarked prior to the cutoff date to receive the discounted rate.
$25 DISCOUNT: For those who attended our conference in Chicago and received a $25.00 discount code for completing our survey, you may register online using your discount code. Select the "Team / Multiple Registrations" option on the registration page to enter your code. This code cannot be used in conjunction with any other discount. If you did not receive your code or have questions please send an e-mail to info@evawintl.org.

TEAM DISCOUNT: A discount is available for teams of 5 or more; the 5th registration is free. Teams must register all 5 registrants using the SAME multi discount code and Team Name in order to receive the 5th free. You MUST request a multi-registration code before entering any registrations.


Join Us the day before our conference for our
Move For The Movement FUN RUN
SUNDAY, APRIL 22, 2012
8:30 AM on the beautiful Silver Strand Beach
CLICK HERE FOR MORE INFORMATION AND TO REGISTER

2012 International Conference on Sexual Assault, Domestic Violence and Stalking
San Diego, CA
April 23 - 25, 2012
View the Conference Agenda
Conference Brochure (PDF)
Registration & Hotel Information
Transportation / Shuttle Information

International Attendee Information
Continuing Education Information
Scholarship Information
Register Online Now

Register by December 30, 2011, and save $100.00 off the full conference fee!

About the Conference
Join fellow law enforcement personnel, prosecutors, victim advocates, judges, parole and probation officers, rape crisis workers, medical personnel, faith community members, educators and others in this two-and-a-half-day conference highlighting promising practices and emerging issues in sexual assault, domestic violence and stalking.

Check back regularly for conference updates. We continually update our website as additional conference information becomes available.
When: April 23-25, 2012
Where: Loews Coronado Bay, 4000 Loews Coronado Bay Road, Coronado, CA 92118
Featured Speakers
#
Kayte Anton, Owner/Founder, Anton Consulting, Enid, OK
#
Sgt. Joanne Archambault, SDPD (Ret.), Executive Director, EVAW International, and Training Director, SATI , Inc., Addy, WA
#
Ben Atherton-Zeman, Spokesperson, National Organization for Men Against Sexism, Maynard, MA
#
Martha Bashford, JD, Prosecutor, Acting Chief, Sex Crimes Unit, New York County District Attorney’s Office , New York, NY
#
John R. Blakey, JD, Chief, Special Prosecutions Bureau, Cook County State’s Attorney’s Office, Chicago, IL
#
Kay Buck, Executive Director, Coalition to Abolish Slavery & Trafficking (CAST), and Director, EVAW International, Los Angeles, CA
#
Ann Burdges, CEO / Executive Director, Gwinnett Sexual Assault & Children’s Advocacy Center (GSAC-CAC), Atlanta, GA
#
Jacqueline Callari Robinson, RN, SANE-A,Statewide SANE / Forensic Coordinator, WCASA SANE Program, Wisconsin Coalition Against Sexual Assault, Madison, WI
#
Danielle Campbell, Superintendent, Edmonton Police Service, Edmonton, Alberta, Canada
#
Rebecca Campbell, PhD, Professor of Psychology and Program Evaluation, Michigan State University, East Lansing, MI
#
Roger Canaff, Esq., President, EVAW International, Washington, DC
#
Karen D. Carroll, RN, SANE-A, NY-SAFE, Associate Director, Bronx SART and Director, EVAW International, Yonkers, NY
#
Dave Cohen, Media Relations Manager, San Diego PD (Ret.), San Diego, CA
#
Winn S. Collins, JD, District Attorney, Green Lake County, Green Lake, WI
#
Stephanie S. Covington, PhD, LCSW, Institute for Relational Development / Center for Gender and Justice, La Jolla, CA
#
Det. Michael A. Crumrine, Sex Crimes Unit, Austin Police Department, Austin, TX
#
Kim Day, AAS, RN, FNE A/P, SANE-A, SANE-P, SAFE Technical Assistance Coordinator, International Association of Forensic Nurses (IAFN), Arnold, MD
#
Rachel Dissell, Metro Reporter, The Plain Dealer, Cleveland, OH
#
Sgt. Elizabeth Donegan, SOAR Unit and Missing Persons, Austin Police Department, Austin, TX
#
Rebecca Dreke, MSSW, Senior Program Associate, Stalking Resource Center, National Center for Victims of Crime, Washington, DC
#
Lynn Fairweather, MSW, Presage Consulting and Training, Portland, OR
#
Diana Faugno, MSN, RN, CPN, SANE-A, SANE-P, FAAFS, DF-IAFN, Forensic Nurse Consultant and Secretary, EVAW International, San Diego, CA
#
Det. Deirdri Fishel, State College Police Department, State College, PA
#
Sarah Fries, Program Development & SANE Coordinator, Program for Aid to Victims of Sexual Assault (PAVSA), Duluth, MN
#
Catherine Garcia, District Attorney Investigator, San Diego County District Attorney's Office, San Diego, CA
#
Michelle M. Garcia, Director, Stalking Resource Center, National Center for Victims of Crime, Washington, DC
#
Meg Garvin, MA, JD, Executive Director, National Crime Victim Law Institute, Portland, OR
#
Jennifer S. Greene, Violence Against Women Policy Advisor, Cook County State Attorney's Office, Chicago, IL
#
Paul Greenwood, Esq., Deputy District Attorney, San Diego District Attorney’s Office, San Diego, CA
#
Casey Gwinn, JD, President, National Family Justice Center Alliance, San Diego, CA
#
Claire Harwell, JD, National Training Consultant, Framingham, MA
#
Det. Catherine Johnson, Sex Crimes Unit, Kansas City Police Department, Kansas City, MO
#
Al Killen-Harvey, LCSW, Clinical Supervisor, Chadwick Center for Children and Families, Rady Children’s Hospital, San Diego, CA
#
Ilse Knecht, Deputy Director of Public Policy, National Center for Victims of Crime, Washington, DC
#
Erin Knowles Wirsing, LCSW, Program Manager, Initiative Against Human Trafficking, Salvation Army, Chicago, IL
#
Linda E. Ledray, RN, PhD, FAAN, Founder and Director, Sexual Assault Resource Service, Minneapolis, MN
#
Johnny Lee, Director, Peace@Work and CEO, Workplace Security Solutions, Raleigh, NC
#
Shannon Liew, RN, BSN, SANE-A, SANE Coordinator, Office of the Illinois Attorney General, Chicago, IL
#
David Lisak, PhD, Associate Professor of Psychology, University of Massachusetts, Boston, MA
#
Kimberly A. Lonsway, PhD, Director of Research, EVAW International, San Luis Obispo, CA
#
Rose Luna, Training/Diversity Specialist, Texas Association Against Sexual Assault, Austin, TX
#
Laura Mahr, JD, Staff Attorney, Victim Rights Law Center, Portland, OR
#
Ray Maida, LE Training Consultant, Wisconsin Coalition Against Sexual Assault, Wisconsin Office of Justice Assistance and Trauma Specialist, Dane County District Attorney’s Office, Madison, WI
#
Dr. Marchita Masters, Clinical Psychologist, Director & CEO, Shonadei, San Diego, CA
#
Jean McAllister, MSW, Program Director, HealthBridge Alliance, Denver, CO
#
Carole A. McCoy, DPA, President, Jefferson Community College, Watertown, NY
#
Herman Millholland, Independent Consultant, and Director, EVAW International, Los Angeles, CA
#
Jessica Mindlin, Esq., National Director of Training and Technical Assistance, Victim Rights Law Center (VRLC), Portland, OR
#
Cathy Montesi, Executive Director and Founding Member, Shonadei, San Diego, CA
#
Andie Moss, President, The Moss Group, Inc., Washington, DC
#
Judith Munaker, JD, VAWA Trainer and Consultant, Madison, WI
#
Anne Munch, JD, Consultant, Denver, CO
#
Claire Nelli, RN,SANE-A
#
Nancy Oglesby, JD, Deputy Commonwealth’s Attorney, Goochland County Commonwealth's Attorney, Goochland, VA
#
Barbara Owen, PhD, Professor, Department of Criminology, California State University, Fresno, CA
#
Shirley Paceley, MA, Founder & Director, Blue Tower Training, Macon Resources, Inc. and Director, EVAW International, Decatur, IL
#
Peter Pollard, MPA, Training and Outreach Director, 1in6.org, Santa Clarita, CA
#
Patti Powers, JD, Senior Deputy Prosecuting Attorney, Yakima County Prosecuting Attorney's Office, Yakima, WA
#
Mónica Ramírez, JD, Project Director/Staff Attorney, Esperanza: The Immigrant Women's Legal Initiative, Southern Poverty Law Center, Atlanta, GA
#
Kristina Rose, Deputy Director, National Institute of Justice, Washington, DC
#
Nicole Salomon, Survivor, RN, Nurse Supervisor, US Oncology, Kyle, TX
#
Aurelia Sands-Belle, Executive Director, Durham Crisis Response Center, and Director, EVAW International, Raleigh-Durham, NC
#
Teresa Scalzo, Esq., Sexual Assault Litigation Specialist, Criminal Law Division, US Navy Judge Advocate General Corps, Washington, DC
#
Ellen Schell, Legal Director, The Legal Project and Director, EVAW International, Albany, NY
#
Karen Smith, Executive Director, Sexual Assault Centre of Edmonton (SACE), Edmonton, Alberta, Canada
#
R. Clifton Spargo, PhD, Professor, English Department, Marquette University, Chicago, IL
#
Patricia M. Speck, DNSc, APN, FNP-BC, DF-IAFN, FAAFS, FAAN, Memphis, TN
#
Gail Stern, MEd, ABD, Co-Founder and Director of Consulting, Education & Training, Catharsis Productions, Chicago, IL
#
Russell Strand, Chief, Family Advocacy Law Enforcement Training Branch, U.S. Army Military Police School, Ft. Leonard Wood, MO
#
Sheri Vanino, PsyD, Clinical Psychologist and Co-Founder, Victim Justice Initiative, Denver, CO
#
Michael Weaver, MD, FACEP, Medical Director, Sexual Assault Treatment Center, Saint Luke's Health System, and Director, EVAW International, Kansas City, MO
#
John F. Wilkinson, JD, Attorney Advisor, AEquitas: The Prosecutors' Resource on Violence Against Women, Washington, DC
#
Christopher Wilson, PsyD, Psychologist, Portland, OR
#
Janine Zweig, PhD, Senior Research Associate, The Urban Institute, Washington, DC
{1}
##LOC[OK]##
{1}
##LOC[OK]## ##LOC[Cancel]##
{1}
##LOC[OK]## ##LOC[Cancel]##

Press release from Jatiyo Party:Kazi Zafar Ahmed


SHOK NEWS: FROM HAZARIBAG AWAMI LEAGUE WORD 58


Freedom fighter Late Abul Bashar of Ganaktuli Lane, Hazaribag, Dhaka, Word No. 58 left us forever in the morning September 20, 2011 suffering from his illness. His wife Nilfa Banu is local leader of Awami Mohilla League and brother in law of Bangladesh Awami League 58 No. Word General Secretary Sheikh Akhtar Hussain. To have his honor local huge peoples was attend at his Janaza. Member of Parliament Dhaka 12 Barr. Fazle Nur Taposh and many leading personnel were present t after Maghrib at Hazaribag Park on his Janaza. His son AKM Azad is also under performance with Bangladesh Awami League. As a brave freedom fighter was Guard of Honored held before Janaza. Huge number of leaders, local peoples, politicians and media -journalists were present at the Janaza. His family urge for praying to Almighty for peace of his departed soul to all concerns.

Muktidooth Report

Monday, September 19, 2011

দেশ মহাসঙ্কটে পড়েছে : এম কে আনোয়ার


বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য এম কে আনোয়ার বলেছেন, স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ের চেয়ে বর্তমানে দেশের সঙ্কট আরও বেড়েছে। সরকারের কর্মকাণ্ড পর্যবেক্ষণ করলে বোঝা যায়, এক মহাসঙ্কটে পতিত হয়েছে বাংলাদেশ।
সোমবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে বেগম খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের কারামুক্তির তৃতীয়বার্ষিকী উপলক্ষে জাতীয়তাবাদী কৃষক দল আয়োজিত গোলটেবিল বৈঠকে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।
এ সময় তিনি বলেন, বর্তমান সরকার দেশে দুর্নীতিকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিয়েছে। এই সরকারকে বেশি দিন ক্ষমতায় থাকতে দিলে তারা দেশের মানুষের বাকস্বাধীনতা ও সংবাদপত্রের স্বাধীনতা বলে কিছুই আর অবশিষ্ট রাখবে না।
তিনি বলেন, রক্তের বিনিময়ে অর্জিত গণতন্ত্র আজ বিপন্ন। এ জন্য ২৭ সেপ্টেম্বর থেকে যে আন্দোলন শুরু হবে তা বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকারের পতন পর্যন্ত চলবে। সাবেক এ মন্ত্রী বলেন, বিএনপি তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছাড়া নির্বাচন হতে দেবে না। বর্তমান সরকার ২০২১ সাল পর্যন্ত ক্ষমতায় থাকার যে স্বপ্ন দেখছে, তা কোনোদিন সফল হবে না। জনগণ তাদের আর ক্ষমতায় রাখতে চায় না।
তিনি বলেন, প্রতিদিন ব্যাংক ব্যবস্থা থেকে সরকার ১০০ কোটি টাকা ঋণ নিচ্ছে। এ পর্যন্ত প্রায় পাঁচ হাজার কোটি টাকা ঋণ নেয়া হয়েছে। এর ফলে সামগ্রিক অর্থব্যবস্থা হুমকির মুখে পড়েছে। তিনি বলেন, ২০১০ সালে ভারত সফরের সময় শেখ হাসিনা ভারতের প্রয়োজনীয় সব সুবিধা দিয়ে এসেছেন। তাই মমতা রাগ করলেও তিস্তা নিয়ে হাসিনার কোনো রাগ নেই।
বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা ও কৃষক দলের সাধারণ সম্পাক শামসুজ্জামান দুদুর সভাপতিত্বে গোলটেবিল বৈঠকে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী। আরও বক্তব্য রাখেন বিএনপির বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, শ্রমিক বিষয়ক সম্পাদক জাফরুল হাসান, স্বেচ্ছাসেবক দল সভাপতি হাবিবুন নবী খান সোহেল, জিয়া পরিষদের আহ্বায়ক কবির মুরাদ প্রমুখ।

সরকার জাতির বিবেককেও বিভক্ত করেছে - ফখরুল


সরকার জাতির বিবেককেও বিভক্ত করেছে - ফখরুল : ভূমিকম্পে জনগণের আতঙ্কের সুযোগে তেলের দাম বাড়াল সরকার - মাহমুদুর রহমান
বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, আওয়ামী লীগ যখনই ব্রুট মেজরিটি নিয়ে ক্ষমতায় আসে তখনই মানুষের মৌলিক অধিকার হরণ করা হয়। মানবাধিকার লঙ্ঘনে যে কোনো ধরনের প্রতিবাদ ঠেকাতে তারা সফলতার সঙ্গে সব শ্রেণীপেশার মানুষকে বিভক্ত করে ফেলেছে। জাতির বিবেক সাংবাদিকদেরও বিভক্ত করে প্রতিবাদের পথকে রুদ্ধ করা হয়েছে। এ জন্যই মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনাতেও রাজনৈতিক দল খোঁজা হচ্ছে।
গতকাল দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে বাংলাদেশে মানবাধিকার আইন তৈরির দাবি নিয়ে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি প্রধান অতিথির বক্তৃতা করেন। ইনস্টিটিউট অব হিউম্যান রাইট’স অ্যান্ড সার্ভিস এ আলোচনার আয়োজন করে।
অনুষ্ঠানে আলোচনায় অংশ নিয়ে দৈনিক আমার দেশ সম্পাদক মাহমুদুর রহমান বলেন, বর্তমান সরকার রাষ্ট্রীয়ভাবে মানুষের মৌলিক মানবাধিকার লঙ্ঘন করে চলেছে। বাংলাদেশের বর্তমান অবস্থা সত্তর দশকের চিলির মতো। অসংখ্য গুম-হত্যা চলছে। এর দায়ে বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রী ও তার লুটেরা সহযোগীদের একদিন চিলির পিনোচেটের মতো বিচার হবে। তিনি বলেন, সরকার লুটপাট করার টাকা জনগণের ঘাড়ের ওপর দিয়ে নিচ্ছে। দেশের জনগণের ভূমিকম্প আতঙ্কের সুযোগে সরকার তেল-গ্যাসের দাম বাড়িয়েছে। এটা একটি গণবিরোধী সরকার। তাই গণআন্দোলনের মাধ্যমে এ সরকারের পতন ঘটাতে হবে।
ইনস্টিটিউট অব হিউম্যান রাইট’স অ্যান্ড সার্ভিসের সভাপতি ব্যারিস্টার নাসির উদ্দিন অসীমের সভাপতিত্বে আলোচনায় আরও অংশ নেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য ও বিশিষ্ট রাষ্ট্রবিজ্ঞানী প্রফেসর ড. এমাজউদ্দীন আহমদ, বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা অধ্যাপক এম এ মান্নান, জাতীয় প্রেস ক্লাবের সভাপতি কামাল উদ্দিন সবুজ ও বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য হাসান উদ্দিন সরকার। সভা পরিচালনা করেন ব্যারিস্টার ফজলুল করিম মণ্ডল।
বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, আমেরিকার স্টেট ডিপার্টমেন্ট বলেছে বাংলাদেশে মানবাধিকার ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। এখন আমাদের জেগে উঠতে হবে। এই সরকারকে বলে দিতে হবে বিদায় হও। নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দাও। জনগণের মানবাধিকার ফিরিয়ে দাও। আর কোনো গুম-হত্যা আমরা দেখতে চাই না।
তিনি বলেন, মানবাধিকার মূলত দুই রকমের। একটি হচ্ছে জনগোষ্ঠীর অধিকার অপরটি ব্যক্তির অধিকার। একজন ব্যক্তির অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থান এই তিনটি মৌলিক অধিকারকে নিশ্চিত করা রাষ্ট্রের দায়িত্ব। অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনকভাবে আমরা দেখি এ সরকার দরিদ্র জনগোষ্ঠীর এই মৌলিক অধিকার রক্ষা করতে পারছে না। ‘ডাস্টবিন থেকে একজন বৃদ্ধা খাবার তুলে খাচ্ছেন’ একটি জাতীয় পত্রিকায় প্রকাশিত এমন একটি ছবির বিবরণ তুলে ধরে মির্জা আলমগীর বলেন, এই ছবি দেখে ১৯৭৩-৭৪ সালের কথা মনে পড়েছে। তখন এক টুকরো রুটির জন্য মানুষ ও কুকুর ডাস্টবিনে যুদ্ধ করেছে। রাস্তায় এখানে সেখানে মানুষের লাশ পড়ে থাকতে দেখা যেত। তখন দুর্ভিক্ষে লাখ লাখ মানুষ না খেয়ে মারা গেছে। এখন যে সরকার আছে তখনও সেই সরকার ছিল। অমর্ত্য সেন তার বইয়ে লিখেছিলেন খাদ্য সমস্যার কারণে দুর্ভিক্ষ হয়নি। তখনকার সরকারের অব্যবস্থার কারণেই দুর্ভিক্ষ হয়েছিল।
তিনি বলেন, ৭২-৭৫ সালে এই দেশে শুধু মানবাধিকার লঙ্ঘন নয়, মনুষ্য জাতিকে কীভাবে অবমাননা করা হয়েছে তা এই তরুণ প্রজন্ম জানে না। কয়েকদিন আগে অনেকগুলো মানবাধিকার সংস্থা তথ্য দিয়েছে - বাংলাদেশে মানবাধিকার লঙ্ঘন ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। হিউম্যান রাইট’স ওয়াচ বলেছে, ক্রসফায়ার বন্ধ না হলে র্যাবকে অস্ত্র দেয়া বন্ধ রাখতে হবে। আমেরিকা স্টেট ডিপার্টমেন্টের হিউম্যান রাইট’স রিপোর্টে বলা হয়েছে, বাংলাদেশের মানবাধিকার খুবই বিপজ্জনক। বিচার বিভাগে গিয়ে সাধারণ মানুষ ন্যায় বিচার পাচ্ছে না। এরপর আর কি বাকি থাকতে পারে? আমরা এখন একটা অন্ধকার যুগের দিকে ফিরে যাচ্ছি। প্রধানমন্ত্রী আমাদের অন্ধকার কুঠুরিতে ফেলে দেবেন না।
মির্জা আলমগীর বলেন, বাংলাদেশকে একটা পুলিশি এস্টেটে পরিণত করা হয়েছে। তারা যাকে খুশি যখন খুশি তুলে নিয়ে যায়। আমার দেশের সম্পাদক মাহমুদুর রহমানকে যেভাবে নির্যাতন করা হয়েছে। শীর্ষ কাগজের সম্পাদককে মিথ্যা মামলায় গ্রেফতার করা হয়েছে। আমরা কি জানি পৃথিবীর কোনো সভ্য দেশে একজন সম্পাদককে এভাবে নির্যাতন করা যেতে পারে? এসব মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনায় যাতে বড় কোনো প্রতিবাদ না হয় সেটাও নিশ্চিত করতে সরকার সফল হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, আইনজীবী, চিকিত্সক, শিক্ষক সব পেশার মানুষকে সরকার বিভক্ত করে ফেলেছে। এমনকি জাতির বিবেক সাংবাদিকদেরও সরকার বিভক্ত করে প্রতিবাদের কেন্দ্রস্থলকে দুর্বল করতে সফল হয়েছে।
বাংলাদেশকে ব্যর্থ রাষ্ট্রের দিকে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে অভিযোগ করে অধ্যাপক ড. এমাজউদ্দীন আহমদ বলেন, রুয়ান্ডা, সিয়েরালিওনসহ ব্যর্থ রাষ্ট্রগুলোতে প্রথমদিকে যেসব চিত্র দেখা গিয়েছে, তা বাংলাদেশে এখন লক্ষ্যণীয়। কিছু মানুষ এখন আইনের ঊর্ধ্বে উঠে গেছে। যত অপরাধ করুক, আইন তাদের ছুঁতে পারছে না। নানা কৌশলে জনগণকে এসব সহ্য করতে বাধ্য করা হচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, দেশপ্রেমিক হলে এসব প্রতিরোধ করতে হবে। প্রতিরোধের সময় এসে গেছে। এখন প্রতিরোধ না করলে আমরা সত্যিই একটি ব্যর্থ রাষ্ট্রের নাগরিকে পরিণত হব বলে তিনি দেশবাসীকে সতর্ক করে দেন। আইনজীবী এমইউ আহমেদ, ওয়ার্ড কমিশনার চৌধুরী আলমসহ কয়েকটি হত্যা-গুমের উদাহরণ টেনে দৈনিক আমার দেশ-এর ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মাহমুদুর রহমান বলেন, বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি উত্তরোত্তর খারাপের দিকে যাচ্ছে। কেউ নিরাপদ নই। বাসা থেকে বেরিয়ে যারা ফিরে আসেনি, তাদের ছেলে-মেয়ে, স্ত্রীর পরিস্থিতিতে নিজেদের একটু চিন্তা করে দেখতে দেশবাসীর প্রতি তিনি আহ্বান জানান। গুম-হত্যাকে ক্রসফায়ারের চেয়েও জঘন্য মানবাধিকার লঙ্ঘন হিসেবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, চিলিতে পিনোচেটের শাসনে হাজার হাজার মানুষ গুম-খুন হয়েছে। আর বাংলাদেশে এখন শ’ শ’ গুম-খুন হচ্ছে। এ সরকার মানবাধিকারে বিশ্বাসই করে না।
শেয়ারবাজারে লুট, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে আট শতাধিক শিক্ষক-কর্মচারীর চাকরিচ্যুতি, নিত্যপণ্য ও তেল-গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদ জানিয়ে মাহমুদুর রহমান বলেন, মানুষের মৌলিক অধিকার হরণ করে চলেছে এ সরকার। সংবিধান সংশোধনের মাধ্যমে মানুষের বাকস্বাধীনতা কেড়ে নেয়া হয়েছে। জনগণের ভূমিকম্প আতঙ্কের সুযোগে এক লাফে তেলের দাম ৫ থেকে ৮ টাকা বাড়িয়ে দিয়েছে। ফার্নেস অয়েলের দাম জোট আমলের চেয়ে শতগুণ বাড়ান হয়েছে। ৪ থেকে ৬ টাকায় যে বিদ্যুত্ উত্পাদন করা যায় তা ১৮ টাকায় কিনে সরকার জনগণের টাকা লুট করছে। এ জন্যই তেলের দাম আবার বাড়ান হয়েছে। এই বর্ধিত টাকা সরকারি লুটেরাদের পকেটে যাবে বলে তিনি অভিযোগ করেন।
কামাল উদ্দিন সবুজ বলেন, খুন, রাজনৈতিক হত্যা, পুলিশ হেফাজতে মৃত্যু এখন নৈমিত্তিক ঘটনায় পরিণত হয়েছে। যে রাষ্ট্রে পুলিশি নির্যাতনে হাইকোর্টের আইনজীবীর মৃত্যু হয়, সে রাষ্ট্রে কেউ-ই নিরাপদ নয়। পুরো জনগণ মানবাধিকার লঙ্ঘনের একটি ভীতিকর পরিস্থিতির মধ্যে আতঙ্কে বাস করছে। জনগণের অধিকার রক্ষার সব প্রতিষ্ঠানকে সরকার ধ্বংস করে ফেলেছে। যার যার অবস্থান থেকে প্রতিবাদ জানাতে তিনি জনগণের প্রতি আহ্বান জানান।