Saturday, January 31, 2015

"Press Release from PROTIK THEATER "



Majid, Peelkhana

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি নাগরিক অধিকার সংগঠনের মানববন্ধন ঢাকার রেজিস্ট্রেশন কমপ্লেক্সে জনহয়রানি বন্ধ এবং দুর্নীতিবাজ সাব-রেজিস্ট্রারদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনের দাবি

ঢাকার রেজিষ্ট্রেশন কমপ্লেক্সের বিভিন্ন সাব-রেজিষ্ট্রী অফিসের
অনিয়ম-দুর্নীতি ও দলিল করার সময় হয়রানি বন্ধের দাবি জানিয়েছে নাগরিক
অধিকার বিষয়ক বিভিন্ন সংগঠন। আজ সকালে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে আয়োজিত
মানববন্ধনে ঢাকার খিলগাঁও এর সাব রেজিস্ট্রার জাহিদ হোসেন, সুত্রাপুরের
সাব রেজিস্ট্রার সৈয়দ নজরুল ইসলাম, আশুলিয়াসহ ঢাকা রেজিষ্ট্রেশন
কমপ্লেক্সের অন্যান্য সাব-রেজিষ্ট্রারদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন পত্রিকায়
প্রকাশিত অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ খতিয়ে দেখতে দুদক ও আইন মন্ত্রনালয়ের
প্রতি দাবি জানিয়েছেন বক্তারা।
বেসরকারি সংস্থা মিডিয়া ফোরাম ফর হিউম্যান রাইটস এন্ড এনভায়নমেন্টাল
ডেভেলপমেন্ট (মেড) ও সিটিজেন রাইটস মুভমেন্ট আয়োজিত মানববন্ধনে  বক্তারা
বলেন, জমি দলিল করতে গিয়ে হয়রানির ঘটনা নিয়ে বিভিন্ন সময়ে পত্রপত্রিকায়
সংবাদ প্রকাশিত হলেও এ ব্যাপারে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ তেমন একটা
গ্রহন না করার কারনে সাব-রেজিস্ট্রি অফিস গুলোতে অনিয়ম দুর্নীতি বেড়েই
চলেছে। সাব-রেজিষ্ট্রারদের দুর্নীতির কারনে একদিকে যেমন সরকার রাজস্ব
ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে অন্যদিকে হয়রানির শিকার হতে হচ্ছে গ্রাহকদের। সম্প্রতি
ú্রতি দৈনিক কালের কন্ঠ, সমকাল, ইনকিলাব, সকালের খবর ও মানবকন্ঠসহ
বিভিন্ন পত্রিকায় সাব-রেজিষ্ট্রারদের বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশিত হলেও কোন
ব্যবস্থা নেয়ার খবর পাওয়া যায়নি। পত্রিকায় ঢাকা রেজিস্ট্রেশন কমপ্লেক্সের
 মোহাম্মদপুর, সুত্রাপুর, তেজগাও, আশুলিয়া, গাজিপুরের শ্রীপুর,
চট্টগ্রামের টেকনাফ, হাটহাজারি ও পটিয়ার সাব-রেজিষ্ট্রার এবং মানিকগঞ্জের
ঘিওরের সাবরেজিষ্ট্রারসহ বেশ কয়েক জনের বিরুদ্ধে অনিয়ম ও দুর্নীতির
অভিযোগের সংবাদ প্রকাশিত হলেও মন্ত্রনালয় বা আইজিআর অফিসের পক্ষ থেকে এ
বিষয়ে তদন্তের উদ্যোগ গ্রহনের কোন খবর প্রকাশিত না হওয়ায় জনমনে উদ্বেগ
বেড়েছে।
কর্মসুচিতে বক্তব্য রাখেন মেড এর নির্বাহী চেয়ারম্যান প্রকৌশলী শহিদুল
ইসলাম, সিটিজেনস রাইটস মুভমেন্টের মহাসচিব তুসার রেহমান, মেড এর নির্বাহী
পরিচালক রফিকুল ইসলাম সবুজ, উন্নয়ন সাংবাদিক ফোরামের সদস্য শহিদুল ইসলাম
প্রমুখ।

বার্তা প্রেরক

রফিকুল ইসলাম সবুজ
নির্বাহী পরিচালক, মেড

"ACTION OVER CONTINUOUS BLOCKADE After power, cable, internet also snapped at BNP Chairperson Khaleda’s office"










ACTION OVER CONTINUOUS BLOCKADE

After power, cable, internet also snapped at Khaleda’s office



Seven hours into the disconnection of power supply, the authorities severed internet and cable connections to BNP Chairperson Khaleda Zia’s Gulshan office in Dhaka this morning.
The office staff found the cable network snapped when they turned on the TV around 9:00am, said Shamsuddin Didar, a staff of BNP chairperson's media wing.
The internet connection was also severed since that time, Didar told The Daily Star.
During the early hours of today, Dhaka Electric Supply Company Limited (Desco) stopped power supply to Khaleda‘s office.
After stopping the power supply, Moksed Ali, a lineman of Desco, told reporters that he cut BNP chief’s political office’s power line at around 2:42am on instruction from top authorities of Gulshan police. Moksed declined to elaborate further.
Around 4:00am, staff at the office started a generator, Shamsuddin Didar, a staff of BNP chairperson’s media wing, told The Daily Star.
The actions came 11 hours after Shipping Minister Shajahan Khan threatened that water and electricity lines of Khaleda’s office will be disconnected if she did not withdraw blockade by February 2.
On information, reporters rushed to Khaleda’s office and saw total darkness at Khaleda’s Gulshan office where she has been staying since January 3.
A number of police vans, sand, bricks, cement carrying trucks, a water cannon and additional number of police were deployed in front of Khaleda’s office since January 3 midnight in a bid to confine her there.
Police however removed all the barriers and withdrew additional law enforcers on January 18. Khaleda however opted to remain at her office.