Friday, October 28, 2011

BANGLADESH CITY AND POURO WORKERS FEDERATION


COALITION OF LOCAL NGO, BANGLADESH

LONG MARCH PRESS CLUB BSD

video

BANGABANDHU NAGORIK SANGHATTI PARISHAD

WE WANT JUSTICE BSD

LONG MARCH PRESS CLUB BSD




শুরু হল ঢাকা-সুনেত্র (২৮-৩১ অক্টোবর) লংমার্চ। আজ ২৮ অক্টোবর ২০১১, সকাল ১১ টায় জাতীয় প্রেস ক্লাবের সন্মুখ হতে জাতীয় কমিটির আহ্বায়ক ইন্জিনিয়ার শেখ শহিদুল্লাহ ও সদস্য সচিব আনু মুহম্মদ এর নেতৃত্বে সমাবেশ ও মিছিল সহকারে লংমার্চের যাত্রা শুরু হল।
http://www.facebook.com/media/set/?set=a.237222943002433.59114.100001441878306&type=1¬if_t=like

KABI SANGSHAD BANGLADESH

SHER E BANGLA AK FAZLUL HUQ FOUNDATION

Wednesday, October 26, 2011

Banga Bandhu Parishad

Study: Most tablet users not willing to pay for news:Cyber Journalists Network


The rapid growth of tablets like the iPad is helping to increase news consumption, but so far the devices don’t appear to be the panacea for the news industry’s woes that many had hoped. While three out of every 10 tablet users consume more news daily, a majority say they are not willing to pay for news content on the devices, according to a new study from the Pew Research Center’s Project for Excellence in Journalism in collaboration with The Economist Group. Still, 21% say they would be willing to spend $5 per month if that were the only way to access their favorite source on the tablet.

Among the major findings:

* The revenue potential for news on the tablet may be limited. At this point just 14% of tablet news users have paid directly to access news on their tablet. Another 23% get digital access of some kind through a print newspaper or magazine subscription. Still, cost is a factor, even among this heavy news consuming population. Of those who haven’t paid directly, just 21% say they would be willing to spend $5 per month if that were the only way to access their favorite source on the tablet. And of those who have news apps, fully 83% say that being free or low cost was a major factor in their decision about what to download.

* Brand is important on the tablet. Whether an app comes from “a news organization I like” is as prevalent a factor in the decision to download an app as is low cost. Liking the news organization is a major factor for 84% of those who have apps. In addition, among both app and browser respondents surveyed about their behavior over the last seven days, the most common way by far to get news headlines was by going directly to a news organization’s content. Fully 90% of app users went directly to the app of a specific news organization, compared with 36% that went to some sort of aggregator app like Pulse. And, 81% of those who went through their browser accessed news headlines via a direct news website, compared with 68% who went through a search engine and about a third (35%) that went through a social network.
* Those who rely mainly on apps for news, 21% of all tablet news users, represent a kind of power news consumer. Close to half of this group say they now spend more time getting news than they did before they had their tablet (43%). That is more than twice the rate of those who mainly go through a browser (19%). App users are also more than three times as likely as browser news users to regularly get news from new sources they did not turn to before they had their tablet (58% versus 16% for browser users).

* Substitution is already occurring to large degrees. Fully 90% of tablet news users now consume news on the tablet that they used to get access in other ways. The greatest substitution is occurring with news that people used to get from their desktop computer. Eight-in-ten tablet news users say they now get news on their tablet that they used to get online from their laptop or desktop computer. Fewer respondents, although still a majority, say the tablet takes the place of what they used to get from a print newspaper or magazine (59%) or as a substitute for television news (57%).

* Incidental news reading is prevalent on the tablet. Nearly nine-in-ten (88%) of those who read long articles in the last seven days ended up reading articles they were not initially seeking out. In addition, 41% went back and read past articles or saved articles for future reading.

* Word of mouth is a key component of tablet news sharing. Fully 85% of those who get news on their tablets said they had talked with someone about a long article they had read there. This is more than twice the percentage who say they had shared articles electronically. Some 41% of tablet news users say they share news through email or social networking at least sometimes.

* When it comes to ownership, many see the tablet computer as more of a household device to share than as a strictly personal one. Half of those with a tablet share it with other members of the household.

http://myemail.constantcontact.com/Don-t-Be-a-Wise-Guy--Complimentary-BlogWorld-Shuttle-Service--Hotels-.html?soid=1104107397187&aid=hrFzqscm-fs

What think about blogger!!! And if its recognized as media by the govt...


http://myemail.constantcontact.com/Don-t-Be-a-Wise-Guy--Complimentary-BlogWorld-Shuttle-Service--Hotels-.html?soid=1104107397187&aid=hrFzqscm-fs

UNCCD COP10 goes digital with use of tablet PCs


In an effort to bring state of the art service provision to parties and reduce overall environmental impact, conference participants are using tablet personal computers (PCs) during the tenth session of the Conference of the Parties (COP10) to the United Nations Convention to Combat Desertification (UNCCD).

“Using the latest advances in technology, the UNCCD is constantly seeking ways to improve its conference management process and contribute to enhanced environmental standards”. UNCCD Executive Secretary Luc Gnacadja said. “Encouraging sustainability in all areas also helps our work on combating desertification, land degradation and drought.”

The UNCCD partnered with the Gyeongnam Provincial Government and SK Telecom to provide 1000 Android-based Samsung Galaxy 10.1 Tablet PCs to conference participants for accessing official documents and the daily journal along with a variety of other material, directly from the tablet PC, using an Android based application. The tablets further offer internet access, photos and videos programmes together with Android-based web applications.

“We have reduced the time it would take normally for participants to access key conference documents,” said Mr. Tarun Wadhawan, the Information Technology officer who first developed the idea. “Participants no longer need to carry and maintain the nearly 100 official documents produced at previous conferences and the Conference’s Internet café is underutilized,” he pointed out.

The present first phase focuses on an eco-friendly approach that maximizes the sustainable use of paper while offering to participants an enhanced in-session access to documentation services, through state of the art electronic tools. Based on the participants’ feedback and post session statistics, further phases will be gradually introduced over the forthcoming sessions of the UNCCD governing bodies.

The tablet application was presented to Prime Minister Kim Hwang-sik of the Republic of Korea and UN General Assembly President in the afternoon, following the opening of the COP’s Ministerial segment.

Each of the 194 Party delegations is allowed up to four tablet PCs. Representatives of international organisations and civil society organisations receive one Tablet PC each on a first come, first served basis.

A loan station, using an interface application with the UNCCD registration system, was set up at the conference for participants to collect their tablet PCs with a dedicated help desk.

The UN plans to follow COP10's example at future UN conferences, including at the UN Conference on Sustainable Development, often referred to as Rio +20, to be held in Rio de Janeiro next year. The vision is to minimize the ecological footprint of UN conferences to the greatest extent possible.

“This is only the beginning,” Mr. Gnacadja said. “As we head towards the Rio +20 Conference, our vision of becoming land degradation neutral entails an in depth look at the impact of all products on the land all the way from the supply chain to the consumer.”

বিয়েতে রাজি না হওয়ায় অকথ্য অপবাদ, আত্মহত্যা করল কলেজছাত্রী ঠাকুরগাঁও সদর থানার ওসি ক্লোজড Is it human being!!!


অকথ্য ও অসত্য অপবাদ সহ্য করতে না পেরে ঠাকুরগাঁওয়ে এক কলেজছাত্রীর আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে। রবিবার দিবাগত রাত্রিতে ঠাকুরগাঁও সদর থানায় এ ঘটনা ঘটে।



নিহত ছাত্রী মুক্তা নাহার বানু, ১৮, ঠাকুরগাঁও সরকারি মহিলা কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী ছিল। শনিবার রাতে কীটনাশক পান করার তাকে প্রথমে ঠাকুরগাঁও আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে দিনাজপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে রবিবার দিবাগত রাত্রিতে সেখানে তার মৃত্যু হয়।



মুক্তার বাড়ি দিনাজপুরের পার্বতীপুর উপজেলার নতুন বাজার গ্রামে। সে ঠাকুরগাঁও শহরের নিশ্চিন্তপুর গ্রামে মামা শাহ আলমের বাড়ি থেকে লেখাপড়া করছিল।



রবিবার বিকেল সাড়ে ৫টায় দিনাজপুর মর্গে ময়না তদন্ত শেষে মুক্তার লাশ তার মামার বাড়ি আনলে কান্নার রোল পড়ে। মৃত্যুর খবর শুনে সহপাঠি, শিক্ষকসহ প্রতিবেশীরা মুর্ছা যায়।



মুক্তার আত্মহত্যার আগে তার ডায়রির ছয় পৃষ্ঠা জুড়ে একটি চিঠি লিখে গিয়েছে বলে জানা গিয়েছে।



মুক্তার মা আয়শা খাতুন অভিযোগ করে বলেন, তাদের প্রতিবেশি আফসানা, তাসু ও মোহাম্মদ আলী মুক্তার নামে কুৎসা রটিয়ে দেয় যে সে তিন মাসের গর্ভের সন্তান নষ্ট করেছে। এর ফলে সম্প্রতি বেশ ক'বার মুক্তার বিয়ের প্রস্তাব এলেও পাত্র পক্ষ গর্ভধারণের অপবাদ শুনে পিছিয়ে যায়।



পরিবারের সূত্রে অভিযোগ করা হয়েছে, প্রতিবেশি মোহাম্মদ আলীর বিয়ের প্রস্তাবে সম্মত না হওয়ার জের ধরেই এই কুৎসা রটানো হয়।



জানা গিয়েছে এই শনিবার কলেজ থেকে ফিরে সকলের অগোচরে মুক্তা তরল কীটনাশক পান করে। পরিবারের সদস্যরা রাতে তাকে সংজ্ঞাহীন অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করে।



মুক্তার বাবা সমশের আলী তার মেয়ের আত্মহত্যায় প্ররোচণাকারীদের বিচার দাবি করে বলেন, আর যেন কোন বাবা-মার কোল এভাবে খালি না হয়।



রবিবার রাতে ঠাকুরগাঁও পুলিশ সুপার শাহ আলম ও এএসপি সার্কেল মোশাররফ হোসেন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। তারা জানান দোষীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।





ওসি ক্লোজড



এদিকে ঘটনার পর ঠাকুরগাঁও থানার ওসি গোপাল চক্রবর্তীকে ক্লোজড করা হয়েছে। রবিবার সন্ধ্যায় তাকে ঠাকুরগাঁও সদর থানা থেকে পুলিশ লাইনে নিয়ে যাওয়া হয়। জেলার রানীশংকৈল থানার ওসি জাহিদুল ইসলামকে অস্থায়ী ভাবে এ থানার দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।



অবশ্য ওসি ক্লোজ কারণ সম্পর্কে এখনও নিশ্চিত হওয়া যায়নি। এসপি মো: শাহ আলমের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, প্রশাসনিক কারণের কথা উল্লেখ করেন।

We are confused how officials avoid such sensitive cases!!!

Dudley Do-Wrong


Last week former President George W. Bush visited British Columbia, Canada, to give a speech at the Surrey Regional Economic Summit. He was reportedly paid $150,000 for his appearance.

Setting aside the fact that the Bush administration had much the same effect on America’s economy that the iceberg had on the Titanic, there is another good reason why President Bush was a very poor choice of speaker.

As President of the United States, George Bush ordered the torture of detainees in US custody.

In his memoir, Decision Points, the former President states categorically that as Commander-in-Chief he gave approval for the use of so-called enhanced interrogation techniques on detainees.

By his own admission the techniques he authorized included waterboarding – a practice prosecuted as a war crime by the United States at the Tokyo War Crimes Tribunal.

The applicable law is pretty black and white on this issue. Canada has an obligation under the Convention Against Torture to investigate allegations of torture made against any individual that falls under its jurisdiction.

The Canadian government received notice of multiple complaints against President Bush relating to the torture of detainees held as part of the ‘Global War on Terror’.

Amnesty International, the Center for Constitutional Rights and the Canadian Center for International Justice were among the groups that submitted detailed legal dossiers on alleged abuses committed at President Bush’s direction. You can read a copy of Amnesty’s submission by clicking on this link.

With President Bush on Canadian soil and Canadian nationals like Maher Arar and Omar Khadr among those allegedly affected, Canada had more than sufficient jurisdiction to take action.

Yet the Canadian government chose instead to turn a blind eye to President Bush’s visit and, rather than enforcing the law, Canadian police ensured that he was not inconvenienced by the protests that greeted his visit.

Canadian government ministers have simply refused to engage on the issue. Minister of Justice Robert Nicholson ignored repeated formal requests to open an investigation. The Minister for Citizenship, Immigration and Multiculturalism, Jason Kenney, dismissed calls for President Bush’s arrest as a “stunt.”

This is the same Jason Kenney who earlier this year told reporters that anyone who had committed or been an accomplice to war crimes should be “rounded up and kicked out of Canada.” It seems hypocrisy is a universal political value.

What it so depressing about the present attitude of the Canadian authorities, is that in the past decade Canada has been in the forefront of nations pressing to end impunity for human rights abuses. Prominent Canadians like Lousie Arbour and General Roméo Dalliare have been powerful voices on the world stage calling for greater accountability.

In the past decade, Canada has arrested individuals associated with war crimes, crimes against humanity and acts of torture committed in countries as diverse as Honduras, Guatemala, Pakistan, Rwanda, Peru, Congo, and Nazi Germany. It has supported the foundation of the International Criminal Court and the operation of the UN ad hoc tribunals for Rwanda and the former Yugoslavia.

Indeed, earlier this year the Canadian government announced a (not entirely unproblematic) crackdown on suspected human rights abusers believed to be living in Canada and publicly identified 30 foreign nationals actively being sought by the Canadian authorities.

At the time, the Minister for Public Safety, Vic Toews, told the media:

“Those who have been involved in war crimes or crimes against humanity will find no haven on our shores; they will be located, and they will face the consequences.”

Fine words indeed, but since Mr. Toews made this statement both George Bush and his former Vice-President Dick Cheney have visited Canada unmolested. It seems that Dudley Do-Right’s enthusiasm for justice does not extend to the rich and powerful.

Sadly, last week the Mounties did not get their man, and Canada’s reputation as a global champion of human rights has been greatly diminished as a result.

‘তোমাদের দেশে গুণীর কদর হয় না’ A comments from Dr. Yunus


তখন ক্লাস এইটে পড়ি। কিছুদিন আগে অ্যামেরিকার তখনকার প্রেসিডেন্ট ক্লিনটন বাংলাদেশ ঘুরে গিয়েছেন। ঐ বয়সেই আগ্রহ করে বিবিসিটা, সিএনএনটা করে দেখা শুরু হয়েছিল। আল-জাজিরার নাম শুনেছি আরও বছর খানেক পরে, দেখা শুরু করেছি তারও পরে।



তো সিএনএনে একদিন দেখা গেল বিল ক্লিনটন কোন এক সফরে গিয়ে যাওয়া বা আসার পথে বেশ ক্যাজুয়াল ভঙ্গিতে একটি ইন্টারভিউ দিচ্ছেন। স্থানের কথা একেবারেই কিছু মনে নেই। কালটা সম্ভবত ছিল ২০০০ সালের মাঝামাঝি। ক্লিনটন কথা বলছিলেন দারিদ্র্য বিমোচন বিষয়ে। আফ্রিকাসহ বিশ্বের অন্যান্য দারিদ্র্যক্লিষ্ট অঞ্চলগুলোতে জাতিসংঘের পাশাপাশি অ্যামেরিকার সরকার এবং অন্যান্য দেশের সরকারী বেসরকারী প্রতিষ্ঠানগুলো কী কী কাজ করছে, মোটামুটি এইই ছিল প্রসঙ্গ।


...
দুই দশকেরও অধিক সময়ে বিল ক্লিনটনই বাংলাদেশ সফর করা একমাত্র অ্যামেরিকান প্রেসিডেন্ট।

শুনতে শুনতে হঠাৎ বাংলাদেশের নামটা খট করে কানে লাগল। কান খাড়া করে শোনার চেষ্টা করলাম বাংলাদেশকে নিয়ে কি বলেন। দেখা গেল তিনি বাংলাদেশে দারিদ্র্য বিমোচনে গ্রামীণ ব্যাংকের ভূয়সী প্রশংসা করলেন। অনেকটা এভাবে বললেন, গ্রামীণ ব্যাংক যে ধরণের উদ্যোগ নিয়েছে তা বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চলে দারিদ্র্য বিমোচনের জন্য কাজে লাগিয়ে সুফল পাওয়া যেতে পারে। শুধু গ্রামীণ ব্যাংকই নয়, উদাহরণ দিতে গিয়ে তিনি আরও কয়েকটি প্রতিষ্ঠান বা সরকারের নাম হয়তো করেছিলেন। কিন্তু সেসব আজ আর মনে নেই, 'বাংলাদেশ'-এর উল্লেখ প্রসঙ্গে আজ শুধু গ্রামীণ ব্যাংকের নামটাই মনে আছে।



সিএনএনে ক্লিনটনের মুখে গ্রামীণ ব্যাংকের নামটি শুনে কিছুটা শিহরিত হয়েছিলাম। কোন গূঢ় কারণ হয়তোবা নেই। কিরগিজস্থানের বিশকেকের কিংবা জার্মানির ম্যানহাইমের রাস্তায় হাঁটতে হাঁটতে কোন অপরিচিতের মুখে হঠাৎ 'বাংলাদেশ' নামটি শোনার পর কোন প্রবাসী বাংলাদেশি তরুণ বা তরুণীর যে নাম না জানা অনুভূতি হয়, সেই অনুভূতির সাথে হয়তো আমার ঐ অনুভূতির গুণগত বিশেষ কোন পার্থক্যও নেই।



ক্লিনটন তার ঐ বক্তব্যে মুহম্মদ ইউনুসের নাম উল্লেখ করেননি। কিন্তু ইউনুসের সৃষ্টি, ইউনুসের মস্তিষ্কপ্রসূত, ইউনুসের অধ্যাবসায়ের ফল গ্রামীণ ব্যাংকের নাম তিনি উল্লেখ বা শুধু এর প্রশংসাই করেননি, তিনি পৃথিবীতে দারিদ্র্য বিমোচনের জন্য একে এক উদাহরণ হিসেবে নিতে পরামর্শ দিয়েছিলেন।



এখন অ্যামেরিকার কোন প্রেসিডেন্টের মুখে বাংলাদেশ, গ্রামীণ ব্যাংক বা ইউনুসের নাম শুনে শিহরিত হওয়ার এই ব্যাপারটিকে বাংলাদেশের অনেকেই ভালো চোখে দেখতে নাও পারেন। বিশেষ করে বাংলাদেশের বামঅধ্যূষিত গণমাধ্যম ব্যাপারটিকে লজ্জাজনক, হীনমন্যতাসুলভ এবং ক্লিনটনের মুখে বাংলাদেশের নামকে বাংলাদেশের জন্য অপমানজনক হিসেবেও আখ্যা দেওয়া হতে পারে!



কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে, বিশেষ করে প্রবাসী বাংলাদেশিরা যেটা বেশি উপলব্ধি করেন বলে তারা বলেন, বহির্বিশ্বে, বিশেষ করে উচ্চশিক্ষাপীঠগুলোতে বহু ছাত্রশিক্ষকের সাথে বাংলাদেশের প্রথম পরিচয়ের মাধ্যম হচ্ছেন এই মুহম্মদ ইউনুস, আর তার গ্রামীণ ব্যাংক।





বাংলাদেশ সেই মুহম্মদ ইউনুসের কী হাল করেছে তা গত বছর দেড় দুয়েক ধরে বাংলাদেশিরা দেখছে।



মুহম্মদ ইউনুসকে আইন-আদালতে দৌড় করানোর প্রতিবাদ করলে অনেকে বলে উঠেন, আরে ভাই এসব কী বলেন? নোবেল পেয়েছেন দেখে কি তিনি সবকিছুর ঊর্ধ্বে চলে গেলেন নাকি?



না মুহম্মদ ইউনুস অবশ্যই আইন-আদালতের ঊর্ধ্বে নন। যেমন এ বছর স্টক মার্কেটে ধ্বস নামবার পর চারদলীয় জোট এমপি ব্যারিস্টার আন্দালিভ রহমান পার্থ তার ইন্টারনেটে বহুল প্রচারিত সংসদীয় বক্তব্যে বলেছিলেন, কিছু কিছু মানুষের জন্য ল' কিছুটা হলেও কার্ভ করে যেতে পারে। উদাহরণ স্বরূপ তিনি ওয়ান-ইলেভেন আমলে বেগম খালেদা জিয়া এবং শেখ হাসিনার সাবজেলে থাকার উল্লেখ করেছিলেন।


...
শুধু ডক্টর ইউনুসই নন, গ্রামীণ ব্যাংকে তার পক্ষে কথা বলা কর্মকর্তা-কর্মচারীদেরকে হয়রানি করা হয়। ছবিতে গ্রামীণ ব্যাংকের ইউনিয়ন নেতা সগির রশীদ চৌধুরীকে দেখা যাচ্ছে। তিনি ডক্টর ইউনুসকে গ্রামীণ থেকে অপসারণের পর ব্যাংকের সামনে বিক্ষোভরত অবস্থায় সাদা পোষাকধারী অজ্ঞাতদের হাতে অপহৃত হন। পরে পিটিয়ে আহত করে এবং আন্দোলন পরিত্যাগ না করলে স্ত্রী সন্তানদের হত্যা করার হুমকি দিয়ে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

মুহম্মদ ইউনুসের জন্য আমাদের দরকার তো নেই আইন কার্ভ করার। প্রচলিত আইনেই আমরা থাকি। প্রচলিত আইনের কথা ধরে নিয়েই, আজ ক'জন বাংলাদেশি বিশ্বাস করেন যে বর্তমান সরকার আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করার জন্য ইউনুসকে গ্রামীণ ব্যাংক থেকে উৎখাত করেছে?



বিশ্বাস করার কী উপায় আছে? ইউনুসকে যখন উৎখাত করা হল তখন ব্যাপারটির সমর্থনে দু'ধরণের আলোচনা হচ্ছিল। সমর্থক রাজনীতিবিদদের বক্তব্য, বক্তব্য মানে একদম সরাসরি বক্তব্য, 'ইউনুস তো রাজনৈতিক দল খুলতে চেয়েছিল'। আরেক শীর্ষ রাজনীতিবিদের বক্তব্য, 'ইউনুস রক্তচোষা'। বক্তব্যগুলো কেমন, সেগুলো বিশ্বাস করা যায় কিনা, সেই সিদ্ধান্ত বাংলাদেশের মানুষ নিবে। আমিও বাংলাদেশেরই মানুষ। তবে সব বাংলাদেশির মনের কথা তো আর আমি জানি না, সবার যখন সেটা প্রকাশের সুযোগ আসবে তখন তারা হয়তো প্রকাশ করবে।



আর বুদ্ধিজীবিদের বক্তব্য ছিল, গ্রামীণ ব্যাংক দারিদ্র্যমোচনে আসলে কী ভূমিকা রেখেছে, আসলেই কোন ভূমিকা ছিল কিনা, ইত্যাদি জিজ্ঞাসা। এই প্রসঙ্গে মনে পড়ে যায় রুমানা মঞ্জুরের কথা। ইন্টারনেটে এই প্রসঙ্গে আলোচনা করতে ও দেখতে গিয়ে স্তম্ভিত হয়ে দেখছিলাম, অনেকে বলছেন 'নিশয়ই রুমানা মঞ্জুরের কোন অ্যাফেয়ার ছিল!', 'নিশ্চয়ই সে ভালো ছিল না!', 'নিশ্চয়ই কোন কারণ ছিল!', 'এক হাতে তালি বাজে না!' ইত্যাদি। রুমানার অ্যাফেয়ার ছিল বলে তার চোখ উপড়ে দিতে হবে? ইসলামের কোন পাতায় লেখা আছে ও কথা? সে খারাপ হলে, তালি বাজালে তার নাক আর কান কামড়ে দু'আঙ্গুল তার চোখে ঢুকিয়ে দিতে হবে?



তো গ্রামীণ ব্যাংক দারিদ্র্য মোচন করতে পেরেছে কিনা সেই তর্ক অনেকটাই ঐ হাসান সাঈদের সমর্থনের মতই মনে হয়েছে। যেন গ্রামীণ ব্যাংক দারিদ্র্য মোচনে সফল না হলে ইউনুসের বিরুদ্ধে সরকারের মুহুর্মুহ প্রতিহিংসা জায়েয হয়ে গেল!



আগে যে কথা বলছি, তা আবারও বলছি, ইউনুসের বয়স সত্তর না একশো সত্তর, কোথায় কী লেখা আছে সেসব পরের কথা। আজ রাস্তায় নেমে, কিংবা পথেঘাটে চলার সময় একজন মানুষকে জিজ্ঞাসা করে দেখুন, ইউনুসের বিরুদ্ধে সরকারী সব আয়োজনের ব্যাপারে তারা কি বলেন।



তর্ককে খাতির করলে একথার জবাব হচ্ছে, মানুষ কি বলে না বলে সেটা বড়, না আইন বড়। হ্যাঁ, একশোবার আইন বড়। এই যে আইন বড়, সেটাও মানুষের জবাবের মুখেই বলুন। তারা যে জবাব দেবে, তাতে যুক্তি থাকবে, বাস্তবতা থাকবে।



শেষ কথা।



বাংলাদেশের এক রাষ্ট্রপ্রধান সদ্য নিহত হয়েছেন। এর কিছুদিন পর কয়েকজন কূটনীতিক বিদেশে গেলেন সেদেশের রাষ্ট্রপ্রধানের সাথে নিয়মিত সাক্ষাত করতে। আলোচ্য বিষয় হত্যাকান্ড বা অভ্যুত্থান নয়, সম্পুর্ণ অন্য কিছু। একের পর এক প্রতিনিধিরা সেই রাষ্ট্রপ্রধানের সাথে দেখ করে যাচ্ছেন। যখন বাংলাদেশের ডাক এল তখন রাষ্ট্রপ্রধানের অধীনস্তরা তাকে জানালেন, এরা বাংলাদেশ থেকে এসেছেন। রাষ্ট্রপ্রধান শোনার সাথে সাথে মুখ বেঁকিয়ে চুরিয়ে দ্রুত কী যেন বললেন। বলতে বলতে আঙ্গুলের একটা ভঙ্গি করলেন, যার মানে ছিল বন্দুকের ট্রিগার চাপা। বাংলাদেশি প্রতিনিধি বেচারা দুশ্চিন্তায় পড়লেন, কী ব্যাপার মেরে টেরে ফেলার কথা বলে কেন? রাষ্ট্রপ্রধানের কথা শেষ হলে তার দোভাষী জানালেন, তিনি রেগেমেগে জানতে চেয়েছেন তোমরা রাষ্ট্রপ্রধানকে মেরেছ কেন? তোমাদের সাথে কথা বলব না! তখন বাংলাদেশের প্রতিনিধি হতভম্ব ও বিচলিত হয়ে দোভাষীকে বললেন, আপনি উনাকে বুঝিয়ে বলুন, আমরা ওনাকে মারিনি। আমরা ওনারই লোক। যে ওনাকে মেরেছে সেই আমাদেরকে এখানে পাঠিয়েছে। দোভাষী ব্যাপারটি রাষ্ট্রপ্রধানকে বুঝিয়ে বলার পর তার রাগ কমল না। একটু থেমে সে কী যেন বলল। বলা শেষ হলে দোভাষী ঘুরে জানাল, উনি বলেছেন তোমাদের দেশে গুণীর কদর হয়না। যে দেশে গুণীর কদর হয় না সে দেশে এক সময়ে আর গুণী জন্মাবে না।

What you didn’t know about Japan


Sure, the world is now a global village and communication has allowed us to cross even the most treacherous boundaries but it’s imperative that you remain on guard because not everything we see or hear is a depiction of reality. Japan, a case in point is the epitome of technological advancement and an awe inspiring country. So many of us would do just about anything to live the fast life in Tokyo but it’s only because we don’t know any better.

Japan is not a country you can just waltz in expecting to enjoy every moment of it. Perhaps one of the biggest hurdles in your way would be the language barrier since hardly anyone speaks English. So if you don’t know their language, consider yourself alienated. Moreover everything from the automated toilets to their electronic machines have only one language of instruction, you guessed it, Japanese! So isn’t it great to be surrounded with technology and be at your wits end on how to use it? Chances are you will feel technologically challenged but don’t be alarmed as it won’t be because your brain hasn’t evolved enough.

You would think that a country this advanced with a highly sophisticated transportation system would make public modes of travel cheap. Think again because unless you have a special train or bus pass you are going to have to pay through your nose to get to your desired destination. Also take into account that on many train stations the route maps of connecting towns and cities are not in English so it’s very troublesome finding the correct platform. What is really bewildering is that it’s cheaper to travel to Hawaii than it is to travel to some domestic localities. Hence, Japanese tourists are quite commonly seen in Europe and the West in general and have even been given the privilege of being named the best tourists in the world.

It’s also ironic how not many people can afford to keep a car in a country that is home to one of the world’s biggest automobile industries. The vehicle in itself is inexpensive but the cost of running it is not. Not only does one have to bear the brunt of high fuel prices but would also have to pay a significant fee for parking space. Hence many people prefer bicycles that are not only cost effective but are also very good exercise.

Realistically speaking though, you can’t count on bicycles if you want to travel a long distance, go shopping or when the weather is bad, so if you ever decide to visit don’t consider it as your only mode of transport.

The Japanese national character is admirable to say the least; embedded in their persona is politeness, respect, equality and fairness. It is very unlikely that you would come across rude staff at offices or department stores, if anything they are polite to the extent that it’s annoying, apologising several times for something as petty as not having cello tape to secure your shopping bags! Sometimes one wonders where all that patience and tolerance comes from.

Not to sound stereotypical but the Japanese people are identical in everything from the way they dress, the homes they live in, the cars they own, the food they eat, the brands they adore and the ethics they comply to. It is indeed a homogenous nation in every respect. It’s almost as though they are fitted with a predesigned chip at birth. This uniformity is perhaps one of the reasons why this nation is so stable, resilient and economically sound. However to befriend them you need to be like them so you might want to kiss your individuality goodbye.

While most Japanese citizens are very humble, they do crave branded goods which are very fundamental to their social status. You will find people particularly the young sporting designer handbags and outfits but it really isn’t a show of their wealth as even the relatively poor have branded goods. For them it has become an absolute necessity to own at least one Louis vuitton handbag.

It’s safe to say that the Japanese are fanatics when it comes to shopping, so much so that most homes have enormous storage space but a very small living space. They buy everything from consumables to clothes to electronics in bulk irrespective of whether those things are even necessary. There is absolutely no denying the fact that places like Harajuku and Akhiabara in Tokyo have some of the world’s best and relatively cheapest buys.

Shopping in department stores is also very fascinating where usually the ground floor is devoted solely to food items with aisles and aisles of well presented fresh foods. Bento boxes (Lunch boxes) with assorted foods such as rice and fish can be purchased at throw away prices after 9 pm. Rest assured you would never starve if you are living in a country like Japan!

So this is just a figment of Japanese life which the media depicts as something out of the world and mind blowing. To be fair, a tad overrated don’t you think?

* Blog * Forum * Archive * Today's Newspaper * In Paper Magazines * Dawn UK Exhibition The Pakistani innovator


If you thought innovation was a word not associated with Pakistan, you would be very wrong. This year, the MIT Technology Review, one of the world’s most prestigious technology publications, included Pakistani Dr Umar Saif, in their global list of the top 35 innovators under 35.

Thirty-two year old Saif, currently an associate professor at the Lahore University of Management Sciences (LUMS), now shares this honour with an elite club including, Mark Zuckerberg of Facebook, Jonathan Ive of Apple, and the co-founders of Google, Larry Page and Sergey Brin.

Saif was propped into the limelight for creating BitMate, which he calls the “poor man’s broadband system” and SMSall.pk, which enables mass SMSes to be sent out.

In Pakistan, the bandwidth of an average landline is about 32 kilobits per second. Assuming the connection doesn’t drop that means it can take more than 20 minutes to download a five-megabyte file. In the US, an average connection can download the same five-megabyte file in less than a second. To overcome this connectivity divide, Saif developed BitMate. The software allows different users in the same area, to pool the bandwidth of their connections to reduce download times, typically by half. Released in February, the software has already been downloaded more than 30,000 times by people in 173 countries.

BitMate and SMSall.pk, were both developed by Dr Saif and a team of his students at LUMS.

“The one thing that every Pakistani, poor or rich, does have is a mobile phone,” said Saif behind his desk at LUMS. “It is the easiest way to communicate and spread a certain message. SMSall can be used on an individual level as well as for marketing or other like purposes.”

More than 4 billion SMSes have been sent using SMSall.pk, by around 2.7 million users. It is now Pakistan’s largest SMS social network. Major political parties, NGOs, schools, and corporations use this platform.

After completing his undergraduate at LUMS in 1998, Saif went on to pursue graduate studies at the University of Cambridge and the Massachusetts Institute of Technology (MIT). Saif then worked and taught at the MIT Computer Science and Artificial Intelligence Laboratory.

He gives much of the credit for his success to the competitive environment at these two institutes. “The quality of students one gets at MIT and Cambridge is very good. It’s a real pleasure working with them,” he said.
This, he thinks is the major difference between people studying at these world-class institutes and here. “They are a different breed altogether,” he admitted. “If I were to ask people to do work at MIT, I wouldn’t have to remind them to work. They don’t need to be told to work hard, they already are hard working.”

“There, one might even take offence if one were reminded more than once,” he added jokingly.

Currently, Saif is an Associate Professor in the Computer Science department at LUMS where he leads a team of students in the Dritte initiative, which aims to create technology that will foster development.

Dr Saif, is now working with this team of students on taking SMSall to the next level. They are working on speech systems that will allow for mass voice messaging. Saif believes it is an essential step in a country where many cannot read or write. Other platforms that Dr Saif has initiated include Geodost.tv and iSamaa.tv, which are powered by SeeNreport, a platform developed in an attempt to give a boost to citizen journalism in Pakistan.

Saif has also founded one of Pakistan’s first start-up incubators in Lahore, Pakistan, called the Saif Center of Innovation.“Not everyone can be a superstar here,” conceded Saif. “A system needs to be in place where every member of the team can be productive.” MIT, he insists works like a well-oiled machine. The researchers have proper funding in place, the strong student body and the availability of your peers means, one knows where to go with one’s ideas.

LUMS has filled in this vacuum to a large extent. Many of his students have helped him with the projects that have won him many awards and distinctions. They are young bright minds and all they need is direction and “they can change our world.”Entrepreneurship is burgeoning in Pakistan like elsewhere and to give it a boost, government support is essential.

But Saif or his Dritte initiative has not received any financial support from the Pakistani government. “Whether or not I am supported by anyone else,” Saif said, “LUMS has always been there for me.” In a press statement following the announcement by the MIT Technology Review, the vice chancellor of LUMS Adil Najam said,

“We are immensely proud of this recognition … Saif’s work demonstrates not only the potential for innovation in technology for development but also the level of enterprise and expertise that already exists within Pakistan and the larger developing world.”

This piece was done by Hosh media contributor Bushra Shehzad. Hosh media is a volunteer based organisation that aims to bring youth voices onto the mainstream media in Pakistan.

The views expressed by this blogger and in the following reader comments do not necessarily reflect the views and policies of the Dawn Media Group.

Please take advantage of this great opportunity for CARE supporters — generous people like you — to have your gift matched dollar for dollar.


You have just five more days to take advantage of our special matching gift opportunity. Every dollar you give now through October 31 will be matched, doubling the power of your tax-deductible gift.

Please take advantage of this great opportunity for CARE supporters — generous people like you — to have your gift matched dollar for dollar.

Every gift between now and the end of the month will be doubled in value, providing much-needed resources for CARE's critical work to help children, families and whole communities working to escape poverty.

Here are just a few examples of what your gift can do when you take advantage of this special offer:
• $50 can send a girl to school for an entire year. Your gift of $50 will be doubled to $100 and can help two girls attend school.
• $100 can train 67 farmers to produce and sell dairy products, such as milk, yogurt and butter. Your gift of $100 will be doubled to $200 and can train 134 farmers.
• $200 can train 3 community health workers to provide obstetric care and lifesaving hospital referrals to expectant mothers. Your gift of $200 will be doubled to $400 and can train 6 health workers.
Girls and women make up the largest portion of poor and uneducated people in the world — that's why it is so critical that we help empower them in the fight against poverty.

You can help women and girls unlock the power they hold within so they can break the cycle of poverty and help create a brighter future for themselves, their families and their communities.

Please give generously today — and double the impact of your gift at the same time!

Thank you,

Helene D. Gayle, MD, MPH
President and CEO, CARE

Monday, October 24, 2011

Coalition of Local NGO, Bangladesh

LONG MARCH- SUNETRA, A call to protect natural resources...






ঢাকা-সুনেত্র (২৮-৩১ অক্টোবর) লংমার্চের প্রচার সমাবেশ ও মিছিল আজ ২৪ অক্টোবর, ২০১১, জাতীয় প্রেসক্লাবের সন্মুখে অনুষ্ঠিত হয়েছে। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন জাতীয় কমিটির আহ্বায়ক ইন্জিনিয়ার শেখ শহিদুল্লাহ ও সদস্য সচিব আনু মুহম্মদ। সমাবেশ শেষে লং মার্চের প্রচার মিছিল প্রেস ক্লাব এলাকা প্রদক্ষিন করে।

--

It’s Time to WRAP for the End of Violence Against Women! By APYNCampaigns


Why violence against women? Why men?
Most guys don’t commit violence against women. Indeed, most agree that physical or sexual assault is completely unacceptable. Yet at least one in three of the women in our lives will be a victim of gender-based violence in their lifetime. This could be our sisters, our mothers, our partners, or our daughters. It could be our classmates, colleagues, co-workers, or our friends.
Violence against women and girls in all its forms – including beatings, abuse, sexual assault or unwanted touching, rape, sexual harassment, genital mutilation, murder, financial or social control and manipulation – is the most widespread, yet hidden, human rights abuse of our time.
Violence against women is not just a women’s issue. Now more and more men and boys throughout the Asia Pacific are recognising the positive and crucial role that they too can play in ending violence against women. Because men very often look to other men as their role models, we need to stand up and speak out against violence and gender inequality. This includes challenging widespread violence-supporting attitudes that allow, and indeed encourage, a minority of men to be violent. When other men make jokes or degrading comments about women, these promote a culture of sexism and inequality which makes violence and violence-supporting attitudes towards women seem normal. Instead, by vocally challenging sexism and violence, we can show others that being a man shouldn’t mean better treatment than the female half of the population. Being a man shouldn’t mean sex on demand. Being a man shouldn’t mean bursting into fits of jealous rage when our partner socialises with other men, or wants to spend time with their family and friends.
Being a man should mean, not only that we won’t COMMIT violence against women, but also that we will not EXCUSE or REMAIN SILENT about violence against women.

Sunday, October 23, 2011

Press Release from POET FORUM Bangladesh

‘আদিবাসী কখনো বাঙালি হতে পারে না’

পাহাড়ে আদিবাসী বিভিন্ন সংগঠনের মধ্যে মতাদর্শগত বিরোধ, বিভেদ এমনকি বিরোধের চূড়ান্ত পর্যায় পারস্পরিক হানাহানি থাকলেও সংবিধানের পঞ্চদশ সংশোধনীকে কোনো পক্ষই মেনে নিতে পারেনি। বরং তারা আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকারের পাস করা সংবিধান সংশোধনীকে প্রত্যাখান করেছে। আঞ্চলিক রাজনৈতিক দল জনসংহতি সমিতি (এম এন লারমা) ও ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট (ইউপিডিএফ) এবং আদিবাসী সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা এই মতামত ব্যক্ত করেন।
খাগড়াছড়ির বাসিন্দা সমাজসেবক ধীমান খীসা বলেন, ‘পঞ্চদশ সংশোধনীর মাধ্যমে সকল সংখ্যালঘু জাতিগোষ্ঠীকে বাঙালি হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। একজন বাঙালি যেমন চাকমা, মারমা বা ত্রিপুরা হতে পারে না, তেমনি একজন আদিবাসী কখনো বাঙালি হতে পারে না।’ তিনি ৭২ সালের সংবিধানের কথা স্মরণ করে দিয়ে বলেন, সে সময়েও আদিবাসীদের বাঙালি হওয়ার কথা বলা হয়েছিল। এর ফল কি হয়েছিল তা সবার জানা। তিনি বলেন, পঞ্চদশ সংশোধনীতে আদিবাসীদের সম্পূর্ণরূপে অস্বীকার করা হয়েছে এবং তাঁদেরকে দ্বিতীয় শ্রেণীর নাগরিকে পরিণত করা হয়েছে। মারমা উন্নয়ন সংসদ কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক সাথোয়াইপ্রু মারমা বলেন, ‘কার্যধারা ২ (২) সম্পূর্ণভাবে উপেক্ষা করে কমিটি আদিবাসী প্রশ্নে মনগড়া সুপারিশ করেছে। কমিটি আদিবাসী প্রশ্নে কারও মতামত নেওয়ার প্রয়োজন বোধ করেনি। সে জন্য কমিটির ইচ্ছেমাফিক সুপারিশ করেছে। এই পঞ্চদশ সংশোধনীতে আদিবাসীদের বাঙালি হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে, ধর্মীয় ও নাগরিকত্ব প্রশ্নে আদিবাসীরা এখন দ্বিতীয় শ্রেণীর নাগরিকে পরিণত হয়েছে। সংবিধানে এখন আদিবাসীদের অস্বীকার করে উপজাতি, ক্ষুদ্র জাতিসত্তা, নৃ-গোষ্ঠী হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে, যার কোনো সংজ্ঞা দেওয়া হয়নি।’
জনসংহতি সমিতির (এম এন লারমা) কেন্দ্রীয় যুগ্ম আহ্বায়ক ও পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদের সদস্য সুধাসিন্ধু খীসা বলেন, ‘আদিবাসীদের সাংবিধানিকভাবে বাঙালি বানানো হয়েছে। সংবিধানের ৩৮ নম্বর ধারা সংশোধনী খুবই আপত্তিকর ও সন্দেহজনক।’ তিনি বলেন, ‘এ ধারায় পাহাড়ের যেকোনো আন্দোলন-সংগ্রাম সরকার বন্ধ করে দিতে পারবে। এটা মানুষের মৌলিক অধিকারের পরিপন্থী।’ ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফন্টের (ইউপিডিএফ) তথ্য ও প্রচার শাখার মুখপত্র নিরন চাকমা বলেন, ‘সংখ্যালঘু জাতিসত্তা কি নামে পরিচিত হবে তা নিজেরাই নির্ধারণ করবে। চাপিয়ে দিয়ে কোনো পরিচিতি কখনোই গ্রহণযোগ্য হবে না