Monday, February 20, 2017

আমার বিয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেবরুসি, আমি কি ...



On behalf of Editor incharge
Mashik Muktidooth Media
Peelkhana , Dhaka
Bangladesh

Bangladesh Rural Journalist Association {BRJA}



8 dvj¸b (21 †deª“qvix) gv‡qi fvlv evsjv fvlvi AwaKvi cÖwZôv Ki‡Z m¶g n‡qwQj ïayB †`k †cÖwgK‡`i nv‡Z Av‡›`vj‡bi PvwjKv kw³ wQj e‡j wKš‘ ïi“‡ZB evsjvfvlv w`em Bs‡iRx mb wnmv‡e D`hvc‡bi wcQ‡b GKwU lohš¿| AvR Avš—R©vwZK gvZ…fvlv w`em Dcj‡¶¨ evsjv‡`k gd¯^j mvsevw`K G‡mvwm‡qkb (evgmvG) †K›`ªxq Kvh©vj‡q †Pqvig¨vb gynv¤§` mvLvIqvr †nv‡mb Be‡b gCb †PŠayixi mfvcwZ‡Z¡ Av‡jvPbv mfvq e³viv e‡jb e„wUk †L`vI Av‡›`vjb, gvZ…fvlv evsjv‡K ivóªxq fvlv wnmv‡e ¯^xK…wZ Av`vq I ¯^vaxbZv AR©‡b †`k‡cÖwgK QvÎ, hyeK, K…lK, Kvgvi, Kzgvi, ZvZxmn mKj †gnbwZ gvbyl, †mbvevwnbx, cywjk, Avbmvi wk¶K, †ckvRxex‡`i Dw¾weZ ivL‡Z mvsevw`K I msev` gva¨g ¸i“Z¡c~Y© f~wgKv iv‡L| Av‡jvPbvq e³e¨ iv‡Lb evgmvGÕi wmwbqi fvBm †Pqvig¨vb G¨vWt Avey eKi wQwÏK eveyj Lvb, fvBm †Pqvig¨vb h_vµ‡g wfwc nvi“b Ai iwk`, L›`Kvi gvmy`-DR-Rvgvb, †gvt knx`yj Bmjvg knx`, G GBP Gg Kvgi“¾vgvb, †gvt kwn`yj Bmjvg, gnvmwPe wfwc miKvi wgRvbyi ingvb, hyM¥ gnvmwPe h_vµ‡g †gvt jyrdi ingvb,  Avey eKi wmwÏK, mvsMVwbK mwPe †gvnv¤§` iwdKzj Bmjvg, mnKvix mvsMVwbK mwPe  Avãyj Mdzi, A_© mwPe dvwng Avj b~i, `ßi mwPe Gm Gg e`i“j Bmjvg, cÖwk¶b welqK mwPe †gvnv¤§` ˆmKZ, gwnjv welqK mwPe mvivevb  Zûiv mviv, wbe©vnx m`m¨ Gg G gwR` cÖgyL| mfvcwZ Zvi e³‡e¨ e‡jb GB  HwZn¨evnx RvwZ AvR mvs¯‹…wZK AvMÖvm‡bi Kvi‡Y wef³x n‡q c‡i‡Q|  AvwacZ¨ev` I mvgªvR¨ev‡`i c`‡jnbKvixiv Mbgva¨‡gi ¯^vaxbZv niY K‡i wb‡q‡Q| mvsevw`Kiv wb‡RivB †mjd †mÝvikxc Ki‡Z eva¨ n‡”Q| wePvi wefvM‡K ¯^vaxbfv‡e KvR Ki‡Z w`‡”Q bv| wZwb e‡jb kvmKiv cÖZ¨¶ †fv‡U  wbe©vP‡b fq cvq e‡jB ivR‰bwZK cÖwZc¶‡K ivRc‡_ bvg‡Z †`q bv| wbe©vPbKvjxb ZË¡veavqK miKvi msweavb †_‡K ev` w`‡q‡Q| †`‡ki gvbyl GLb MYZš¿ I bvMixK AwaKvi †_‡K ewÂZ| wZwb e‡jb †h RvwZ AwaKvi cÖwZôvq Kv‡iv Kv‡Q gv_v bZ K‡i bvB, ZvivB AvR eû fv‡M wef³  n‡q civq †`‡k d¨vwmev` kvm‡bi Aemvb n‡”Q bv| wZwb  e‡jb AvR‡Ki GB fvlv w`e‡m MYZš¿ c~Y©cÖwZôv I Mbgva¨‡gi ¯^vaxbZv wdwi‡q Avb‡Z HK¨e× cÖwZ‡iv‡ai A½xKvie× n‡Z n‡e| Ki`iv‡R¨ cwibZ Ki‡Z mv¤cÖ`vwqK m¤cÖwZ aŸsk Ki‡Q| cÖK…Z Acivax‡`i Avovj Ki‡Z ivR‰bwZK †bZvKg©x I m¤úv`K mvsevw`K‡`i wei“‡× wfwËwnb gvgjv K‡i nqivbx Kiv n‡”Q Ges nZ¨vI Kiv n‡”Q| mywcÖg‡KvU cÖv½‡b MÖxK g~wZ© ¯’vc‡bi gva¨‡g GUv †`kevmxi Kv‡Q cwi¯‹vi n‡q †M‡Q| wZwb e‡jb Awej‡¤^ MÖxK g~wZ© mwi‡q †dj‡Z n‡e| wfwc miKvi wgRvbyi ingvb e‡jb AvR‡K †`‡ki gvby‡li evK e¨w³ I †jLvi ¯^vaxbZv bvB| ivRavbx †_‡K gd¯^j ch©š— mvaviY bvMixKiv AcniY n‡”Q, ûgwK aygwK‡Z AvZsKMÖ¯’ wKš‘ †Kvb cÖwZKvi cv‡”Q bv| L›`Kvi gvmy`-DR-Rvgvb e‡jb AvR‡K mgq G‡m‡Q mvsevw`K‡`i ivR‰bwZK gZv`‡k©i D‡×© D‡V †ckvMZ AwaKvi wdwi‡q Avb‡Z HK¨e× nevi| wZwb e‡jb G‡`‡ki gvbyl GK Avj­vn Qvov Ab¨ Kv‡iv Kv‡Q gv_v bZ K‡i bv| wZwb e‡jb ZvB gymjgvb‡`i g‡a¨ wef³x  Ki‡Z m¶g nIqvq d¨vwmev`‡`i †`ŠivZœ e„w× ‡c‡q‡Q| Av‡jvPbv mfv †k‡l e„wUk †L`vI Av‡›`vjb, fvlv Av‡›`vjb, ¯^vaxbZv hy‡× I MYZvwš¿K Av‡›`vj‡b hviv kvnv`vr eiY K‡i‡Q Zv‡`i AvZœvi gvM‡divZ Kvgbv K‡i †`vqv Kiv nq| Zviv gnvb Avj­vn cv‡Ki Kv‡Q gybv‡dK I †gvk‡iK‡`i Pµvš— †_‡K †`kevmx‡K i¶vi mvnvh¨ Kvgbv K‡ib|

evZ© †cÖiK


(Gm. Gg e`i“j Bmjvg)
`ßi mwPe|
Sangbadik Majid, Peelkhana 1 NO Gate, Dhaka
01989970851

Press Release Socialist Student Front



Sangbadik Majid
Peelkhana Dhaka

Press elease from Democratic Alliance






gyw³hy‡×i †PZbv, RvZxqZvev`, MbZš¿, agx©q g~j¨‡eva I A_©‰bwZK cÖMwZ AR©‡b my¯’¨ ivRbxwZ M‡o †Zvjvi j‡ÿ¨ be MwVZ †gvP©v †W‡gv‡µwUK Gjv‡qÝ Gi AvZ¥vcÖKvk

A`¨ 19 †deªæqvwi 2017Bs, RvZxq †cÖmK¬ve AwW‡Uvwiqv‡g Av‡qvwRZ mvsevw`K m‡¤§j‡b gyw³hy‡×i †PZbv, RvZxqZvev`, MbZš¿, agx©q g~j¨‡eva I A_©‰bwZK cÖMwZ AR©‡b my¯’¨ ivRbxwZ M‡o †Zvjvi j‡ÿ¨ b¨vkbvj †W‡gv‡µwUK cvwU© (GbwWwc), RvZxqZvev`x MYZvwš¿K `j (RvM`j), evsjv‡`k BmjvwgK cvwU© (weAvBwc), b¨vkbvj Ks‡MÖm, evsjv‡`k MYZvwš¿K Av‡›`vjb (wewRG), Avg RbZv cvwU©, b¨vkbvj †jevi cvwU© (GbGjwc) I ¯^vaxbZv cvwU© mgš^‡q bZzb ivR‰bwZK †gvP©v †W‡gv‡µwUK Gjv‡qÝ Gi AvZ¥vcÖKvk nq|
Gjv‡q‡Ýi cÖav‡bi `vwqZ¡ N~Y©vqgvb c×wZ‡Z wbev©P‡bi wm×všÍ wb‡q G †NvlYv †_‡K 1g †gqv`Kv‡j cÖavb mgš^qKvix wn‡m‡e `vwqZ¡ cvjb Ki‡eb b¨vkbvj †W‡gv‡µwUK cvwU© (GbwWwc) Gi †Pqvig¨vb Rb‡bZv AvjgMxi gRyg`vi| h_vixwZ kwiK `jmg~‡ni m¤§vwbZ †Pqvig¨vbMY mgš^qKvix I gnvmwPee„›` w÷qvwis KwgwUi m`m¨ _vK‡eb| cÖavb mgš^qKvix, mgš^qKvix I w÷qvwis KwgwUi m`m¨e„‡›`i mgš^‡q MwVZ n‡e †K›`ªxq bxwZ wbav©iYx KwgwU|
m‡¤§j‡b Dc¯’vwcZ e³‡e¨ AvjgMxi gRyg`vi e‡jb, evsjv‡`‡ki RbMY eû msMÖv‡gi eÜzi c_ †e‡q 1971 mv‡j `xN© bq gvm e¨vcx gnvb gyw³hy‡×i ga¨ w`‡q mygnvb ¯^vaxbZv msMÖv‡gi gva¨‡g ¯^Kxq ¯^vZ‡š¿i gwngvgq Aw¯ÍZ¡ AR©b K‡i‡Q| †h ¯^vZš¿¨ Aw¯ÍZ¡‡eva Avgv‡`i ¯^vaxbZvi †PZbv‡K RvMÖZ K‡iwQj, †`k AvR †m ¯^vZš¿¨‡eva‡K wejxb Kivi loh‡š¿i wkKv‡i cwiYZ n‡q‡Q| GB `yfv©M¨RbK cwiYwZi cÖavb KviY, 46 eQi ciI evsjv‡`‡ki RbM‡Yi B”Qvi cÖwZdjb NwU‡q Zv‡`i m¤§wZi wfwˇZ GKwU w¯’wZkxj MYZvwš¿K mvsweavwbK e¨e¯’v cÖwZôv Kiv m¤¢e nqwb| miKvi MVb I cwieZ©‡bi †gŠwjK AwaKvi †_‡K RbMY AvRI ewÂZ| Zvi d‡j GKw`‡K ÿgZv wjáv Ges RvZxq msnwZi cÖwZK~j kw³mg~‡ni Pµv‡šÍ †`k, mgvR I ivóª Aw¯’wZkxjZvi Mfxi Ave‡Z© µgvMZ wbgw¾Z n‡q‡Q| Ab¨w`‡K ivRbxwZ‡Z wefw³ †e‡o‡Q, Awek^vm Mfxi n‡q‡Q| evsjv‡`k cÖwZôvi ci A‡bK evi miKv‡ii DÌvb I cZb N‡U‡Q| wKš‘, Zv KLbI KLbI mvsweavwbK ˆeaZvi †gvo‡K G‡jI e„nËi Rb‡Mvôxi Avkv-AvKvsLvi cÖwZdjb Zv‡Z N‡Uwb| G‡nb cwiw¯’wZ †_‡K DËi‡Yi Rb¨ cÖ‡qvRb n‡”Q GKwU ¯^vaxb I wbi‡cÿ wbev©Pb Kwgk‡bi AvIZvq Aeva, myôz I wbi‡cÿ wbev©Pb Abyôvb|
Ô†W‡gv‡µwUK Gjv‡qÝÕi Avï jÿ¨Ñ(1) Avgv‡`i RbMY‡K mv¤ªvR¨ev`, m¤úªmviYev` I mKj cÖKvi AvwacZ¨ev`x kw³i AvMÖvmx wjáv Ges †`‡ki Af¨šÍ‡i Zv‡`i †`vmi‡`i Kvh©Kjv‡ci weiæ‡× HK¨e× Kiv| †`‡ki Avf¨šÍixY RvZxq jÿ¨ I AvÂwjK ¯^v_© mg~‡ni bxwi‡LB AvšÍRv©wZK m¤úK© msµvšÍ bxwZ Z_v ciivóª bxwZ wbav©wiZ n‡e Ges eY©ev`, Bû`xev` we‡ivax mKj gyw³ msMÖvg‡K mg_©b Kiv n‡e (2) RbM‡Yi m¤§wZi wfwˇZ w¯’wZkxj mvsweavwbK MYZvwš¿K ivóª e¨e¯’v M‡o †Zvjv Ges cÖvwZôvwbK KvVv‡gvi g‡a¨ ivR‰bwZK w¯’wZkxjZv AR©b Kiv| (3) RbM‡Yi g‡ÛU cÖvß Ges RbM‡Yi Kv‡Q `vqe× GKwU MYZvwš¿K miKvi cÖwZôv Kiv| MYZvwš¿K I wbev©Pbx cÖwµqvi cweÎZv cybiæ×vi Kiv| mn 8 `dv Avï jÿ¨ Dc¯’vcb Kiv nq|
Avï Kg©m~Px
(1) Rw½ev`-mš¿vm, `ybx©wZ I mv¤úª`vwqKZvgy³ evsjv‡`k M‡o †Zvjv (2) mKj cÖKvi Ryjyg wbhv©Zb I `vwi`ª¨ we‡gvP‡bi wfwˇZ †kvlYnxb mgvR e¨e¯’v cÖeZ©b Kiv| (3) Aeva, myôz I wbi‡cÿ wbev©Pb Abyôv‡bi gva¨‡g GKwU w¯’wZkxj MYZvwš¿K miKvi cÖwZôv Kiv mn 10 `dv Kg©m~wP †NvlYv Kiv nq|
msev` m‡¤§j‡b Ab¨vb¨‡`i g‡a¨ Dcw¯’Z wQ‡jb, RvZxqZvev`x MYZvwš¿K `j (RvM`j)Õi †Pqvig¨vb Avãyj gv‡jK †PŠayix, evsjv‡`k BmjvwgK cvwU© (weAvBwc)Õi †Pqvig¨vb Gg.G ikx` cÖavb, b¨vkbvj Ks‡MÖmÕi †Pqvig¨vb KvRx mvweŸi, evsjv‡`k MYZvwš¿K Av‡›`vjb (wewRG)Õi †Pqvig¨vb Rvdiæjøvn †PŠayix, Avg RbZv cvwU©i †Pqvig¨vb iwdKzj Bmjvg Lvb, b¨vkbvj †jevi cvwU© (GbGjwc)Õi †Pqvig¨vb Avãyjøvn wRqv mn cÖgyL †bZ…e„›`| msev` m‡¤§j‡b wjwLZ e³e¨ cvV K‡ib GbwWwc gnvmwPi Avjxb~i ingvb Lvb mvRy|
evZv©‡cÖiK,

(Gg.G ikx` cÖavb)
mgš^qKvix, †W‡gv‡µwUK Gjv‡qÝ

BOOK PUBLISHED -BOI MELA



Sangbadik Majid
Dhaka

রাজনীতির মেরুকরণ কোথায় যাচ্ছে? দেশপ্রেমিক পাওয়া মুশকিল হয়ে পড়েছে মোঃ মঞ্জুর হোসেন ঈসা



১৫ই ফেব্রয়ারি ২০১৭ নতুন সিইসি শপথ গ্রহণের পর নতুন রাজনীতির খেলা শুরু হয়েছে। এদিকে নানাভাবে আওয়ামী লীগ থেকে বলা হচ্ছে বিএনপি নির্বাচনে যাচ্ছে। এখন প্রশ্ন হচ্ছে? আওয়ামী লীগের ভাষায় বিএনপি কি নির্বাচন বিমূখ কোন দল? যে দলটি বাংলাদেশের দীর্ঘদিন ক্ষমতায় ছিল। যে দলের প্রধান বীরউত্তম শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান মহান স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়েছেন। তিনি সামনে থেকে দল করে নেতৃত্ব দিয়েছেন। সেই দলের বর্তমান কণধার হচ্ছেন তাঁরই সুযোগ্য সহধর্মিনী এদেশের তিন তিনবারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী, সাবেক বিরোধী দলের নেতা দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া। দেখে অবাক হই দেশের এমন একজন সিনিয়র নাগরিককে সপ্তাহে দিন আদালতে হাজির হতে হয়। ঘন্টার পরে ঘন্টা বসে থাকতে হয়। অন্যদিকে দেখি ইয়াবার বড় বড় চালান নিয়েও ধরা খেয়ে কারাগারে গিয়ে আবার অন্যদিক থেকে বের হয়ে আসে। চোর ছেচ্ছররা আজকাল কারাগারে তেমন নেই। কারণ বাংলাদেশের প্রতিটি কারাগার এখন যে কোনভাবেই হোক বিএনপি ২০ দলীয় জোটের দখলেই রয়েছে। গত ১০ বছর ক্ষমতার কোন জায়গায় দখল করতে না পারলেও সরকারের ভালোবাসায় কারাগারে অবস্থান নিয়ে বেশ জোরেশোরে দখলদার হয়েছে। সরকার যখন যাকে ইচ্ছা সেই অনুযায়ী মামলা দায়ের করে কারাগারে  নিক্ষেপ করতে সময় নেন না। এইতো দিন আগেই কারাগার থেকে জামিনে মুক্তি পেয়ে বের হলেন নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না। তিনি একসময় আওয়ামী লীগই করতেন। সেই দলের বড় নেতা ছিলেন। কথা বার্তায় বনি বনা না হওয়ায় তাকে রাষ্ট্রদ্রোহী মামলায় কারাগারে যেতে হয়। আমি ভেবেছিলাম বের হয়ে নিরব থাকবেন কিন্তু আমার ভাবনাকে উল্টিয়ে দিয়ে তিনি আবারও সরব হয়ে উঠেছেন। সরব হয়ে উঠেছেন দৈনিক আমার দেশ পত্রিকার সাহসী সম্পাদক প্রকৌশলী মাহমুদুর রহমান। আমি ব্যক্তিগতভাবে এই মহান ভাষার মাসে এই দুইজন সাহসী বীরকে স্যালুট জানাই। দিন আগে সম্ভবত ১২ ফেব্রয়ারি বরিশালে ভাষা সৈনিক মোঃ ইউসুফ কালুর বাসভবনে গিয়েছিলেন। তিনি একদিকে মহান ভাষা সৈনিক অন্যদিকে বীরমুক্তিযোদ্ধা। ভাষার জন্যই কালীন সময়ে দুবার কারাগারে যেতে হয়েছে। দুঃখজনক হলেও সত্য ভাষার মাসে ভাষা সৈনিকরাতো সময়ের কারণে সংক্ষিপ্ত হয়ে আসছেন। জাতীয় বীররা বয়সের কারণে না ফেরার দেশে চলে যাচ্ছেন। যারা বেঁচে আছেন তাদেরকে সম্মান দিতেও আমরা ভুলে গেছি। ভাষা মতিনের কথা মনে পড়ছে বেশ। তিনি যখন বেঁচে ছিলেন তখন তাঁকে টানা হেছড়া করতে করতে এই ভাষার মাসে অনেকটা অসুস্থ হয়ে যেতেন। তার পরও কারও প্রতি কোন রাগ করতেন না। সবার অনুষ্ঠানে এসে কথা বলতেন। তিনি যখন কথা বলতেন তখন ডানে বামে তাকাতেন না। সত্য কথাটি স্পষ্ট করেই উচ্চারণ করতেন। আজকাল আমরা তো ডানে বামেই তাকিয়েই নিজের দলীয় সংকীর্ণতার মধ্যে থেকেই কথা বলি। দেশের বিএনপি, আওয়ামী লীগ, জাসদ, বাসদ, ছাত্র ইউনিয়ন, ওয়ার্কার্স পার্টি সহ  বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের অনেক প্রেমিক পাওয়া গেলেও দেশপ্রেমিক পাওয়া মুশকিল হয়ে পড়েছে। দেশের জন্য ভেবে কথা বলেন এমন মানুষ পাওয়া বড় ভার। আজও আমাদের সুন্দরবন রক্ষার আন্দোলন করতে হয়। পানি পাওয়ার আন্দোলন করতে হয়। আর কর্তা বাবুরা তাদেরকে খুশি করার জন্য সবকিছু উজার করে দিয়ে দিচ্ছেন। ভাষার মাসে গত ১৭ ফেব্রয়ারি জন মহান ভাষা সৈনিকের সাথে কথা বলছিলাম। একজন হলেন মমতাময়ী মা রওশন আরা বাচ্চু, অন্যজন হলেন প্রখ্যাত চিকিৎসক ভাষা সৈনিক ডাঃ মির্জা মাজহারুল ইসলাম। মমতাময়ী মা রওশন আরা বাচ্চু স্মৃতিচারণ করতে করতে বলছিলেন, আমাদেরকে তো কেউ মনে রাখবে না। তাই যতদিন বেঁচে আছি সেই ঐতিহাসিক দিনের কথা নিজেই তরুণ প্রজন্মের সামনে তুলে ধরছি। আজও নানাভাবে ভাষা সৈনিকরা অবহেলিত। যে ভাষার সূত্র ধরেই মহান মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তীতে আমাদের বিজয়ের গৌরবময় স্মৃতিকথা। সবকিছুই আমরা গুলিয়ে ফেলছি। ভাষা সৈনিক ডাঃ মির্জা মাজহারুল ইসলাম স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে বলছিলেন, ৯১ তে পা রেখেছি, শুধু বাংলাদেশ নয় পৃথিবীর অনেক দেশের চিকিৎসকের চেয়ে একক অপারেশন আমি বেশি করেছি। ১০% মানুষের কাছ থেকে অর্থ নিলেও ৯০% মানুষের অপারেশন বিনা অর্থে করেছি।৫২ সেই উত্তাল দিনে ভাষা সৈনিক শহীদ বরকতের অপারেশন থিয়েটারেও আমি ছিলাম। তখন আমি ঢাকা মেডিকেল কলেজের শেষ বর্ষের ছাত্র। জীবনে অনেক কিছু দেখেছি, বাকি জীবন মানুষের সেবা করে মরতে চাই। তারা যখন কথা বলছিলেন সামনে আমি সহ যারা শুনছিলাম তাদের গৌরবময় কথায় গর্বে বুক ফুলে উঠছিল। অন্যদিকে চোখ ছলছল করছিল। সত্যিকার যারা দেশপ্রেমিক আমরা তাদেরকে মর্যাদা দিতে ভুলে গেছি। যারা চাটুকার আর তোষামোদকারী তাদেরকে নিয়েই আমাদের পথচলা। শত মানুষের ভিড়ে সত্যিকার মানুষকে হারিয়ে আমরা অমানুষের তালিকায় নিজেদেরকে নিজেরাই যুক্ত করছি। আর কারণেই দেশে বিনা বিচারে হত্যা গুম, খুন, টেন্ডারবাজি, চাঁদাবাজি, ব্যাংক লুট সহ নানা অস্থিরতা বেড়েই চলেছে। শিশু অপরাধীদের অপরাধের বর্ণনা শুনলে নিজেরাই চমকে উঠি। এখান থেকে মুক্তি পাবো কবে। দেশে আবারও অস্থিরতার আলামত শুরু হয়েছে। ২০ দলীয় জোটের শরীক দল লেবার পার্টির মহাসচিব হামদুল্লাহ আল মেহেদীকে গ্রেফতার করে কারাগারে প্রেরণ করেছে। তার বিরুদ্ধে নাশকতামূলক মামলা দায়ের করা হয়েছে। আমি তাকে ব্যক্তিগতভাবে যতটুকু চিনি মানুষটি নাশকতা তো দূরের কথা কারো গায়ে একটি ঢিল ছুড়তে পারে তা আমি বিশ্বাস করি না। তবে আমি ভাবছি তার গ্রেফতারে এখন যারা নিরব রয়েছেন তারা যখন গ্রেফতার হবেন তখন কারা সরব থাকবেন? আসুন দেশটাকে ভালোবাসি, দেশের মানুষের জন্য, গণতন্ত্রের জন্য, ভোটের অধিকার ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য যার যার অবস্থান থেকে নিজেদের সর্বোচ্চ উজাড় করে গণতান্ত্রিক মুক্তি সংগ্রামে অংশগ্রহণ করি। 

লেখক : প্রেসিডিয়াম সদস্য, ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক পার্টি-এনডিপি। 
Courtesy: 
 Sangbadik Majid
Peelkhana
Dhaka

খালেদাকে মাইনাস করে আরও একটি নির্বাচনের পাঁয়তারা করছে সরকার: ফারুক



খালেদাকে মাইনাস করে আরও একটি নির্বাচনের পাঁয়তারা করছে সরকার: ফারুক

বিএনপির চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়াকে মাইনাস করে আরও একটি ভোটারবিহীন নির্বাচনের পাঁয়তারা করছে সরকার বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা জয়নাল আবেদীন ফারুক। 

তিনি বলেন,রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসের জোড়ে দীর্ঘ ১০ বছর ক্ষমতায় রয়েছে সরকার। ২০০৮ সালে মঈন উদ্দীন ফখরুদ্দীনের সহায়তায় ক্ষমতায় এসে বিএনপিকে ২৫ টি আসন দিয়েছিল তারা পরে ২০১৪ সালে পুরো সংসদ দখল করে নেয়।সেই ষড়যন্ত্রের ধারাবাহিকতায় ২০১৯ সালের নির্বাচনে খালেদাকে মাইনাস করে আবার ভোটারবিহীন নির্বাচনের ষড়যন্ত্র করছে সরকার। কিন্তু তাদের সেই ষড়যন্ত্র কখনও সফল হতে দেবে না দেশের জনগন

রবিবার(১৯ ফেব্রয়ারি) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে জাতীয়তাবাদী দেশ বাঁচাও মানুষ বাঁচাও আন্দোলন আয়োজিত এক মানববন্ধনে তিনি এসব কথা বলেন

নির্বাচনকালীন সহায়ক সরকারের দাবিতে মানববন্ধনটির আয়োজন করা হয়

বিএনপির নির্বাচনকালীন সহায়ক সরকারের প্রস্তাবকে সরকার ভয় পাচ্ছে মন্তব্য করে জয়নাল আবেদীন ফারুক বলেন,আমরাও এখনও প্রস্তাব দেয়নি তার আগেই আওয়ামী লীগের সাধারন ওবায়দুল কাদের বলছেন বিএনপির নির্বাচনকালীন সহায়ক সরকারের দাবি কখনও মেনে নেয়া হবে না। তিনি ২০১৯ সালের নির্বাচনে ক্ষমতা কুক্ষিগত করে বিএনপিকে বাহিরে রাখতেই এসব কথা বলছেন

নির্বাচন কমিশন প্রসঙ্গে তিনি বলেন,আওয়ামী লীগ,ছাত্রলীগ, জনতার মঞ্চের নেতা নুরুল হুদাকে প্রধান নির্বাচন কমিশনার করা হয়েছে। তাকে দিয়ে সুষ্ঠ নির্বাচন হবে এটা শুধু বিএনপি না দেশের কোটি মানুষের কেউ বিশ্বাস করে না

দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্য  বিএনপির এই নেতা বলেন,আমাদের আর ঘরে বসে থাকার সময় নেই। আমাদের পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে,গণতান্ত্রিক অধিকার যেকোন ত্যাগ স্বীকার করার জন্য আমাদেরকে প্রস্তুত থাকতে হবে

আয়োজক সংগঠনের সভাপতি কে এম রকিবুল ইসলাম রিপনের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে আরও বক্তব্য রাখেন,লেবার পার্টির চেয়ারম্যান ডা:মোস্তাফিজুর রহমান ইরান, বিএনপির প্রশিক্ষন বিষয়ক সম্পাদক এবি এম মোশাররফ হোসেন,গণশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক অধ্যক্ষ সেলিম ভূইয়া,ন্যাপের মহাসচিব গোলাম মোস্তফা ভূইয়া,এনডিপির প্রেসিডিয়াম সদস্য মঞ্জুর হোসেন ঈশা, কল্যাণ পার্টি সহ-সভাপতি সাঈদুর রহমান তামান্না, সাবেক কমিশনার বীর মুক্তিযোদ্ধা ফরিদ উদ্দিন জিনাপ সভাপতি নিয়াম মোহাম্মদ আনোয়ার, সাবেক ছাত্রনেতা রবিউল ইসলাম রবি, কাজী মনিরুজ্জামান, নুরুজ্জামান সরকার, কর্মজীবী দলের সাধারণ সম্পাদক আলতাফ হোসেন সর্দার, নাগরিক দলের সভাপতি পীরজাদা ওমর ফারুক, সংগঠনের সহ-সভাপতি নাজমুল হাসান রনি, শরীফুল ইসলাম শরীফ, রাসেল খান, আহম্মেদ শাকিল, মোস্তফা গাজী দুদু, আনোয়ার হোসেন পলাম মন্ডল প্রমুখ

Sangbadik Majid
Peelkhana 1 No Gate, (Post office Moore)
Hazaribag-Lalbag
Dhaka