Friday, September 25, 2015

Wednesday, September 23, 2015

Press Release from Dhaka Journalist Union (DUJ)

ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন (ডিইউজে)
Dhaka Union of Journalists (DUJ)
(রেজিঃ নং-বি-৮২৯)

সূত্র ঃ তারিখ ঃ ২৩.০৯.২০১৫

১৮ ডিসেম্বর 
ডিইউজের নির্বাচন 

ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন- ডিইউজের নির্বাহী পরিষদের এক সভা আজ বুধবার সকাল ১১টায় ইউনিয়নের কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়। সভায় ডিইউজের দ্বিবার্ষিক সাধারণ সভা ১৭ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার এবং নির্বাচন ১৮ ডিসেম্বর শুক্রবার অনুষ্ঠিত হওয়ার সিদ্ধান্ত সর্বসম্মতভাবে গৃহীত হয়।
ডিইউজের সভাপতি আবদুল হাই শিকদারের সভাপতিত্বে আলোচনায় অংশ নেন সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম প্রধান, সহ-সভাপতি খন্দকার হাসনাত করিম ও সৈয়দ আলী আসফার, যুগ্ম সম্পাদক শাহীন হাসনাত, প্রচার সম্পাদক আকন আবদুল মান্নান, জনকল্যাণ সম্পাদক আবদুস সেলিম, নির্বাহী পরিষদ সদস্য এরফানুল হক নাহিদ, ও মোঃ শাহজাহান সাজু, বাসসের ইউনিট প্রধান আবুল কালাম মানিক, দৈনিক আমার দেশ ইউনিট প্রধান বাছির জামাল, দৈনিক নয়া দিগন্ত ইউনিট প্রধান ফয়েজ উল্ল্যা ভূঁইয়া, দৈনিক মুক্ত খবরের ডেপুটি ইউনিট প্রধান জসিম মেহেদী প্রমুখ।
নির্বাহী পরিষদের এই সভায় ডিইউজের গঠনতন্ত্র লঙ্ঘন ও শৃঙ্খলা ভঙ্গ করে সংগঠনের সুনাম ক্ষুণœ এবং সাংবাদিক ঐক্য বিনষ্টকারীদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

বার্তা প্রেরক

শরীফ আবদুল গোফরান
দফতর সম্পাদক



জাতীয় প্রেস ক্লাব, ১৮ তোপখানা রোড, ঢাকা-১০০০।

"ARRESTED JOURNALIST SHOUKOT MAHMUD IS NOT GETTING MEDICAL TREATMENT IN THE JAIL



বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা জাতীয় প্রেস কাবের সাবেক সভাপতি শওকত মাহমুদকে চিকিৎসা দেয়ার নির্দেশ দিলেও আদালতের সে নির্দেশনা বাস্তবায়ন করছে না কারা কর্তৃপক্ষ। গতকাল ন্যাশনাল কোর্ট রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন ঢাকার কার্যালয়ে তার আইনজীবী মো: ফরিদুল ইসলাম, একলাছ উদ্দিন ভূঁইয়া, সৈয়দা শাহীন আরা লাইলী কে এম ফজলুল হক সাংবাদিকদের  কথা জানান। আইনজীবীরা বলেন, গতকালও শওকত মাহমুদের চিকিৎসার ব্যবস্থা না করে পল্টন মডেল থানার মামলার ১০ দিনের রিমান্ড শুনানির জন্য ঢাকার সিএমএম আদালতে হাজির করেন। দিন মামলার মূলনথি ঢাকার মহানগর দায়রা জজ আদালতে অন্য আসামির জামিন শুনানি থাকায় শুনানি হয়নি। ঢাকার মহানগর হাকিম মো: আতিকুর রহমান আগামী অক্টোবর শুনানির জন্য তারিখ ধার্য করেন।

আইনজীবীরা বলেন, শওকত মাহমুদের সাথে তার শারীরিক অবস্থা নিয়ে কথা বলেছেন, তিনি তাদেরকে বলেছেন যে, তিনি খুবই অসুস্থ। তার শরীরে রিং পরানো আছে এবং তার তিনটি বাইপাস আছে। ছাড়া তিনি ডায়বেটিস রোগে আক্রান্ত, ব্যাক পেইন, কিডনিতে পাথর জটিল রোগে আক্রান্ত আছেন। গ্রেফতার হওয়ার আগে তিনি থাইল্যান্ড থেকে হার্টের চিকিৎসা করিয়েছেন। আইনজীবীরা বলেন, এসব রোগের কথা আদালতকে জানালে গত --১৫ তারিখে আদালত শওকত মাহমুদকে প্রয়োজনীয় সুচিকিৎসা দেয়ার ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য কারা কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেন। কিন্তু দুঃখের বিষয় সেই নির্দেশনা এখনো বাস্তবায়ন হচ্ছে না। ফলে তার শারীরিক অবস্থা দিন দিন খারাপ হতে চলছে। যেকোনো সময় তার শরীরের মারাত্মক ঘটনা ঘটতে পারে বলে আইনজীবীরা আশঙ্কা করছেন