Saturday, December 3, 2011

সুন্দরবনে রয়েছে ৪শ ৪১টি বাঘ সুন্দরবনে বাঘ সংরক্ষণে দু’দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ কর্মশালা-ROYAL BENGAL TIGER

শত বছর ধরে অস্থিত্ব হুমকির মুখে থাকা সুন্দরবনের রয়েল বেঙ্গল টাইগার (বাঘ) সংরক্ষণে করণীয় ও সর্বস্তরের মানুষের মধ্যে সচেতনা সৃষ্টির লক্ষ্যে মংলায় শুরু হয়েছে দু'দিনব্যাপী 'টাইগার বায়োলজী এন্ড ষ্ট্রে টাইগার ইমমোবিলাইজেশন' শীর্ষক প্রশিক্ষণ কর্মশালা। বন অধিদপ্তরের আয়োজনে ও 'গ্লোবাল টাইগার ইনিশিয়েটিভ'র সহযোগিতায় শুক্রবার সকালে পূর্ব সুন্দরবন বিভাগের রেস্টহাউজে এ কর্মশালার উদ্বোধন করেন খুলনা সার্কেলের বন সংরক্ষক মোঃ আকবর হোসাইন। এ প্রশিক্ষণ কর্মশালায় সহকারী প্রধান বন সংরক্ষক মোজাহারুল ইসলাম, পূর্ব সুন্দরবন'র বিভাগীয় কর্মকর্তা মিহির কুমার দো ও চাঁদপাই রেঞ্জ কর্মকর্তা সাহাবুদ্দিনসহ বনবিভাগের কর্মকর্তা, সাংবাদিক ও জনপ্রতিনিধিরা অংশ নেয়। পৃথিবীর ১৩টি দেশে মোট বাঘের সংখ্যা সাড়ে ৩ হাজার, এরমধ্যে বাংলাদেশের সুন্দরবনে রয়েছে ৪শ ৪১টি বাঘ। যা রয়েছে বর্তমানে হুমকির মুখে তাই জাতীয় এ সম্পদ রক্ষায় বিশেষজ্ঞরা বাঘ সংরক্ষণে সকলের সহযোগীতা প্রয়োজন বলে মত দেন। কর্মশালায় বিশেষজ্ঞরা আরো বলেন, ১ শ আগে পৃথিবীতে বাঘের সংখ্যা ছিল প্রায় ১ লাখ, আর ১শ বছর পর বর্তমানে সেই সংখ্যা এখন মাত্র সাড়ে ৩ হাজার। এভাবে বাঘের সংখ্যা কমতে থাকলে আগামী ২০ বছরে বিশেষ করে সুন্দরবন বাঘ শূণ্য হয়ে পড়বে। এতে পরিবেশের পাশাপাশি ধ্বংস হবে সুন্দরবন। কারণ সুন্দরবনের ৫০ ভাগ সম্পদ রক্ষা পায় বাঘের কারণে আর বাকী ৫০ ভাগ রক্ষায় ভূমিকা পালন করে থাকে বন বিভাগ।

'Tipaimukh a death trap for us'-DR. AKBAR ALI KHAN

Expressing concern over Tipaimukh project, former finance advisor to the caretaker government Akbar Ali Khan on Saturday called the project a "death trap" for Bangladesh. "The environmental catastrophe that will be caused by Tipaimukh dam will be no less than a death trap for our country," Akbar Ali said at a round table conference at a city hotel. "The Tipaimukh issue should be discussed with the Indian government regardless of India's assurances." Akbar alleged that Tipaimukh hydroelectricity project is one of the steps in New Delhi's schemes to produce 98,000 MW electricity in northeast India. "The Indian government will go ahead with the project even if the Indians oppose it," Akbar said. He said Bangladesh should not compromise on this issue and urged the government to collect proper information about the project. "We hold both legal and moral standing, so we should not compromise," he said. Akbar also said Bangladesh does not even know the names of Indian government's 21 ongoing hydroelectricity projects on the Teesta River. "Our geological position will be altered if India continues to build dams," he said. According to Akbar, India is neither a friend nor an enemy of Bangladesh. The media had reported on Nov 19 that the Indian state of Manipur had signed contracts with several Indian government agencies to build the controversial Tipaimukh dam on the Barak River, which flows into Bangladesh as Surma. On Nov 22, New Delhi assured Dhaka that it would not take steps on the proposed hydropower plant that would have adverse impact on Bangladesh in the wake of media reports regarding India's signing of a promoter's agreement between India's state-owned NHPC Limited, Satluj Jal Vidyut Nigam Limited and the state government of Manipur. The following day, BNP chief Khaleda Zia sent a letter to Indian prime minister Manmohan Singh, urging him to conduct a joint survey before starting work on Tipaimukh dam and the hydroelectric power plant project. The Indian prime minister Manmohan Singh has responded to her letter on the Tipaimukh dam on Nov 24 but BNP has not yet published the contents of the letter. India's northeastern state Manipur recently signed an agreement with state-owned NHPC Ltd and Satluj Jal Vidyut Nigam Ltd (SJVN) on Oct 22 to construct a 1,500MW Tipaimukh hydroelectric power project in Manipur. Earlier, foreign minister Dipu Moni welcomed the initiative of BNP to resolve the dispute, but also criticised for 'not taking any steps during BNP's tenure'. Detailing the government steps, the foreign minister said they had proposed for joint study on Tipaimukh project. The foreign minister quoting an aide-memoir sent by Indian authorities in May 2009 said, "This project (Tipaimukh project) does not have any component of irrigation … thus there is no point of water diversion." A section of environmentalists, both in Bangladesh and India, are opposed to the Tipaimukh project. According to them, the dam over the Barak River would significantly bring down flow of water in its tributaries Surma and Kurshiara in Bangladesh. On Friday, the Indian government has reiterated to the Prime minister Sheikh Hasina's advisors Gowher Rizvi and Mashiur Rahman that India would not take steps on the proposed project which would adversely affect Bangladesh and added that New Delhi was ready to hold discussion with Dhaka on the issue. BNP enforced a dawn-to-dusk shutdown in Sylhet regarding this issue on Dec 1.

ZIA BRIGATE- KURIL HARTAL

BANGLADESH MOBILE DOWNLOADING BUSINESS ASSOCIATION

Bangladesh Mobile Loading Businesse Association

Press Release On Chittagong Hill Tructs Bangladesh

Press Release On Debate Organized By TI-B and DUDS

Wednesday, November 30, 2011

Pakistan Industrial group stresses govt to expedite work on Iran gas pipeline

LAHORE: Pakistan Industrial and Traders Associations Front (PIAF) has stressed the government to expedite work on Pakistan-Iran gas pipeline and complete the project without any further delay to overcome the acute gas shortage being faced by the industry.

In a statement issued here on Tuesday, the PIAF Chairman, Engineer Sohail Lashari said that the government should not give any wait the suggestions of the US authorities on Pak-Iran gas pipeline as taking care of national interests is the duty of the government.

He said that due to gas shortage, the industrial process has come to a grinding halt while because of low productions the industrial growth is also fast shrinking.

He said that low job creating phenomenon has taken hostage the entire society which resultantly is giving birth to a number of social issues therefore early completion of this project of national importance.

The PIAF Chairman said that despite being a frontline ally of the United States in its war against terrorism and suffering a huge monetary and colossal loss, drone attacks have become order of the day. And the most recent NATO attack on Pak forces has jolted the very basis of the country’s sovereignty.

Engineer Sohail Lashari said that the government should stop taking dictations and try to implement home grown policies in the larger interests of the country and its people.

He said that the multiple internal and external challenges being faced by the country calls for a wholesome approach and incentives to the private sector that is considered as engine of growth in all the developed economies.

The PIAF Chairman also urged the government to initiate work on Kalabagh Dam so that the masses could get rid of high electricity tariff.

BANGLADESH MOBILE PHONE LOADER ASSOCIATION

Monday, November 28, 2011

Russia's troubled Mars probe highlights falling space debris hazard

The ongoing plight to save Russia's Phobos-Grunt Mars mission from a destructive nose-dive to Earth underscores a widespread anxiety of late regarding satellite leftovers tumbling onto terra firma. The mission, a plan to visit Mars' moon Phobos, collect samples of its dirt, and return them to Earth, derailed when it stalled in Earth orbit after liftoff Nov. 8. Long distance diagnosis of Phobos-Grunt's overall health is underway. Operators of the European Space Agency’s (ESA) 15-meter diameter dish antenna at Perth, Australia — quickly modified to support communications with Phobos-Grunt-made repeat contact with the spacecraft on Nov. 22 and Nov 23, offering a promising sign that it may still be possible to control the vehicle. However, another attempt on Nov. 24 to make contact with the probe failed. "Last night we had a good pass over Perth and succeeded again in activating the downlink," Wolfgang Hell, the service manager overseeing ESA support to Russia’s NPO Lavochkin, the main contractor of the Phobos-Grunt project, told SPACE.com in a Nov. 24 email. "We got a strong signal and acquired telemetry. This night we had no success so far." But whether or not the errant interplanetary probe can be resuscitated — perhaps permitting a controlled re-entry to Earth, or even sending the craft toward a new destination — remains to be seen. Meanwhile, the 14-ton (13-metric ton) spacecraft is adrift, loaded with roughly 8 tons (7.5 metric tons) of hydrazine and nitrogen tetroxide fuels. If the spacecraft's numerous propellant tanks are made of aluminum, they are likely to fail early when it encounters the heat of re-entry. All that fuel — whether frozen or unfrozen — shouldn't make it to Earth's surface, according to re-entry analysts. However, analysts must account for Phobos-Grunt's nose-cone shaped descent vehicle that was built to bring back to Earth bits and pieces of Phobos, one of the two moons of Mars. It's designed to fall through Earth's atmosphere and make a hard landing, sans parachute. The probe also totes very small amounts of the radioactive element cobalt-57. Then there's a bit of international embarrassment. Phobos-Grunt carries a hitchhiking Chinese Mars orbiter, Yinghuo-1, and the Living Interplanetary Flight Experiment funded by the U.S.-based Planetary Society. If Phobos-Grunt does re-enter Earth's atmosphere, there will undoubtedly be some surviving spacecraft components. Just how much is a guessing game. The good news is that most of the Earth's surface is covered by water, and much of the remainder is unpopulated. Still, uncontrolled re-entries of space hardware do pose a small but estimable risk to ground-dwellers. If all this sounds a tad familiar, flip your calendar back to NASA's Upper Atmosphere Research Satellite (UARS), which fell back to Earth in uncontrolled mode over the Pacific Ocean in September. That re-entry was followed a month later by Germany's ROentgen SATellite (ROSAT), which fell in over the Bay of Bengal. Orbital debris experts estimated that, collectively, those two satellites likely splat the Earth with over 2 1/2 tons of flying wreckage, including mirrors, batteries, chunks of reaction wheels and fuel tanks. For its part, NASA is endorsing a new approach in spacecraft design to lessen the amount of surviving components during re-entry — an idea termed "Design for Demise," or D4D in space agency short-hand. Nicholas Johnson, NASA's chief scientist for orbital debris at the Johnson Space Center in Houston, said that objects that have commonly survived re-entry in the past are propellant and pressurant tanks, as well as elements of reaction wheel assemblies. "These are the routine, regular culprits," he told SPACE.com. NASA's Goddard Space Flight Center in Greenbelt, Maryland has been at the forefront in championing the D4D concept. "One of the ways that we can try to reduce the surviving debris is to redesign an object so that it will demise," said Scott Hull an orbital debris engineer at NASA Goddard. "Sometimes it is possible to redesign a component to a different shape, such that it will re-enter faster, thus generating more heat during re-entry." Hull said common materials used in spacecraft components that take high heat loads include titanium, stainless steel, glass, ceramics, and beryllium. Conversely, graphite-epoxy composites, aluminum, and polymers are far more vulnerable to intense temperatures, Hull said. Flywheels and fuel tanks Flywheels are a recurring survivor of reentry, but don't necessarily have to be, Hull pointed out. Off-the-shelf reaction wheels sometimes use stainless steel or titanium flywheels which allow higher torque or faster wheel speeds in a small diameter. "We've found that the same torque can often be created by using a larger diameter flywheel made from aluminum, which will demise readily," Hull reported during an orbital debris meeting earlier this year.

MULADI SOCIAL AND CULTURAL ORGANIZATION IN DHAKA INVITATION

BANGLADESH PUSTAK PRAKASHAK O BIKRETA SOMITEE [BAPUS]

PRESS RELEASE FROM IAPSCC

সাম্রাজ্যবাদবিরোধী ঢাকা সম্মেলনের প্রথম দিনের উদ্বোধনী শেষে, বর্নাঢ্য র‌্যালি ঢাকার রাজপথ প্রদক্ষিন কেরে। অতপর: ঢাকা মহানগর নাট্যমঞ্চে দিনব্যাপি আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। দেশে দেশে সাম্রাজ্যবাদবিরোধী জঙ্গী আন্দোলন গড়ে তোলার প্রত্যয় ঘোষণা বাংলাদেশের মাটিতে সাম্রাজ্যবাদবিরোধী জঙ্গি আন্দোলন গড়ে তোলার দুর্বার প্রত্যয় ঘোষণা করে শুরু হল তৃতীয় আন্তর্জাতিক সাম্রাজ্যবাদবিরোধী ঢাকা সম্মেলন। ২৫টি দেশের সংগ্রামী নেতৃত্বের উপস্থিতিতে দশ হাজারেরও বেশি মানুষের মিলিত কণ্ঠে বলিষ্ঠভাবে উচ্চারিত হল দেশে দেশে সাম্রাজ্যবাদী আগ্রাসন, লুণ্ঠন, দখল, অবরোধ ও যুদ্ধের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ সংগ্রাম বেগবান করার অঙ্গীকার, পুঁজিবাদ-সাম্রাজ্যবাদের চির অবসানের বার্তা। ইন্টারন্যাশনাল এন্টি-ইম্পিরিয়ালিস্ট এন্ড পিপলস সলিডারিটি কোঅর্ডিনেটিং কমিটি (IAPSCC) এবং বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদ এর যৌথ উদ্যোগে আজ থেকে ঢাকা মহানগর নাট্যমঞ্চে শুরু হয়েছে সাম্রাজ্যবাদবিরোধী আন্তর্জাতিক সম্মেলন। বেলা ১২টায় ঢাকা মহানগর নাট্যমঞ্চের খোলা ময়দানে সুবিশাল স্টেজে বাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক এবং আইএপিএসসিসি’র সেক্রিটারিয়েট মেম্বার কমরেড খালেকুজ্জামান এর সভাপতিত্বে শুরু হয় সম্মেলনের উদ্বোধনী অধিবেশন। এ সময় বিপুল করতালি ও মুহুর্মুহু শ্লোগানের মধ্যে মঞ্চে আসন গ্রহণ করেন আইএপিএসসিসি’র সাধারণ সম্পাদক কমরেড মানিক মুখার্জী, নেপালের ইউনিফায়েড কমিউনিস্ট পার্টি (মাওবাদী)’র কেন্দ্রীয় কমিটির স্ট্যান্ডিং কমিটির সদস্য ও সাবেক উপ-প্রধানমন্ত্রী কৃষ্ণ বাহাদুর মাহারা, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ওয়ার্কার্স ওয়াল্ড পার্টির সম্পাদক মণ্ডলীর সদস্য ও আইএপিএসসিসি’র সেক্রেটারিয়েট সদস্য কমরেড সারা ফ্লাউন্ডার্স-সহ উত্তর কোরিয়া, পাকিস্তান, শ্রীলংকা, সিরিয়া, মিশর, তুরষ্ক, জর্ডান, ইরান, লেবানন, ফ্রান্স, কানাডা, মরক্কো, মৌরিতাস, কাতার সহ ২৫টি দেশ থেকে আসা নেতৃবৃন্দ। সভাপতির ভাষণে কমরেড খালেকুজ্জামান বলেন, সাম্রাজ্যবাদী বহুজাতিক কোম্পানি এবং সাম্রাজ্যবাদের কাছে নতজানু লুটেরা শাসকগোষ্ঠীর কবল থেকে তেল-গ্যাস-কয়লাসহ প্রাকৃতিক ও খনিজ সম্পদ রক্ষার দাবিতে আমরা লড়াই করছি। আর আমেরিকার মাটিতে মানুষ লড়ছে বিশ্ব পুঁজিবাদী-সাম্রাজ্যবাদী অর্থনীতির প্রাণকেন্দ্র ওয়ালস্ট্রিট দখল করার ডাক দিয়ে। এ উভয় আন্দোলনের লক্ষ্য একটাই - শোষণ থেকে মুক্তি, সাম্রাজ্যবাদের যুদ্ধ-লুটতরাজ-দখলদারিত্ব থেকে মুক্তি।” তিনি বাংলাদেশে পুঁজিবাদ-সাম্রাজ্যবাদ বিরোধী বৃহত্তর জঙ্গী আন্দোলন গড়ে তোলার জন্য সকল বাম-প্রগতিশীল-দেশপ্রেমিক সাম্রাজ্যবাদ বিরোধী সংগঠন ও ব্যক্তির প্রতি উদাত্ত আহ্বান জানান। আইএপিএসসিসি’র সদস্যসচিব কমরেড মানিক মুখার্জী তাঁর সংক্ষিপ্ত ভাষণে বলেন, তিউনেশিয়া থেকে মিশর, আমেরিকার ওয়ালস্ট্রিট দখল - সর্বত্র আজ পুঁজিবাদ-সাম্রাজ্যবাদের বিরুদ্ধে মানুষ বিক্ষোভে ফেটে পড়ছে। এমন পরিস্থিতিতেই এ সম্মেলন অত্যন্ত তাৎপর্য নিয়ে আমাদের সামনে উপস্থিত হয়েছে। তিনি বলেন, দেশে দেশে চলমান পুঁজিবাদ-সাম্রাজ্যবাদবিরোধী আন্দোলনের সাথে সংহতি জানিয়ে বাংলাদেশের মাটিতেও যদি সাম্রাজ্যবাদবিরোধী জঙ্গি আন্দোলন গড়ে তোলা যায় তবেই এ সম্মেলন সার্থক হবে। আইএপিএসসিসি’র সভাপতি রামজে ক্লার্ক শারীরিক অসুস্থতার জন্য উপস্থিত থাকতে না পেরে আন্তরিক দুঃখপ্রকাশ করে তাঁর লিখিত বার্তায় বলেন, বাংলাদেশে অনুষ্ঠিত এবারের সম্মেলন আন্তর্জাতিক এবং জাতীয় - সমস্ত দিক থেকেই গুরুত্বপূর্ণ। বার্তায় তিনি বলেন, “নিকট ভবিষ্যতে সাম্রাজ্যবাদী সংঘাতের অন্যতম প্রধান কেন্দ্র হবে বাংলাদেশ। এখানে অবস্থান নিয়েই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়াকে নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করবে। সেইসাথে চীনকে আয়ত্ত্বে এনে তার অধিভুক্ত অঞ্চল হিসেবে এর উপর কর্তৃত্ব করার চেষ্টা অব্যাহত রাখবে। আপনারা নিশ্চিতভাবে ধরে নিতে পারেন যে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তার সমস্ত কূটকৌশল ও সর্বশক্তি নিয়েই এই ভূ-খণ্ডে উপস্থিত হবে। তাই আমি আশা করি এই ভবিষ্যত পরিস্থিতি সম্পর্কে আপনারা সবাই গভীর মনোযোগ দেবেন।” তাঁর লিখিত বক্তব্য পাঠ করে শোনান কমরেড সারা ফ্লাউন্ডার্স। সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে সারা ফ্লাউন্ডার্স মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে মানবতা, শান্তি এবং সভ্যতার শত্রু হিসাবে আখ্যা দিয়ে বলেন, দেশের অভ্যন্তরেই আমরা মার্কিন শাসকদের সাম্রাজ্যবাদী নীতির বিরুদ্ধে লড়ছি। এরপর কমরেড পুষ্প কমল দহল প্রচন্ড’র পাঠানো বার্তা পাঠ করেন কৃষ্ণ বাহাদুর মাহারা। কমরেড প্রচন্ড তাঁর বার্তায় বলেন, ইচ্ছা এবং পরিকল্পনা থাকার পরও এ আয়োজন আমরা করতে পারিনি। ব্যক্তিগতভাবে আমার প্রবল আগ্রহ ছিল সম্মেলনে উপস্থিত থাকার। কিন্তু নেপালের জটিল রাজনৈতিক পরিস্থিতির কারণে তা-ও সম্ভব হয়ে উঠল না। তিনি বলেন, ইউনিফায়েড কমিউনিস্ট পার্টি অব নেপাল (মাওবাদী) সমস্ত রকম শোষণ-নিপীড়নের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সকলের সাথে এক কাতারে থাকতে অঙ্গীকারাবদ্ধ। অনুষ্ঠানের শুরুতে মঞ্চের পাশে নির্মিত শহীদ বেদীতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয় এবং সাম্রাজ্যবাদবিরোধী, যুদ্ধবিরোধী গণতন্ত্র ও শোষণমুক্ত সমাজ প্রতিষ্ঠার লড়াইয়ের শহীদদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। এরপর নেতৃবৃন্দ আইএপিএসসিসি ও অংশগ্রহণকারী প্রতিটি দেশের পক্ষ থেকে বর্ণিল বেলুন উড়িয়ে দিয়ে সম্মেলনের উদ্বোধন ঘোষণা করা হয়। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন কমরেড বজলুর রশীদ ফিরোজ। সম্মেলনে ২৫টি দেশ থেকে প্রায় দেড় শতাধিক ডেলিগেট অংশ গ্রহণ করছেন। আগামী দুই দিন নাট্যমঞ্চের কাজী বশীর মিলনায়তন ও শিল্পকলা একাডেমীর মিলনায়তনে বিষয়ভিত্তিক সেমিনার অনুষ্ঠিত হবে। ২৯ নভেম্বর বিকেলে কাজী বশির মিলনায়তনে ‘ঢাকা ঘোষণা’ গ্রহণের মধ্য দিয়ে সম্মেলনের আনুষ্ঠানিক সমাপ্তি ঘোষণা করা হবে। সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও আইএপিএসসিসি’র সদস্য কমরেড মুবিনুল হায়দার চৌধুরী, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির সভাপতি কমরেড মঞ্জুরুল আহসান খান, সাধারণ সম্পাদক মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম, জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনু, ভাষা সৈনিক আব্দুল মতিন, সাংবাদিক সৈয়দ আবুল মকসুদ আহমেদ, বিমল বিশ্বাস, অধ্যাপক আকমল হোসেন, অধ্যাপক আবিদুর রেজা, অধ্যাপক হেলাল উদ্দিন খান আরেফিন, জোনায়েদ সাকী, সাইফুল হক, শুভ্রাংশু চক্রবর্ত্তী, মাহমুদুর রহমান বাবু, হামিদুল হক, মোজাম্মেল হক তারা, রাগীব আহসান মুন্না, শ্রমিক নেতা শহীদুল্লাহ চৌধুরী, বাদল খান, মেজবাহউদ্দীন আহমেদ, আব্দুল কাদের, বাবুল বিশ্বাস, এড. জাহেদুল হক মিলু, রাজেকুজ্জামান রতন, নজরুল ইসলাম, এড. আব্দুস সালাম, ডা. ফায়জুল হাকিম লালা, সামসুজ্জামান সেলিম, রেজাউর রশীদ খান, আবু হামেদ সাহাবুদ্দীন, ফুলবাড়ী গণঅভ্যুত্থানের নেতা আমিনুল ইসলাম বাবলু প্রমুখ।

Sunday, November 27, 2011

JP IS SCARED FROM THE CONFLITING POLITICS IN BANGLADESH


BANGABANDHU JATIYO JUBA PARISHAD


The 2012 Election and the Republicans' Foreign Policy


The Republican presidential candidates gathered in South Carolina on Saturday night to dive into a topic they had largely skirted: foreign policy. Their exchanges followed a predictable rhythm: They were long on criticism of President Barack Obama and promises to do better and short on nuance and complexity.

That balance works far better when campaigning than when governing, however. On the rare occasions that they talk to voters about international issues, the GOP candidates offer up a standard indictment of Obama's foreign policy: The president has forsaken Washington's friends, coddled its adversaries, and failed to understand America's exceptional power to do good in the world. If elected, they pledge to deliver a string of foreign policy successes. Iran would buckle to America's will and call off its nuclear program. Pakistan would end its support for terrorist groups and back U.S. policy. U.S. forces would break the Taliban in Afghanistan. Regime change would come to Syria. China would end its predatory trade practices. In short, everything would be perfect.

These promises fly in the face of the conventional wisdom that frames most of the GOP field as isolationist. True, polls show that the number of Americans who believe Washington "should pay less attention to problems overseas and concentrate on problems at home" has grown in recent years. That has not meant, however, that GOP candidates favor disengaging from the world. (There is, of course, the notable exception of Congressman Ron Paul, who on Saturday night made his familiar argument that America's far-flung overseas operations do more to threaten its security than advance it.)
Put simply, GOP candidates have failed to acknowledge the dispersion of economic, political, and even military power resulting from the onward march of globalization.

In fact, most of the GOP presidential candidates are internationalists intent on pursuing an activist foreign policy -- and in that respect, they fall well within the Republican Party's foreign policy tradition of the past half century. This is not to say that the candidates march in lockstep on specific issues; they frequently differ in approach, priority, and tone. Mitt Romney and Newt Gingrich say that a military strike on Iran should be an "option" to stop its nuclear program; Herman Cain, meanwhile, "would not entertain military opposition." Jon Huntsman wants fewer troops in Afghanistan, because America's "future is not in the Hindu Kush"; Rick Santorum favors continuing the current surge until the "Taliban is a neutered force." Governor Rick Perry proposes cutting off all aid to Pakistan; Congresswoman Michele Bachmann argues that that is a bad idea. Nonetheless, they all see a critical role for active U.S. leadership abroad.

Actually, each GOP candidate shares far more of Obama's worldview than he or she would care to admit. With the exception of climate change -- a topic even the White House seldom mentions these days -- the president and his critics all see the same dangers and threats: Afghanistan, Pakistan, Iran, North Korea, and the rise of China. The GOP candidates disagree with the president on the tactics of how to advance America's interests in the world, not what those interests are.

Would the GOP strategies have more success in achieving Obama's goals than he has had? They have yet to make a compelling case that they would. Romney is the only candidate to produce a white paper spelling out his foreign policy vision in detail. As such documents go, it is a fine piece of work that soberly acknowledges the array of challenges facing Washington in the coming years. Romney is also the only candidate to assemble what amounts to a shadow National Security Council staff. His advisers have impressive credentials and extensive government experience, many having served previous Republican presidents.

Even so, Romney's approach leaves much to be desired. Its proposals are vague: On the revolts in the Middle East, he calls for the United States "to train all of our soft-power resources on ensuring that the Arab Spring does not fade into a long winter." On the end of the war in South Asia, he argues for a "full review of our transition to the Afghan military," a process that could lead to any outcome in Afghanistan. Rhetoric is easy to produce; workable (much less successful) policies are far more difficult.

To be sure, the Obama administration's own strategy has not solved all the problems it identified upon coming to office -- it has failed to end Iran's nuclear weapons program, whip Pakistan into shape, or force China to revalue its currency. But these outcomes cannot be reduced to ineptitude, however satisfying it may be for opposition politicians to claim. Obama's failures have had much more to do with the fact that U.S. leverage is more limited than the GOP candidates acknowledge. So-called crippling sanctions on Iran, which several of the candidates have called for, would not succeed without the cooperation of China, Russia, and numerous other countries. But such cooperation could be purchased only at a high price, if at all. Washington may not be able to live with Pakistan, but if it wants to succeed in Afghanistan, it cannot live without it, either. The United States can punish China for its trade and currency practices, but Beijing has numerous ways to retaliate. The list goes on.

Put simply, the GOP candidates have failed to acknowledge the dispersion of economic, political, and even military power resulting from the onward march of globalization. The United States is, and will remain, the single most powerful and influential global force for some time. That does not mean, however, that its friends and allies will automatically rally to its leadership, or that its adversaries will melt in the face of a confident assertion of will. Many of today's foreign policy problems cannot be solved through the unilateral application of American power, so figuring out how to generate cooperation is among the greatest strategic challenges the United States faces. And on that point, not a word was uttered on Saturday night.

That may be because Bachmann, Cain, Gingrich, Huntsman, Perry, Romney, and Santorum are not ready to grapple with such complexity. But it may also be because, simply put, voters these days are not asking for it. Unlike in 2004 or 2008, when the wars in Iraq and Afghanistan were front and center and the pain of 9/11 was still fresh, next November's election will most likely turn largely on domestic issues. Voters only want to know that a candidate possesses basic foreign policy competence. They will leave the details and complexities to others.

But the fact is that crafting a successful foreign policy should matter to the eight GOP candidates who were on stage in South Carolina on Saturday night -- especially in a world in which the United States is increasingly vulnerable to pressures from rising and rogue states. And it should matter on the stump in the coming months. One of them could be the next president of the United States, and if he or she fails to understand how to navigate an increasingly complicated world, campaign pledges, however earnestly presented, will not withstand even the first foreign crisis, something that will no doubt arrive on day one in office, to be followed inevitably by another.

(Photo: Chris Keane / Courtesy Reuters)

বিএনপির অনেক নেতা আ. লীগে আসতে চাচ্ছে


আওয়ামী লীগ ছাড়লে বিএনপিতে সম্মানজনক পদ দেওয়ার খালেদা জিয়ার ঘোষণার একদিনের মধ্যে আওয়ামী লীগের একজন শীর্ষ নেতা দাবি করেছেন, ওই দলটির অনেক নেতা গোপনে আওয়ামী লীগে যোগ দেওয়ার চেষ্টা করছে।

রোববার রাজধানীতে এক আলোচনা সভায় দলের সবাপতিমণ্ডলীর সদস্য ওবায়দুল কাদের বলেন, “আওয়ামী লীগ ভুলত্র“টির ঊর্ধ্বে নয়, তবে দলে এমন কোনো পাতলা ঈমানের লোক নেই যে কেউ ‘কলা ঝুলিয়ে মুলা দেখালেই’ তারা বিএনপিতে যোগ দিবেন। বরং বিএনপির অনেক শীর্ষ স্থানীয় নেতা আওয়ামী লীগে যোগ দেওয়ার জন্য নিয়মিত যোগাযোগ করছেন।”

বিএনপি চেয়ারপার্সন শনিবার এক জনসভায় আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের তার দলে যোগ দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে বলেন, দলে যোগ দিলে তাদের সম্মানজনক পদ দেওয়া হবে।

খালেদার ওই বক্তব্যের সমালোচনা করে আওয়ামী লীগ নেতা কাদের বলেন, “আপনারা আওয়ামী লীগের সমালোচনা করুন, আপনাদের স্বাগতম। তবে কোনো ধরনের নেতিবাচক অবস্থান নিয়ে জাতিকে বিভ্রান্ত করে গণতন্ত্রকে ধ্বংস করার চেষ্টা করবেন না।”

নব্বইয়ের স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে শহীদ ডা. মিলনের অবদানের কথা স্মরণ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, “যে গণতন্ত্রের জন্য ডা. মিলনসহ আমাদের দেশের অনেক সন্তান রক্ত দিয়েছে, সে গণতন্ত্র প্রধান বিরোধীদল ছাড়া অপূর্ণ। গণতন্ত্রকে শক্তিশালী করতে হলে সরকারি দল এবং বিরোধী দলকে সংসদে এসে এক সঙ্গে কাজ করতে হবে।”

মুক্তি মিলনায়তনে আওয়ামী শিল্পী গোষ্ঠী আয়োজিত আলোচনা সভায় অন্যদের মধ্যে সংগটনের কেন্দ্রীয় সভাপতি সালাউদ্দিন বাদল, ঢাকা জেলার সভাপতি হুমায়ুন কবির মিজি, মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হাই কানু, কৃষকলীগ সাধারণ সম্পাদক এম এ করিম, ছাত্রলীগের উপদপ্তর সম্পাদক তারেক রায়হান প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।